Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

পাকিস্তানে চীনা অর্থপুষ্ট বিশাল মেট্রো ট্রেন উদ্বোধন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৬ অক্টোবর, ২০২০, ১১:৫৩ পিএম

পাকিস্তানে গত রোববার দেশটির প্রথম ‘বিশাল বিদ্যুতচালিত ট্রানজিট প্রকল্প’ অরেঞ্জ লাইন মেট্রো ট্রেনের উদ্বোধন করা হয়েছে। ক্ষমতাসীন পিটিআই ও বিরোধী দল উভয়েই এ প্রকল্পের কৃতিত্ব দাবি করছে।
পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী সরদার উসমান বাজদার, চীনা কনসাল জেনারেল লং ডিংবিন এবং পরিবহনমন্ত্রী জাহানজেব খান খেচি যৌথভাবে একটি বোতাম চেপে প্রকল্পটির উদ্বোধন করেছেন। পাঞ্জাব গণপরিবহণ কর্তৃপক্ষ (পিএমটিএ) গত সোমবার থেকে ট্রেন পরিষেবা তথা বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করেছে।
একই রকম একটি অনুষ্ঠান বেইজিংয়ে একই সাথে অনুষ্ঠিত হয়, যেখানে জাতীয় উন্নয়ন সংস্কার কমিশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা, সিআর-নোরেনকো এবং সংশ্লিষ্ট চীনা কর্মকর্তারা একটি বোতাম চেপে প্রকল্পটির উদ্বোধন করেন। এটি একটি ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে লাহোরে দর্শকদের দেখানো হয়।
জনাব বাজদান এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বলেন, ‘সিপিসি-র অধীনে নাগরিকদের আন্তর্জাতিক মানের পরিবহন সুবিধা প্রদানের জন্য অরেঞ্জ লাইন মেট্রো ট্রেন উদ্বোধন করা হয়। এ প্রকল্পটি কেবল শহুরে বিকাশই নয়, জিডিপি বাড়ানোর ক্ষেত্রেও একটি কারণ হয়ে উঠবে বলে আশা করা যায়’।
তিনি বলেন যে, পিটিআই সরকার পূর্ববর্তী সরকারগুলোর প্রকল্পগুলো সফলভাবে সম্পন্ন করেছে এবং একটি নতুন রাজনৈতিক ঐতিহ্য প্রতিষ্ঠা করেছে এবং কোনও প্রকল্পকে রাজনৈতিক মতবিরোধের শিকার হতে দেয়নি।
পাকিস্তানে এটি যেহেতু এটিই প্রথম প্রকল্প, তাই বিভিন্ন স্তরের লোকেরা উদ্বোধনের জন্য উদ্বিগ্ন হয়ে অপেক্ষা করেছিলেন।
আশপাশের এলাকার বাসিন্দা আনোয়ার স্টামস ক্রসিংয়ের একটি সফট ড্রিঙ্কের দোকানে ডনকে বলেছিলেন, ‘প্রকল্পটি শেষ হয়ে গেছে এবং সোমবার থেকে এটি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হচ্ছে শুনে তিনি খুশি হয়েছেন। বিশৃঙ্খলার সময় আমি প্রতিদিন আমার মোটরবাইক চালাতে গিয়ে হোঁচট খেতাম বলে আমি স্পষ্টতই এ আধুনিক সুবিধাটি গ্রহণ করবো’।
‘আমি মনে করি প্রচুর লোক ট্রেনে ভ্রমণ করবে, কারণ এটি অনেক আবাসিক এবং ব্যবসায়িক অঞ্চলকে সংযুক্ত করে’, -তিনি বলছিলেন।
প্রকল্পটি বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ এবং সিপিসির অধীনে প্রথম বৃহৎ আকারের প্রযুক্তিগতভাবে উন্নত রেল ট্রানজিট প্রকল্প। প্রকল্পটি চীন স্টেট রেলওয়ে গ্রæপ কোম্পানি লিমিটেড এবং চায়না উত্তর শিল্প সংস্থা লিমিটেড (সিআর-নোরেনকো) যৌথভাবে দুটি ভ‚গর্ভস্থ স্টেশন (একটি আনারকলিতে আর একটি জিপিওতে)সহ মোট ২৭.১ কিমি এবং ২৬টি স্টেশন ট্র্যাক দৈর্ঘ্যরে মাধ্যমে চালু করেছে।
একটি ডিপো রাস্তার উত্তর প্রান্তে ডেরা গুজরানে এবং অন্যটি আলী টাউন রুটের দক্ষিণ প্রান্তে অবস্থিত। একমুখী ভাড়া ৪০ টাকা এবং চ‚ড়ান্ত ভ্রমণের সময় ৪৫ মিনিট হবে।
দৈনিক প্রায় ২ লাখ ৪৫ হাজার যাত্রী এ সুবিধাটি ব্যবহার করবে বলে সরকার প্রত্যাশা করে।
অতীতে, নাগরিক সমাজ শালিমার উদ্যানসহ বেশ কয়েকটি ঐতিহ্যবাহী স্থানের জন্য প্রকল্পটিকে ক্ষতিকারক বলে উল্লেখ করে বেশ কয়েকটি বিক্ষোভ মিছিল করেছে। পথ তৈরিতে ৬০০ টিরও বেশি গাছ কেটে যেতে হয়েছিল।
অনুষ্ঠানে সিএম বাজদার বলেন যে, পিটিআই সরকার পূর্ববর্তী সরকারগুলোর বিধ্বস্ত ও বিলম্বিত প্রকল্পগুলোও সমাপ্ত করার জন্য কাজ করছে।
এছাড়াও, অরেঞ্জ লাইন ট্রেন পরিষেবাটি সফলভাবে পরিচালনার জন্য পরিচালন ও রক্ষণাবেক্ষণের কাজের জন্য স্বচ্ছতা নিশ্চিত করা হয়েছে।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে, চীনা কনসাল জেনারেল লং ডিংবিন বলেন যে, প্রকল্পটি শেষ করতে পাঞ্জাব সরকার পুরোপুরি সহায়তা দিয়েছে যা কর্তৃপক্ষকে ট্রেন পরিষেবার বাণিজ্যিক প্রক্রিয়া শুরু করতে সক্ষম করেছে।
প্রকল্পটিকে পাক-চীন বন্ধুত্বের মাইলফলক হিসাবে বর্ণনা করে তিনি বলেন, ‘আমি এ উপলক্ষে পাঞ্জাব সরকার এবং জনগণকে অভিনন্দন জানাচ্ছি’।
‘এটি দেশের প্রথম অত্যাধুনিক রেল প্রকল্প যা সফলভাবে চালু হয়েছে। এ প্রকল্পটি পাক-চীন বন্ধুত্বকে এক নতুন মাত্রা দিয়েছে, কারণ সিপিসি প্রকল্পটি পাকিস্তান ও চীনের মধ্যকার অংশীদারিত্বের সেরা উদাহরণ।
অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক যোগাযোগ বিষয়ক সহকারী ডা. শাহবাজ গিল ট্রেন পরিষেবাটিকে ব্যর্থ প্রকল্প হিসাবে অভিহিত করেছেন।
অপারগ পিএমএল-এন প্রকল্পটি উদ্বোধন করছে, কারণ এটিতে তারা অর্থায়ন করেছে। ট্রেনটি চালাতে সরকারকে বার্ষিক ১২ বিলিয়ন টাকা ভর্তুকি দিতে হবে। একটি টিকিটের অপারেটিং ব্যয় হবে ২৭৪ টাকা এবং ভাড়া হবে ৪০ রুপি। তিনি টুইট বার্তায় বলেছেন, প্রতি টিকিটে সরকারকে ভর্তুকি দিতে হবে ২৩৪ রুপি। তিনি আরো বলেন, উদ্বোধনের দিনটিকে পাঞ্জাব সরকারের উচিত ‘শোক দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করা। সূত্র : ডন অনলাইন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তান

২৯ নভেম্বর, ২০২০

আরও
আরও পড়ুন