Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ৩০ বৈশাখ ১৪২৮, ৩০ রমজান ১৪৪২ হিজরী

কাবুলে শিক্ষাকেন্দ্রের সামনে আইএস হামলা, ২৪ শিক্ষার্থী নিহত

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ৮:৪৬ এএম | আপডেট : ৩:১২ পিএম, ২৫ অক্টোবর, ২০২০

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের শিক্ষাকেন্দ্রের সামনে শনিবার ভয়ানক এক আত্মঘাতী হামলায় কমপক্ষে ২৪ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও অন্তত ৫৭ জন। হতাহতরা অধিকাংশই শিক্ষার্থী বলে জানা গিয়েছে। যে শিক্ষাকেন্দ্রের সামনে হামলা হয়েছে, সেখানে উচ্চশিক্ষার বিভিন্ন কোর্সের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

হামলার বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র তারেক আরিয়ান জানান, ‘সুইসাইড বোম্বার শিক্ষাকেন্দ্রের ভিতরে ঢুকতে চেয়েছিল। কিন্তু, সেন্টারের রক্ষীদের সন্দেহ হওয়ায় আটকে দেয়। তার পরেই বিস্ফোরণ ঘটায় ওই আত্মঘাতী বোমারু। শনিবার রাত পর্যন্ত সরকারি ভাবে ১৮ জন নিহত, ৫৭ জন আহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। রোববার সকালে আরও ৬ জনের মৃত্যুর খবর জানানো হয়।

আফগানিস্তানে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ বন্ধ করতে কাতারে তালিবানদের সঙ্গে নিয়মিত শান্তি আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে সরকার। তার মধ্যেই এদিন রাজধানীতে এই হামলার ঘটনা। তালিবানরা এদিনের সহিংসতার দায় নিতে অস্বীকার করে। তবে, শনিবার রাতে বিবৃতি দিয়ে হামলার দায় নেয় ইসলামিক স্টেট গ্রুপ। সোশ্যাল মিডিয়ায় চ্যানেলে এক বিবৃতি আইএস জানায়, কাবুলে লোকের ভিড়ের মধ্যে গিয়ে বিস্ফোরক জ্যাকেট থেকে বিস্ফোরণ ঘটায় আত্মঘাতী বোম্বার। আলি রেজা নামে এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, বিস্ফোরণের পর চারপাশ ঘন ধোঁয়া-ধুলোয় ঢেকে যায়। তার দাবি, বিস্ফোরণে হতাহতরা সকলেই শিক্ষার্থী। তারা শিক্ষাকেন্দ্রে ঢোকার সময় এই বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। তিনি নিজেও বিস্ফোরণস্থল থেকে ১০০ মিটার দূরে ছিলেন। বিস্ফোরণের অভিঘাতে তিনিও পড়ে গিয়েছিলেন।

বিস্ফোরণে হতাহতরা সকলেই শিয়া হাজারা সম্প্রদায়ের। আইএসের সুন্নি উগ্রপন্থরী প্রায়ই শিয়াদের টার্গেট করে। অতীতেও একাধিক বার শিক্ষাকেন্দ্রগুলিকে নিশানা করেছে জঙ্গিরা। গত মে মাসে পশ্চিম কাবুলের এক হাসপাতালে ঢুকে হামলা চালিয়েছিল সশস্ত্র জঙ্গিরা। যার জেরে একাধিক প্রাণহানি হয়। নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে শেষ পর্যন্ত মারা পড়ে ওই বন্দুকবাজেরা।

শনিবার এই বিস্ফোরণের কয়েক ঘণ্টা আগেই রাজধানীর পূর্বে আর এক হামলায় ৯ নিরীহ নাগরিক নিহত হয়েছেন। একটি যাত্রিবাহী বাস লক্ষ্য করে হামলা চালানো হয়। তালিবানরা এই হামলা চালিয়েছে বলে দাবি করা হয়। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল সূত্রে খবর, চলতি সপ্তাহে আফগানিস্তানে কমপক্ষে ৫০ জন প্রাণ হারিয়েছেন। তালিবানদের পাশাপাশি আফগানিস্তান সরকারকেও দায়ী করে এই মানবাধিকার সংস্থা। আফগানিস্তানের শীর্ষ মার্কিন কূটনীতিক বলেন, সংঘর্ষ অব্যাবত থাকায় শান্তিচুক্তির প্রক্রিয়া ব্যাহত হচ্ছে। সূত্র: টিওআই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আফগানিস্তান


আরও
আরও পড়ুন