Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৭ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

‘জুনের মধ্যেই ভারতে তৈরি হবে টিকা’

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০০ এএম

করোনা মহামারি থেকে মুক্তি পেতে বিশ্ব জুড়েই কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন তৈরির কাজ চলছে জোরকদমে। ভারতে আগামী বছরের জুন মাসের মধ্যেই ভ্যাকসিন তৈরি হবে বলে জানিয়েছেন করেছেন ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থা বায়োকন লিমিটেডের ডিরেক্টর কিরণ মজুমদার শ। গতকাল এক সংবাদ মাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে এই তথ্য জানান তিনি।

তবে ভ্যাকসিন আসলেও সাধারণ মানুষের মধ্যে সেটি বিতরণ একটা কঠিন বিষয়টি বলে মনে করেন কিরণ। ভারতের বাজারে পর্যাপ্ত ভ্যাকসিন আসার ব্যাপারে কিরণ বলেন, ‘আমার আশা দেশের প্রথম এমআরএনএ টিকা এই বছরের শেষে অনুমোদন পেয়ে যাবে। যদিও তখনই তা বাজারে পাওয়া যাবে না। হিমাঙ্কের ৮০ ডিগ্রির নীচে কোল্ড চেনের মধ্যে রাখতে হবে ভ্যাকসিন। যেটা এখানে সম্ভব নয়।’ তবে সামনের বছর জানুয়ারির মধ্যে অ্যাস্ট্রাজেনেকা বা ভারত বায়োটেকের তৈরি করোনা ভ্যাকসিন অনুমোদন পেতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি। তার আশা, ‘সেই ভ্যাকসিনের ট্রায়াল ২-৩ মাসের মধ্যে শেষ করে ফেলতে পারলে আগামী অর্থবর্ষের প্রথম কোয়ার্টারের মধ্যেই ভারত ও বিশ্বের বাজারে চলে আসবে করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন।’

তবে বাজারে ভ্যাকসিন এলেই তো সমস্যার সমাধান হবে না। সাধারণ মানুষের মধ্যে সেই ভ্যাকসিন বিতরণ একটা গুরুত্ব প্রক্রিয়া বলে মনে করেন কিরণ। এ ব্যাপারে তিনি বলেছেন, ‘প্রাপ্ত বয়স্কদের মধ্যে এত বড়মাপের ভ্যাকসিনেশন এর আগে হয়নি।’ তার মতে, পোলিয়োর মতো ভ্যাকসিন স্বাস্থ্যকর্মীরা দিতে পারলেও করোনা ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে তা সম্ভব নয়। এর কারণ হিসাবে তিনি বলেছেন, কোভিড ভ্যাকসিন ইন্ট্রা-মাসকুলার ইনজেকশন। সে জন্যই এই ভ্যাকসিন দেয়ার জন্য চিকিৎসক, নার্স বা ডাক্তারের প্রয়োজন। এর পাশাপাশি সেই ভ্যাকসিন সংরক্ষণের জন্য কোল্ড চেন পরিকাঠামো দরকার।’

এ ছাড়াও ভ্যাকসিন দেয়া নিয়ে আরও কয়েকটি বিষয়ের উপর আলোকপাত করেছেন তিনি। বলেছেন, ‘এই ভ্যাকসিনেশন প্রক্রিয়ায় এক ব্যক্তিকে ১ মাসের ব্যবধানে ২ বার ভ্যাকসিন দিতে হবে। যা নিয়ে জটিলতা তৈরির অবকাশ রয়েছে।’ ডিজিটাল ব্যবস্থার মাধ্যমেই এই কাজ সুষ্ঠ ভাবে করা যাবে বলে মনে করেন তিনি। সূত্র : ডেকান হেরাল্ড।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: করোনাভাইরাস


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ