Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

ধর্ষণ নিয়ে সালিশ কেন ফৌজদারি অপরাধ নয়

হাইকোর্টের রুল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৩ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০২ এএম

ধর্ষণের ঘটনায় সালিশ-মীমাংসাকে কেন ফৌজদারি অপরাধ হিসেবে গণ্য করা হবে না-এই মর্মে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। এক রিট পিটিশনের পরিপ্রেক্ষিতে শুনানি শেষে গতকাল বুধবার বিচারপতি মো.মজিবুর রহমান মিয়া এবং মহিউদ্দিন শামীমের ডিভিশন বেঞ্চ এ রুল জারি করেন। রুলের পাশাপাশি ধর্ষণ বিষয়ে হাইকোর্টে চলমান অন্যান্য মামলা সম্পর্কে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। রিটে আইন,বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব,পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি), সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী করা হয়েছে।
রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট ইয়াদিয়া জামান। রুলের বিষয়ে তিনি বলেন, ধর্ষণের পর দেখা যায় সালিশ-মীমাংসার মাধ্যমে ঘটনা ধামাচাপা দেয়া হয়। ধর্ষিতা বিচার পান না। ধর্ষণকারীকে বাঁচিয়ে দেয়া হয়। সালিশে ধর্ষিতা নারীকেই দায়ী করা হয়। এ বিষয়টিকে আমরা ‘ফৌজদারি অপরাধ’ হিসেবে গণ্য করার নির্দেশনা চেয়েছি। রিটে গত ১০ বছরে সারাদেশে থানায় কতগুলো ধর্ষণের মামলা দাখিল হয়েছে, কতগুলো মামলা বিচারের জন্য আদালতে পাঠানো হয়েছে, তার তথ্য জানানোর নির্দেশনা চাওয়া হয়। এছাড়া ধর্ষণের মামলা রুদ্ধদ্বার আদালতে বিচারের বিধান কার্যকরেরও নির্দেশনা চাওয়া হয়। রিট আবেদনে ধর্ষণের মামলা ১৮০ কার্যদিবসে বিরতিহীনভাবে নিষ্পত্তি, বিচার শুরুর পর থেকে নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত একটানা বিচার চলার বিধান ও আদেশ কার্যকরেরও নির্দেশনা চেয়েছি আমরা। রিটের প্রাথমিক শুনানি গ্রহণ শেষে আদালত বিবাদীদের প্রতি রুল নিশি জারি করেছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ধর্ষণ

২৭ নভেম্বর, ২০২০
২৫ নভেম্বর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন