Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

৩২ বছরেও আলোর মুখ দেখেনি

সান্তাহারের পোঁওতা রেলগেট-বড় মসজিদ সড়ক

মো. মনসুর আলী, আদমদীঘি (বগুড়া) থেকে | প্রকাশের সময় : ২৮ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০১ এএম

সান্তাহার পৌরসভার বয়স প্রায় ৩২ বছর। এ পৌরসভা বিশাল এলাকা নিয়ে গঠিত। দুই নম্বর ওয়ার্ডের জনগরুত্বপূর্ণ পোঁওতা রেলগেট থেকে ওই মহল্লার বড় মসজিদ পর্যন্ত রাস্তার সংস্কার বা পাকাকরণের কাজ হয়নি ৩২ বছরেও। ফলে এ রাস্তা দিয়ে ছোট-বড় যানবাহনতো দূরের কথা সাধারণ মানুষকেও চলাচল করতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। একটু বৃষ্টি হলেই এ সড়ক দিয়ে চলাচলকারী মানুষের দুর্ভোগ বেড়ে যায়। তবে নির্বাচন এলেই মেয়র ও কাউন্সিলার প্রার্থীদের প্রতিশ্রুতি আর ওয়াদার কমতি থাকেনা।
এলাকাবাসীদের অভিযোগ নির্বাচনে জয়লাভ করার পর এলাকার রাস্তাঘাটের কাজ করারতো দূরের কথা ৫ বছরে এলাকার মানুষের সাথে একবার দেখাও করেনা প্রতিশ্রুতি দেয়া নির্বাচিত মেয়র ও কাউন্সিলররা। সান্তাহার পৌর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান মেয়র তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু পরপর দুইবার মেয়র নির্বাচিত হয়ে একটানা ১০ বছর সময় পর করেছেন। এ পৌর এলাকার অন্য ৮টি ওয়ার্ডে ছোট-খাট দু-একটি কাজ করলেও দুই নম্বর ওয়ার্ডে তেমন কোন কাজ করেনি বলে এলাকাবাসী জানান। তাছাড়া বিএনপির মেয়র হওয়ায় শহরেও উল্লেখযোগ্য বড় কোন উন্নয়নমূলক কাজ করেনি বলে অনেকেই জানিয়েছেন। দুই নং ওয়ার্ডের ভুক্তভুগিরা এলাকার রাস্তাঘাটের সমস্যা নিয়ে বর্তমান মেয়রের সাথে আলোচনা করলে তিনি এবার আপনাদের কাজ করা হবে বলে জানান। এভাবে এক এক করে প্রায় ১০টি বছর পর হয়েছে কিন্ত তার যেন এবার আর শেষ হচ্ছেনা। পৌরসভাটি ৩য় শ্রেণি থেকে এখন প্রথম শ্রেণির। তারপরও পৌরবাসী নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
সান্তাহার কারিগরি কলেজের প্রভাষক সুমন বলেন, পৌরসভা স্থপিত হওয়ার পর এ রাস্তার অর্ধেকে সমান্য পরিমান ইটের সোলিং করা হয়। এরপর প্রায় তিন যুগ পার হতে চলেছে এ রাস্তা পাকাকরণতো দূরের কথা সংস্কার কাজ পর্যন্ত হয়নি। ভাঙ্গাচুরা রাস্তার কারণে যানবাহন চলাচল করেনা। যানবাহন ছাড়া বয়স্কো মানুষরা চলতে পারেন না, রাস্তার বেহাল দশার কারণে রোগি নিয়ে বিপাকে পরতে হয়। এ ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলার আতাউর রহমান আতা বলেন, আমি যখন কাউন্সিলার তখন পৌরসভা ছিল তৃতীয় শ্রেণির, বরাদ্দ কমছিল তারপরও এলাকার অনেক রাস্তার করা হয়েছে। এ রাস্তার কাজ করা সম্ভব হয়নি। এখন প্রথম শ্রেনীর পৌরসভা এখন কাজ করা উচিত। এছাড়াও এ ওয়ার্ডের সান্তাহার-বগুড়া সড়ক থেকে শহর বাইপাস সড়ক পর্যন্ত বেহাল দশা, সান্তাহার-তিলকপুর ভায়া জয়পুরহাট সড়কের হেমায়েত খালি থেকে পোঁওতা রেললাইন পর্যন্ত রাস্তাগুলোরও একই অবস্থা। এ ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলার মমতাজ আলী বলেন, এ ওয়ার্ড অন্যান্যে রাস্তার কাজ করা হয়েছে। সেই সাথে এই রাস্তার কাজের প্রস্তাব পাঠানো আছে বরাদ্দ হয়ে গেলে কাজ করা হবে।
এ বিষয়ে সান্তাহার পৌর মেয়র আলহাজ তোফাজ্জল হোসেন ভুট্টু বলেন, এখন বছরের শেষ সময়। তারপর ২/১ মাস পর নির্বাচন। আর কাজ করার সুযোগ নেই। তবে আশা করি এবার নির্বাচিত হলে এ সড়ক কাজ করা হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: রেলগেট
আরও পড়ুন