Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

নেপাল ম্যাচ নিয়ে বাফুফের ব্যস্ততা!

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২১ অক্টোবর, ২০২০, ৮:২৯ পিএম

জাতীয় দলের ফিফা প্রীতি ম্যাচ নিয়ে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) ব্যস্ততা শুরু হয়ে গেছে। প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের কারণে গত মধ্য মার্চ থেকে দেশের সব খেলাধুলা বন্ধ থাকলেও বাফুফে আগামী মাসে নেপালের বিপক্ষে দু’টি আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচের ব্যবস্থা করেছে। যার প্রথমটি ১৩ এবং পরেরটি ১৭ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। ম্যাচভেন্যু বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম।

চলতি মাসের শুরুতে বাফুফের বহুল আলোচিত নির্বাচনের পর হঠাৎই যেন ফুটবল নিয়ে ব্যস্ততা বেড়ে গেছে মতিঝিলস্থ বাফুফে ভবনে। বর্তমান করোনাকালে কীভাবে বাংলাদেশ-নেপাল ম্যাচ দু’টি আয়াজন করা যায়, তা নিয়েই দিন-রাত কাজ করছেন বাফুফের নতুন নির্বাচিত কমিটির কর্মকর্তারা। এরই অংশ হিসেবে বুধবার অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন বাফুফের সহ-সভাপতি ও জাতীয় দল কমিটির চেয়ারম্যান কাজী নাবিল আহমেদ, এমপি এবং জাতীয় দলের ব্রিটিশ কোচ জেমি ডে।

নেপালের বিপক্ষে দুই প্রীতি ম্যাচ আয়োজনকে নতুন চ্যালেঞ্জ হিসেবেই দেখছেন কাজী নাবিল। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন,‘অবশ্যই ম্যাচ দু’টি আয়োজন করা খুব চ্যালেঞ্জিং। ক্রিকেট (আন্তর্জাতিক ম্যাচ) করতে পারলে ভালো হতো। আমরা পরস্পর সকল খেলার সঙ্গে জড়িত। একে অপরের কাছ থেকে আরও বেশি শিক্ষা নিতে পারতাম। যেহেতু আমাদের উপর দায়িত্ব বেশি পড়ে গেছে, তাই আমরা ক্যাম্প শুরু করতে যাচ্ছি। করোনা পরিস্থিতিতে ক্যাম্প করার সময় অন্যদের সাহায্য নিতে হবে। যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়সহ অন্যদের সঙ্গে আলোচনা করে পুরো বিষয় সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’ তিনি যোগ করেন,‘মাঠের ফুটবল ফিরিয়ে আনতেই বাফুফে কাজ করে যাচ্ছে। আমরা ম্যাচ খেলবো, এই ঘোষণা দিতে পেরে আমি খুশি। ২৩ অক্টোবর থেকে শুরু হচ্ছে জাতীয় দলের ক্যাম্প। বিশ্বকাপ বাছাই পর্বকে সামনে রেখে অনুশীলন ক্যাম্প শুরু করতে চেয়েও আমরা তা পারিনি। এখন আমাদের একটাই লক্ষ্য মাঠের ফুটবলকে ফিরিয়ে আনা। ফুটবল একার খেলা নয়, পুরো টিমের খেলা। আমরা জেতার জন্য খেলবো। তবে জয়ই মুখ্য নয়। এখানে ফুটবলকে মাঠে ফিরিয়ে আনাটাও বড় বিষয়।’

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ক্যাম্প শুরুর আগে যেমনটা হয়েছিল ঠিক তেমনি এবারও খেলোয়াড়দের আগে-পরে মিলিয়ে একাধিবার করোনাভাইরাস ( কোভিড-১৯) পরীক্ষার মুখোমুখি হতে হবে। খেলোয়াড়দের যতদূর সম্ভব বিচ্ছিন্ন করে রাখারও (আইসোলেটেড) চিন্তা-ভাবনার কথা জানান জাতীয় দল কমিটির চেয়ারম্যান। তার কথায়, ‘কোভিড-১৯ পরীক্ষা করে ক্যাম্পে আসবে সবাই। কোথায় করাবে তা আমরা অনুমোদন করে দেবো। ক্যাম্পে যোগ দেয়ার পরে আরও দুই-তিনবার পরীক্ষা হবে তাদের। যতটা পারা যায় আইসোলেটেড রাখতে হবে। নেপাল দলেরও একই অবস্থা হবে। এ নিয়ে আন্তমন্ত্রণালয়ের সভা আছে। সেখানে অনেক নির্দেশনা পাওয়া যাবে। সংশ্লিষ্ট সবাই সেখানে থাকবেন। তারা ভালো বুঝবেন। তখন বাস্তবায়ন করা যাবে সবকিছু।’

করোনার কারণে বিশ্বের বেশিরভাগ স্থানে ফুটবল ম্যাচ হচ্ছে দর্শকহীন স্টেডিয়ামে। নেপালের বিপক্ষে দুই ম্যাচে দর্শক উপস্থিতি নিয়ে বাফুফের ভাবনা কি? এমন প্রশ্নে কাজী নাবিলের উত্তর, ‘পৃথিবীর অন্য দেশগুলোতে দেখতে পাচ্ছি খেলায় খুব বেশি দর্শক থাকে না। আমরা এখানে স্বল্প সংখ্যক দর্শক রাখতে পারি। আন্তঃমন্ত্রনালয় সভায় সিদ্ধান্ত হবে। সেটাই বাস্তবায়ন করবো। একেবারেই দর্শকশূন্য খেলা অন্যরকম লাগবে। আশা করছি অল্পকিছু দর্শক যেন রাখতে পারি।’ ম্যাচ সন্ধ্যায় ফ্লাডলাইটের আলোতেও আয়োজিত হতে পারে বলে জানান তিনি।

জাতীয় দলের ব্রিটিশ কোচ জেমি ডে বলেন, ‘দলকে প্রস্তুত করতে দুই সপ্তাহ খুবই অল্প সময়। ম্যাচের আগে আমাদের কমপক্ষে আট সপ্তাহ প্রস্তুতির দরকার ছিল। কিন্তু যেহেতু ম্যাচের আগে সময় কম। তাই আমাদের সেভাবেই প্রস্তুত হতে হবে। তবে এই ফিফা প্রীতি ম্যাচ দিয়ে বাংলাদেশে ফুটবল ফিরছে এটাই বড় বিষয়।’

শুক্রবার থেকে শুরু হলেও ক’দিন বাদে ক্যাম্পে যোগ কোচ জেমি ডেসহ বিদেশি কোচিং স্টাফের অন্যরা। অনুশীলনের ভেন্যু তিনটি- বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়াম,কমলাপুরস্থ বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়াম ও শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব মাঠ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন