Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১২ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ইত্যাদি এবার রাজশাহীর সারদায় বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমীতে: প্রচার হবে ২৯ অক্টোবর

বিনোদন রিপোর্ট: | প্রকাশের সময় : ২৭ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০১ এএম

আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সভ্যতা, সংস্কৃতি, প্রাচীন প্রত্মতাত্তি¡ক নিদর্শন, মুক্তিযুদ্ধের গৌরবময় স্থান, আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র এবং সৌন্দর্যের টানে বিভিন্ন স্থানে গিয়ে ইত্যাদি ধারণের ধারাবাহিকতায় এবারের পর্ব ধারণ করা হয়েছে পদ্মাপলি বিধৌত, বরেন্দ্রভূমি ও ইতিহাস খ্যাত, পরিচ্ছন্ন নগরী রাজশাহীর সারদায় অবস্থিত ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমীতে। গত ১৪ অক্টোবর প্রাচীন নিদর্শন সমৃদ্ধ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যমন্ডিত বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমীর অভ্যন্তরে গ্রীক-রোমান স্থাপত্য শৈলীতে নির্মিত ২৫০ বছরের প্রাচীন নিদর্শন ছোটকুঠির সামনে ধারণ করা হয় এবারের ইত্যাদি। একসময় এই ছোটকুঠি ব্রিটিশ লর্ড থেকে শুরু করে বিভিন্ন সময়ের শাসকদের খন্ডকালীন অস্থায়ী নিবাস হিসেবে ব্যবহৃত হতো। দায়িত্বের মাহাত্ম্যকে মহিমান্বিত করতে সেবার প্রথম পাঠ পুলিশ এই অপরূপ সৌন্দর্যে ঘেরা, উপমহাদেশের সেরা বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমীতেই শিখে। সাধারণত ইত্যাদি যেসব স্থানে ধারণ করা হয় ইত্যাদি দেখার জন্য উপচে পড়া দর্শকদের কারণে আমন্ত্রিত দর্শক ছাড়াও এর আশেপাশে হাজার হাজার মানুষ ভীড় করতো এবং কোথাও কোথাও লক্ষাধিক দর্শকও উপস্থিত ছিলো। তবে এবার ছিলো ব্যতিক্রম। বর্তমানের বৈশি^ক দুর্যোগ করোনার কারণে দূরত্বকে গুরুত্ব দিয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত সংখ্যক দর্শক নিয়ে সুশৃঙ্খলভাবে ধারণ করা হয় এবারের ইত্যাদি। শিল্পী, কলাকুশলী ও আমন্ত্রিত দর্শকসহ সবার স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা বিবেচনায় রেখে পুরো অনুষ্ঠানস্থল জীবাণুমুক্ত করা হয়। অত্যাবশ্যকীয়ভাবে নিশ্চিত করা হয় সকল দর্শকের মাস্ক ব্যবহার। ছোট কুঠির সঙ্গে সাদৃশ্য রেখে নির্মাণ করা আলোকিত মঞ্চের সামনে আমন্ত্রিত দর্শকরা একে অপরের মধ্যে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে মন্ত্রমুগ্ধের মত উপভোগ করেছেন ইত্যাদির নান্দনিক সব পর্ব। ইত্যাদির এই ধারণ অনুষ্ঠান চলে সন্ধ্যা ৬ টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত। শেকড়ের সন্ধানে ইত্যাদিতে সবসময়ই দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে প্রচার বিমুখ, জনকল্যাণে নিয়োজিত মানুষদের খুঁজে এনে তুলে ধরা হয়। পাশাপাশি গত প্রায় তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে ইত্যাদি প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়ে অচেনা-অজানা বিষয় ও তথ্যভিত্তিক শিক্ষামূলক প্রতিবেদন প্রচার করে আসছে। সেই ধারাবাহিকতায় এবারের ইত্যাদিতে রাজশাহী ও বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমীর ইতিহাস, ঐতিহ্য, পর্যটকদের জন্য আকর্ষণীয় স্থানগুলোর উপর রয়েছে দু’টি তথ্যভিত্তিক প্রতিবেদন। রয়েছে রাজশাহীর সীমান্ত ঘেঁষা বাংলাদেশের ছোট্ট গ্রাম চর খিদিরপুরের ভাঙ্গন কবলিত মানুষের দুঃখ-দুর্দশা নিয়ে একটি মানবিক প্রতিবেদন। প্রকৃতিগতভাবেই জীবাণু ধ্বংসের অন্যতম উদাহরণ হওয়া সত্তে¡ও গত দুই যুগে বাংলাদেশ থেকে বিলুপ্তির পথে থাকা শকুন এবং এর সংরক্ষণে কাজ করা একদল স্বেচ্ছাসেবকের উপর রয়েছে একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদন। মানুষের পারাপারের দুর্ভোগ লাঘবের জন্য বগুড়ার জাহিদুল ইসলামের স্বেচ্ছাশ্রমে সেতু নির্মাণের উপর রয়েছে একটি উদ্বুদ্ধকরণ প্রতিবেদন। আশ্রয়হীন শিশু ও বৃদ্ধ-বৃদ্ধাদের আশ্রয় দিতে গিয়ে নিজেরাই আশ্রয়হীন হয়ে পরা মহৎ দম্পতি ডা. শামসুদ্দিন ও মেহেরুন্নেসা’র প্রতিষ্ঠিত রাজশাহী বাঘা উপজেলায় অবস্থিত একটি শিশু সদনের উপর রয়েছে অনুকরণীয় প্রতিবেদন। ইত্যাদিতেই প্রথম শুরু হয় বিদেশি প্রতিবেদন শিরোনামে বিশ্বের বিস্ময়কর বিষয় ও স্থানের উপর প্রতিবেদন। তারই ধারাবাহিকতায় এবারের পর্বে রয়েছে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর পর্বতময়, দ্বীপময় প্রত্মতাত্তি¡ক দেশ গ্রীসের রাজধানী এথেন্স এবং গ্রীসের ইভজোন্স নামক সেনাদলের একটি সচিত্র প্রতিবেদন। রাজশাহী ও বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমীকে নিয়ে রচিত একটি গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেছেন বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমীরই প্রশিক্ষণরত দেড় শতাধিক পুলিশ সদস্য। গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন কমল, রিয়াদ ও তানজিনা রুমা, নৃত্য পরিচালনা করেছেন মনিরুল ইসলাম মুকুল। গানের কথা লিখেছেন গীতিকবি মনিরুজ্জামান পলাশ, সুর করেছেন হানিফ সংকেত, সঙ্গীতায়োজন করেছেন মেহেদী। দর্শকপর্বের নিয়ম অনুযায়ী, ধারণস্থান রাজশাহী ও বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমীকে ঘিরে করা প্রশ্নোত্তরের মাধ্যমে উপস্থিত দর্শকের মাঝখান থেকে ৪ জন দর্শক নির্বাচন করা হয়। ২য় পর্বে নির্বাচিত দর্শকরা দুটি খন্ড নাট্যাংশে অভিনয় করেন। নিয়মিত পর্বসহ এবারও রয়েছে বিভিন্ন সমসাময়িক ঘটনা নিয়ে বেশ কিছু সরস অথচ তীক্ষ্ন নাট্যাংশ। প্রযুক্তির যুক্তিহীন ব্যবহার ও এর কুফল, স্বভাবে মানসিক চাপের প্রভাব, টকশোর টকার নিয়ে টনক নড়া, আনফেয়ার দেয়া-নেয়ার ব্যাপারেও এখন এক্সট্রা কেয়ার, সংস্কৃতির বিকৃতি ও একজন সচেতন ডিরেক্টর, কমিটি নিয়ে কোলাহলসহ বিভিন্ন বিষয়ের উপর রয়েছে বেশ কয়েকটি নাট্যাংশ। বরাবরের মত এবারও ইত্যাদির শিল্প নির্দেশনা ও মঞ্চ পরিকল্পনায় ছিলেন ইত্যাদির নিয়মিত শিল্প নির্দেশক মুকিমুল আনোয়ার মুকিম। পরিচালকের সহকারী হিসাবে ছিলেন যথারীতি রানা ও মামুন। গণমানুষের প্রিয় অনুষ্ঠান ইত্যাদির এই পর্বটি একযোগে বিটিভি ও বিটিভি ওয়ার্ল্ডে প্রচারিত হবে। উল্লেখ্য অনুষ্ঠানটি ৩০ অক্টোবর, শুক্রবার প্রচারিত হবার কথা থাকলেও ঐদিন পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) পালিত হবার কারণে অনুষ্ঠানটি ২৯ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার-রাত ৮ টার বাংলা সংবাদের পর প্রচারিত হবে। অনুষ্ঠানটি পুনঃপ্রচার করা হবে আগামী ১ নভেম্বর, রবিবার রাত ১০ টার ইংরেজি সংবাদের পর। ইত্যাদির রচনা, পরিচালনা ও উপস্থাপনা করেছেন হানিফ সংকেত। নির্মাণ করেছে ফাগুন অডিও ভিশন। ইত্যাদি স্পন্সর করেছে যথারীতি কেয়া কসমেটিকস লিমিটেড।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ