Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

লঘুচাপ নিম্নচাপে পরিণত হয়ে দক্ষিণাঞ্চল সহ উপকূলভাগে প্রবল বর্ষণের সাথে জোয়ারের প্লাবন

বরিশাল ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৩ অক্টোবর, ২০২০, ১২:৫৪ পিএম

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট সুস্পষ্ট লঘুচাপটি সরে গিয়ে নিম্নচাপ থেকে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়ে সমগ্র দক্ষিণাঞ্চল সহ উপকূলীয় জনপদকে বিপর্যস্ত করে দিয়েছে। নিম্নচাপটি শুক্রবার সকাল ৯টায় পায়রা বন্দর থেকে ২০৫ কিলোমিটোর দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল। নিম্নচাপের ভর করে প্রবল বর্ষণের সাথে ঝড়ো হাওয়ায় উপকূলভাগ সহ দক্ষিনাঞ্চলের স্বাভাবিক জনজীবন অনেকটা লন্ডভন্ড করে দিয়েছে। সাগর যথেষ্ঠ মাত্রায় উত্তাল রয়েছে। বরিশাল মহানগরী ২-৫ ফুট পানির তলায়। নিম্নচাপটি দুপর ১২টা নাগাদ পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের মধ্যবর্তী সাগরদ্বীপ উপক’ল অতিক্রমের কথা জানিয়েছে আবহাওয়া বিভাগ। বর্ষনের সাথে নিম্নচাপের প্রভাবে ফুসে ওঠা সাগরের জোয়ারের পানি ধেয়ে আসছে উপক’লভাগ থেকে দক্ষিণের জনপদে। আবহাওয়া বিভাগ থেকে বরিশাল,পটুয়াখাালী, বরগুনা, ভোলা, পিরোজপুর, ঝালকাঠী ও বাগেরহাটের উপকূলীয় চরসমুহ স্বাভাবিকের চেয়ে চেয়ে ৩-৪ ফুট অধিক জোয়ারে প্লাবিত হবার কথা বলা হয়েছে।

অব্যাহত প্রবল বর্ষনে বরিশাল মহানগরী সহ দক্ষিণাঞ্চলের সবগুলো নগর-মহানগর ২-৫ফুট পানিতে প্লাবিত হয়েছে। শুক্রবার সকাল ৯টার পূববর্তী ২৪ ঘন্টায় বরিশালে ১৫৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। যারমধ্যে সকাল ৬টা থেকে ৯টার মধ্যেই প্রায় ৬৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। ৯টার পরে দুপুর ১২টা পর্যন্ত আরো প্রায় ৪৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে বরিশালে। শুক্রবার সকাল ৯টার পূর্ববর্তি ২৪ ঘন্টায় কুয়াকাটা সংলগ্ন কলাপাড়াতে দেশের সর্বাধীক ২৫৪ মিলিমিটার, পটুয়াখালীতে ১৭৪ মিলিমিটার বষ্টি হয়েছে। বরিশাল সহ দক্ষিণাঞ্চলের সবগুলো নদী বন্দরকে ২ নম্বর নৌ হুশিয়ারী সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। পায়রা সহ সব সমুদ্র বন্দরকে ৪ নম্বর স্থানীয় হুশিয়ারী সংকেত নামিয়ে ৩নম্বর সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। বরিশাল নদী বন্দরে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছে। দক্ষিণাঞ্চলে অনধীক ৬৫ ফুট দৈর্ঘের সব যাত্রীবাহী নৌযানের চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সমুদ্রে অবস্থানরত সব মাছধরা ট্রলারকে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

দুপুর ১২টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত বরিশাল সহ দক্ষিণাঞ্চল যুড়ে ২০-২৫ কিলোমিটার বেগের বাতাসের সাথে হালকা থেকে মাঝারী বর্ষন অব্যাহত ছিল। বরিশাল মহানগরীর অন্তত ৮০ভাগ এলাকা এখনো বৃষ্টির পানির তলায়। সিটি করেপারেশন থেকে পয়ঃনিস্কাশন ব্যাবস্থা সচল করতে কিছু উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বৃষ্টিপাতের প্রবনতা হ্রাস পেলে বরিশাল মহানগরী প্লাবনমূক্ত হতে আরো অন্তত ২৪ ঘন্টা সময় লাগতে পারে। তবে এ ব্যাপারে আলাপ করতে সিটি করপোরেশনের কনজার্বেন্সী বিভাগের দায়িত্বরত ডা. রবিউল আলমের সাথে যোগাযোগের বহু চেষ্টা করেও তা সম্ভব হয়নি।
আবহাওয়া বিভাগ থেকে পরবর্তি ৭২ ঘন্টায় আবহাওয়া পরিস্থিতির উন্নতির করা বলা হয়েছে।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নিম্নচাপ


আরও
আরও পড়ুন