Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৬ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

ভোলার সন্তান বিক্রি করতে না দেওয়ায় স্ত্রীকে স্বামীর নির্যাতন, চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্ত্রীর মৃত্যু

ভোলা জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৩১ অক্টোবর, ২০২০, ৫:১৫ পিএম

ভোলার আলীনগরে ৫ মাসের কন্যা সন্তান বিক্রি করতে না দেওয়ায় স্ত্রীকে মারধর ও নির্যাতন করে পাষন্ড স্বামী নিরব। নির্যাতনের শিকার গৃহবধু বিবি মরিয়ম অজ্ঞান হয়ে পড়লে তার মুখে বিষ ঢেলে দেয় নিরব। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। শুক্রবার আলীনগর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। শনিবার দুপুরে ভোলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গৃহবধু মরিয়ম মারা যায়। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।
মরিয়মের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, দেড় বছর আগে সদরের আলীনগর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত সুলতান আহমেদের ছেলে মোঃ নিরবের সাথে ২নং ওয়ার্ডের বিবি মরিয়ম (২৫) এর বিবাহ হয়। বিয়ের পর থেকে নিরব যৌতুকের জন্য মরিয়মকে মারধর ও নির্যাতন করতো। স্বামীর নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচতে মরিয়ম প্রায় সময় বাপের বাড়ি থেকে যৌতুকের টাক এনে দিতো নিরবের হাতে। তাতেও সুখে আসেনি মরিয়মের সংসারে। স্বামী নিরব সংসারে তেমন বাজার-সদাই করতো না। না খেয়ে অনাহারে-অর্ধহারে দিন কাটতো বিবি মরিয়মের। স্বামীর এই অত্যাচার-নির্যাতনের কথা মাকে জানাতো মরিয়ম। মারধর ও নির্যাতনের বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানকে জানালে তারা নিরবকে ডেকে মিলেমিশে থাকার কথা বলে। কিছুদিন ভালোভাবে কাটলেও আবারও শুরু হয় যৌতুকের জন্য নির্যাতন। এরই মধ্যে নিরব ও মরিয়মের ঘর আলো করে একটি কন্যা সন্তানের জন্য হয়। যার বয়স বর্তমানে ৫ মাস। কন্যা সন্তান জন্ম নেওয়ার কিছুদিন পর নিরব সন্তানকে বিক্রি করার সিদ্ধান্ত নেয়। মরিয়ম তাতে রাজি না হয়ে সন্তান বিক্রিতে বাঁধা দেয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে নিরব প্রায় সময় মরিময়কে বেধড়ক মারধর করতো। এরই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার (৩০ অক্টোবর) পাষন্ড- পিতা মোঃ নিরব কন্যা সন্তানকে বিক্রি করার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়। এতে বাধা দেয় মরিয়ম। সন্তান বিক্রি করতে বাধা দেওয়ার কারণে বিবি মরিয়মকে পাষন্ড- স্বামী নিরব এলোপাথারী মারধর করে। মারধরের এক পর্যায়ে মরিয়ম অজ্ঞান হয়ে পড়ে। এসময় নিরব মরিয়মের মুখে বিষ ঢেলে দিয়ে চলে যায়। মরিয়মের আত্মচিৎকার শুনে এলাকাবাসী এগিয়ে এসে তাকে অজ্ঞান অবস্থায় দেখতে পায়। পরে তারা নিরবের মাকে মরিয়মের মুখে কি দিয়েছে জিজ্ঞাস করলে তিনি বলেন কদুর তেল দেওয়া হয়েছে, কিছুই হবে না। পরে স্থানীয় লোকজন মরিয়মকে অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। শনিবার (৩১ অক্টোবর) চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিবি মরিময় হাসপাতালে মারা যায়। খবর পেয়ে পুলিশের একটি টীম হাসপাতালে গিয়ে মরিমমের লাশ মর্গে প্রেরণ করে। এ ব্যাপারের মরিয়মের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলার প্রস্ততি চলছে বলে জানা যায়। অভিযুক্ত পাষন্ড- স্বামী মোঃ নিরবের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।
এ ব্যাপারে ভোলা সদর থানার ওসি এনায়েত হোসেন বলেন, মরিয়মের মৃত্যুর খবর শুনেছি। হাসপাতালে পুলিশের একটি টিম গিয়ে মরিয়মের লাশ মর্গে প্রেরণ করেছে। এ ব্যাপারে মামলা হলে বাকিটা তদন্ত সাপেক্ষে উদঘাটন করা হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নির্যাতন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ