Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২১, ০৯ মাঘ ১৪২৭, ০৯ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

কোটালীপাড়ায় নারী নির্যাতন মামলা ধামাচাপা দিতে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রতিবেদন দাখিলের অভিযোগ

কোটালীপাড়া ( গোপালগঞ্জ) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৮ অক্টোবর, ২০২০, ৩:৩৬ পিএম

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় নারী নির্যাতন মামলা ধামাচাপা দিতে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে মিথ্যা প্রতিবেদন দাখিলের অভিযোগ করেছেন মামলার বাদি ও সাক্ষীগণ।

আজ বুধবার মামলার বাদি লাকি বেগম সাংবাদিকদের কাছে এ অভিযোগ করেন।


মামলার বাদি লাকি বেগম ও সাক্ষী আঃ ছালাম মোল্লা,ছেহারন বেগম,ওমর শেখ,আঃ হাই শেখ,হামিদা বেগম ও,করুনা বেগম বলেন -উপজেলার ছোট দিঘলিয়া গ্রামের ছালাম মোল্লার মেয়ে লাকির সাথে একই গ্রামের ছিদ্দিক বখতিয়ারের ছেলে মামুন বখতিয়ার অনৈতিক সম্পর্ক স্হাপন করে গত ২০১৯ সালের ১ লা মার্চ ইসলামী শরিয়ত অনুযায়ী বিবাহ করেন। বিবাহের পর থেকে মামুন বখতিয়ার যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী লাকি বেগমের উপর অমানবিক শারিরীক নির্যাতন শুরু করেন। তার নির্যাতনের শিকার হয়ে লাকি বেগম কয়েকবার হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। স্হানীয় মাদবররা বিভিন্ন সময় বিষয়টি মিমাংসা করে দিলে ও মামুন বখতিয়ার,মা নসিমা বেগম,ভাই সামাদ বখতিয়ারসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা লাকি বেগমকে মারপিট করা থেকে বিরত হননি।


তাদের নির্যাতনের যন্ত্রণা সইতে না পেরে গত জুলাই মাসে লাকি বাদি হয়ে গোপালগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে স্বামি মামুন বখতিয়ারসহ পাঁচজনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করে। মামলা নং ১১৩/২০ ইং বিজ্ঞ বিচারক লাকির মামলাটি আমলে নিয়ে রাধাগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে ঘটনার সত্যতা যাচাই করে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ দেন। চেয়ারম্যান অমৃত লাল হালদারের নোটিশে মামলার সাক্ষীরা চেয়ারম্যানের কার্যালয় হাজির হয়ে লাকিকে নির্যাতনের ঘটনার সাক্ষ্য প্রদান করলে ও চেয়ারম্যান সাক্ষীদের কথা আমলে না নিয়ে বিবাদি পক্ষের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে মিথ্যা প্রতিবেদন দাখিল করেন।

বর্তমানে মামুন ও তার পরিবারের লোকজন লাকি বেগম ও তার শিশু কন্য সন্তানকে যৌতুকের দাবিতে বেদম মারপিট করে অপর এক ব্যক্তির একটি পরিত্যক্ত ঝুপরি ঘরে রেখে যায়। সেখানে লাকি তার শিশু সন্তানকে নিয়ে মানবেতর জিবনযাপন করছেন।

এব্যপাড়ে রাধাগঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান অমৃত লাল হালদারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সম্পুর্ন মিথ্য।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: অভিযোগ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ