Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৬ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

মহানবী (স.) কে অবমাননা: কুয়েতে ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের ডাক

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ১০:০৭ এএম

ফ্রান্সে শেষ নবী হযরত মোহাম্মদকে (সা.) অবমাননার প্রতিবাদে ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের ডাক দিয়েছে কুয়েতের অধিবাসীরা। খবর ডেইলি সাবাহ’র।
খবরে বলা হয়, ফ্রান্সের পণ্য বয়কটের ডাক দিয়ে হ্যাশ ট্যাগ (#বয়কট ফ্রেঞ্চ প্রডাক্টস) ব্যবহার করছেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীরা। তাদের এ আন্দোলনে ব্যাপক সাড়া মিলেছে বিশ্বব্যাপী।
ইতোমধ্যে কুয়েতের বিভিন্ন মার্কেট থেকে ফ্রান্সের পণ্য সরিয়ে নেয়া হচ্ছে। এর নানা ছবি ও ভিডিও ছড়িয়ে পড়ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। অনেকেই হ্যাশ ট্যাগের সঙ্গে জুড়ে দিচ্ছেন এসব ছবি ও ভিডিও।
খবরে আরও বলা হয়, আন্দোলনকারীরা ফেসবুক পোস্টে ফ্রান্সের বিভিন্ন কোম্পানির একটি তালিকাও প্রকাশ করছেন। যেখানে ফ্রান্সের মালিকানাধীনা কোম্পানিগুলোর লোগো ও নাম ব্যবহার করা হয়েছে।
গত ১৬ অক্টোবর ফ্রান্সের প্যারিসের শহরতলী এলাকায় এক স্কুলশিক্ষককে গলা কেটে হত্যা করা হয়। পুলিশের উদ্ধৃতি দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে, হামলাকারীর বয়স ১৮ বছর। তিনি চেচেন জাতিগোষ্ঠীর এবং জন্ম রাশিয়ার মস্কোতে। নিহত ওই শিক্ষক রাষ্ট্রবিজ্ঞান পড়াতেন।
‘মতপ্রকাশের স্বাধীনতা’ ক্লাসে তিনি শিক্ষার্থীদের মহানবী মুহাম্মদ (সা.)-এর কার্টুন দেখিয়ে ছিলেন। তারপর তাকে হত্যা করা হয়। এ ঘটনার পর ফ্রান্সের পুলিশ দেশটির অন্তত ৫০টি মসজিদ ও মুসলিম-অধ্যুষিত এলাকায় ভয়াবহ অভিযান চালায়।
এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠলেও এর পক্ষে শক্ত অবস্থান নিয়েছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। তিনি জানিয়েছেন, হযরত মুহাম্মদের (সা.) বিতর্কিত কার্টুন ছাপানো নিয়ে নিন্দা জানাবেন না। একই সঙ্গে বিচ্ছিন্নতাবাদী ও এসব হামলার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার ঘোষণা দেন তিনি।
মোহাম্মদ (সা.)-এর কার্টুন বন্ধে ব্যবস্থা না নেয়া এবং শার্লি এবদোর পক্ষে অবস্থান নেয়ার পর মুসলিম বিশ্বে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। ক্ষোভে ফেটে পড়ছে মুসলিম দেশগুলো। তারই বহিঃপ্রকাশ হিসেবে ফ্রান্সের সব ধরনের পণ্য বয়কটের ডাক দিয়েছে কুয়েত। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারী বিশেষ করে টুইটার ও ফেসবুকে ফ্রান্সের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।



 

Show all comments
  • Mohammed Mostafa Kamal ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ১০:৩২ এএম says : 0
    All Muslims World should boycott France. The not only hurt our soul, they have denied the the superiority of Allah. Because Allah the Almighty choose Prophet Hazrat Mohammed (sm) as his Messenger for the World peace and huminity.
    Total Reply(0) Reply
  • habib ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ১১:২৩ এএম says : 0
    OIC members should be taking punitive action against French asap...
    Total Reply(0) Reply
  • saiful ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ১২:৩০ পিএম says : 0
    আমিও সমর্থন করছি এবং তাদের সকল পন্য ত্যাগ করার প্রতিজ্ঞা করছি, আল্লাহ্‌ আমাকে অমৃতু এই প্রতিজ্ঞ্যা থাকার তৌফিক দিন এবং আমি তাঁর আশ্রয় নিচ্চি এই প্রতিজ্ঞা যেন শয়তানের ধোকায় ভুলে না যাই।
    Total Reply(0) Reply
  • Md Alamin hossain ২৫ অক্টোবর, ২০২০, ১১:৫২ পিএম says : 0
    আমিও সমর্থন করছি এবং তাদের সকল পণ্য ত্যাগ করার প্রতিজ্ঞা করছি
    Total Reply(0) Reply
  • মাসুদ আল মাহমুদ ২৬ অক্টোবর, ২০২০, ৭:২৮ এএম says : 0
    আমি নবী করিম (স.ঃ) কে অপমান করার জন্য তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি আর ফ্রান্সের সকল পণ্য করার জন্যে الله র, নিকট সাহায্য চাচ্ছি। الله আমাদের সবাইকে তার দিনের জন্য কবুল করেন...... আমিন
    Total Reply(0) Reply
  • Mahmudul hasan ২৬ অক্টোবর, ২০২০, ৭:৩১ এএম says : 0
    আমি নবী করিম (স.ঃ) কে অপমান করার জন্য তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি আর ফ্রান্সের সকল পণ্য করার জন্যে الله র, নিকট সাহায্য চাচ্ছি। الله আমাদের সবাইকে তার দিনের জন্য কবুল করেন...... আমিন
    Total Reply(0) Reply
  • গালীব পাশা ২৬ অক্টোবর, ২০২০, ৮:৪৩ এএম says : 0
    শুধু প্রতিবাদ নয় প্রতিরোধও করতে হবে।নবীর অপমান মেনে নেওয়া যাবেনে।ক্র পাগল হয়েছে একে থামাতে হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Sarwoar Hossain ২৬ অক্টোবর, ২০২০, ৯:৪৫ এএম says : 0
    আমিও ফ্রান্সের পন্য ত্যাগ করলাম,আপনি করেচগেন তো
    Total Reply(0) Reply
  • আব্দুর রহিম শেখ ২৭ অক্টোবর, ২০২০, ৩:২২ পিএম says : 0
    আমি ও একমত
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: কুয়েত


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ