Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

বিশ্বাসযোগ্য নয় লিবিয়ার যুদ্ধবিরতি : এরদোগান

তুরস্ককে ‘মারাত্মক পরিণতির’ হুমকি যুক্তরাষ্ট্রের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০০ এএম

লিবিয়ার যুদ্ধরত দলগুলির মধ্যে স্থায়ী যুদ্ধবিরতি চুক্তি বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যিপ এরদোগান। শুক্রবার ইস্তাম্বুলে জুমার নামাজের পর সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, যুদ্ধবিরতির এই চুক্তি (লিবিয়ার) উচ্চপর্যায় থেকে করা হয়নি। সময় বলে দেবে নিম্নপর্যায়ের ব্যক্তিদের করা ওই চুক্তি কতদিন বজায় থাকে। জাতিসংঘ মিশন জানায়, দুই পক্ষের ৫ জন করে সামরিক সদস্য জেনেভায় স্থায়ী যুদ্ধবিরতি চুক্তিতে সম্মত হয়। ঐতিহাসিক এ চুক্তি লিবিয়ার শান্তি ও স্থিতিশীলতার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এসময় এরদোগান তুর্কি নাগরিকদের করোনাভাইরাস মহামারীর প্রকোপ থেকে বাঁচার জন্য বিশেষভাবে গুরুত্ব দেন। তিনি বলেন, ‘মাস্ক, দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধিকে আমাদের অবশ্যই গুরুত্ব দিতে হবে। আমরা এ বিষয়ে সতর্ক। ’ লিবিয়ায় যুদ্ধরত দুইপক্ষ দেশটির স্থায়ী যুদ্ধবিরতি দিয়ে শান্তিচুক্তি করতে সম্মত হয়েছে। শুক্রবার যুদ্ধরত প্রধান দুই পক্ষ এ পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধবিরতিতে রাজি হয়। এর ফলে কয়েক বছর ধরে চলা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের সমাপ্তি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ছাড়াও দেশটি থেকে রাশিয়া, তুরস্ক ও অন্যাক্ত আঞ্চলিক শক্তিগুলোর সেনাদের ফিরিয়ে নেয়া হতে পারে। খবর নিউইয়র্ক টাইমসের। শুক্রবার জাতিসংঘের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ থেকে জানানো হয়, লিবিয়ায় যুদ্ধরত উভয় পক্ষের সামরিক প্রধানরা আলোচনার মধ্য দিয়ে একটি চুক্তিতে পৌঁছেছে। একে ঐতিহাসিক চুক্তি হিসেবে আখ্যায়িত করেছে জাতিসংঘ। এর ফলে দীর্ঘদিন ধরে যুদ্ধ চলা দেশটিতে শান্তির সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। আল-জাজিরার খবরে বলা হয়, শান্তিচুক্তিতে মধ্যস্থতা করেছে জাতিসংঘের দূত স্টিফেন টুরকো উইলিয়ামস। যিনি এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টের কর্মকর্তা ছিলেন। এতে স্বাক্ষর করেছে খলিফা হাফতারের বাহিনী এলএনএ এবং ত্রিপোলিভিত্তিক সরকার জিএনএ। ক্ষমতার প্রক্রিয়া কেমন হবে তা নিয়ে আলোচনা করতে আগামী মাসে তিউনিশিয়ায় বসবে দুইপক্ষ। জাতিসংঘের দূত স্টিফেন উইলিয়ামসের বরাত দিয়ে নিউইয়র্ক টাইমসের খবরে বলা হয়, আগামী ৩ মাসের মধ্যে দেশটিতে থাকা বিভিন্ন দেশের সেনাদের প্রত্যাহারের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। স্টিফেন উইলিয়ামস বলেন, স্রষ্টার ইচ্ছায় এটা পুরো লিবিয়ার শান্তির চাবিকাঠি হতে পারে। যুদ্ধবিরতির চুক্তিতে দুই পক্ষকে রাজি করাতে অনেকটা কঠিন পথ পাড়ি দিতে হয়েছে। অপরদিকে, রাশিয়ার নির্মিত এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা পরীক্ষা করায় তুরস্কের বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে মার্কিন সামরিক বাহিনী। তারা বলছে, আঙ্কারাকে এজন্য মারাত্মক পরিণতি বরণ করতে হবে। গত সপ্তাহে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার পরীক্ষা চালানো হয়েছে বলে তুরস্কের পক্ষ থেকে ঘোষণা দেয়ার পর পেন্টাগন এই হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করলো। শুক্রবার এক বিবৃতিতে পেন্টাগনের মুখপাত্র জনাথন হফম্যান সম্ভাব্য সবচেয়ে কঠোর ভাষায় নিন্দা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, তুরস্কের এ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা পরীক্ষার আমরা বিরোধিতা করছি এবং তুরস্কের সঙ্গে আমাদের নিরাপত্তা সহযোগিতার ক্ষেত্রে এই পদক্ষেপ মারাত্মক প্রভাব ফেলবে। হফম্যান বলেন, আমরা খুব পরিষ্কারভাবে বলছি যে- তুরস্কের পক্ষ থেকে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার পরীক্ষা যুক্তরাষ্ট্র এবং ন্যাটো জোটের কাছে দেয়া প্রতিশ্রুতির সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা পরীক্ষার কথা তুরস্কের প্রেসিডেন্টের রেচেপ তায়েপ এরদোয়ান নিশ্চিত করে বলেন, গত সপ্তাহে এ ব্যবস্থার পরীক্ষা চালিয়েছে আঙ্কারা। তিনি বলেন, আমরা এটির পরীক্ষা চালিয়েছি এবং ভবিষ্যতেও চালাবো। তুর্কি প্রেসিডেন্ট আরও বলেন, অন্য দেশের কাছ থেকে কেনা ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা পরীক্ষা করার সব ধরনের অধিকার তার দেশের রয়েছে। আর এজন্য তুরস্ক আমেরিকার সঙ্গে কেন পরামর্শ সে প্রশ্নও তুলেছেন এরদোয়ান। নিউ ইয়র্ক টাইমস, আল-জাজিরা, রয়টার্স।



 

Show all comments
  • MD Siddikur Rahman ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ৬:২৯ এএম says : 0
    আল্লাহর কাছে সবসময় দোয়া করি জাতে দেশটা ভাল হয়ে জায়।
    Total Reply(0) Reply
  • শিশির বিন্দু ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ৬:২৯ এএম says : 0
    Allah desh ta valo kore deo
    Total Reply(0) Reply
  • MD Siddikur Rahman ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ৬:২৯ এএম says : 0
    ভাল হোক দেশটা সবাই চায়।
    Total Reply(0) Reply
  • Kobir Mia ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ৬:৩০ এএম says : 0
    Right
    Total Reply(0) Reply
  • Stb Saiful ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ৬:৩১ এএম says : 0
    সহমত
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: এরদোগান


আরও
আরও পড়ুন