Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৬ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

বলিউড ইন্ডাস্ট্রির ‘ডন’!

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০০ এএম

হিন্দি ছবির পরিচালক মহেশ ভাটকে নিয়ে ফের বিতর্কের ঝড় শুরু হয়েছে। এবার অভিযোগকারিণী আত্মীয়া তথা অভিনেত্রী লভিনা লোধ। তিনি ভিডিওর মাধ্যমে সরাসরি অভিযোগ করেন, মহেশ ভাটই ইন্ডাস্ট্রির ডন। তার তত্ত্বাবধানেই বলিউডে মাদক ও মহিলার কারবার চলে।
গত শুক্রবার রাতে ইনস্টাগ্রামে একটি ভিডিও আপলোড করেন লভিনা। অভিনেত্রী জানান, তিনি ভিডিওটি নিজের আর পরিবারের নিরাপত্তার জন্য তৈরি করছেন। মহেশ ভাটের ভাগ্নে সুমিত সবরওয়ালের সঙ্গে তার বিয়ে হয়েছিল। আর তিনি ডিভোর্সের মামলা করেছেন।
লভিনা বলেন যে তিনি জানতে পেরেছিলেন সুমিত আমায়রা দস্তুর, স্বপ্না পাব্বির মতো অভিনেতা-অভিনেত্রীদের মাদক জোগান। শুধু তাই নয় তার ফোনেও অনেক মেয়ের ছবি থাকে যা তিনি পরিচালকদের দেখান। অর্থাৎ সুমিত মেয়ের জোগানও দেন।

আর এই সমস্ত কিছু মহেশ ভাট জানেন। মহেশ ভাট ইন্ডাস্ট্রির সবচেয়ে বড় ডন। এই পুরো চক্রান্তটি মহেশই নিয়ন্ত্রণ করেন। তাদের কথা মতো না চললে আপনার জীবন নষ্ট করে দেয় বলেও অভিযোগ করেন লভিনা।
ভিডিওতে আরও অভিযোগ করে লভিনা বলেন, কত যে অভিনেতা, পরিচালক, সংগীত পরিচালকের কেরিয়ার মহেশরা নষ্ট করেছেন তার হিসেব নেই। মানুষের অজান্তেই ফোন করে কাজের সম্ভবনা নষ্ট করে দেন মহেশ। কেউ জানতেও পারেন না।

লভিনা যেদিন থেকে মামলা করেছেন সেদিন থেকে তার পিছনে পড়েছে। নানাভাবে তার জীবনে উৎপাত সৃষ্টি করার চেষ্টা করছে বলেও অভিযোগ করেছেন লভিনা। বাড়ি থেকে উৎখাত করার চেষ্টাও করেছে। কোনো থানা তার অভিযোগ নিচ্ছিল না বলেও জানান। লভিনা জানান, তার বা তার পরিবারের কোনো ক্ষতি হলে দায়ী থাকবেন মহেশ ভাট, মুকেশ ভাট, সুমিত সবরওয়াল, সাহিল সায়গল, কুমকুম সায়গল।
লভিনার সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন মহেশ ভাটের আইনজীবী। বলিউড পরিচালকের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেবেন বলেও জানান তিনি।

উল্লেখ্য, এর আগে প্রয়াত সুশান্ত সিং রাজপুত এবং তার প্রেমিকা রিয়া চক্রবর্তীর সম্পর্ক নষ্ট করার অভিযোগও উঠেছিল মহেশের বিরুদ্ধে। সুশান্তের মৃত্যুর পর মুম্বাইয়ের থানায় গিয়ে জবাবদিহিও করেছিলেন মহেশ। পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়ায় তুমুল নিন্দার মুখে পড়তে হয়েছিল তাকে। এবারও বলিউড পরিচালককে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন নেটদুনিয়ার একাংশ। সূত্র :জি নিউজ/গালফ নিউজ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ