Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১১ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

যে কারণে লেবার পার্টি থেকে বহিষ্কার জেরেমি করবিন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ নভেম্বর, ২০২০, ১২:০১ এএম

৫৫ বছর আগে একজন কিশোর হিসেবে ব্রিটেনের বর্তমান প্রধান বিরোধী লেবার পার্টিতে যোগ দিয়েছিলেন জেরেমি করবিন। দেশটির গত সাধারণ নির্বাচন পর্যন্ত এ দলের নেতা ছিলেন তিনি। কিন্তু বর্তমানে ইসলিংটন নর্থের এ এমপিকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে একটি অভিযোগের তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ার পর তা প্রত্যাখ্যান করে বিতর্কিত মন্তব্য করায় বহিষ্কার হয়েছেন লেবারের সাবেক এ নেতা।

ব্রিটেনের রাজনীতির পরিচিত মুখ জেরেমি করবিন ২০১৫ সালে দলটির নেতা নির্বাচিত হন। কিন্তু এর এক বছর পর দলটির কিছু সমর্থকের ইহুদিবিদ্বেষ নিয়ে দেশটির মানবাধিকার কমিশন একটি কড়া সমালোচনামূলক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এ প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য করবিনকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। দলটির কিছু নেতাকর্মী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ইহুদিবিরোধী অবস্থানের পক্ষে কার্যক্রম পরিচালনা করলেও দায়িত্বে থাকাকালীন জেরেমি করবিন প্রতিরোধমূলক কোনও ব্যবস্থা নেননি বলে তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে আসে। গত বছরের মে মাসে যুক্তরাজ্যের ইকুয়ালিটি অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস কমিশন (ইএইচআরসি) ওই তদন্ত শুরু করে।

বৃহস্পতিবার ইএইচআরসির তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, করবিন দায়িত্বে থাকাকালীন ইহুদিদের বিরুদ্ধে হয়রানি এবং বৈষম্য ঠেকাতে ব্যর্থ হয়ে সমতা আইন (ইকুয়ালিটি অ্যাক্ট) লঙ্ঘন করেছে লেবার পার্টি। জেরেমি করবিনের দায়িত্বের সময় দলটি ইহুদিবিদ্বেষ ঠেকাতে ব্যর্থ হয়েছে বলে কমিশনের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। কিন্তু লেবার পার্টি বলছে, সাবেক এ নেতাকে বহিষ্কারের জন্য এটাই যথাযথ কারণ নয়। বরং তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশের পর তিনি যে ধরনের প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন; সেজন্যই তাকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

লেবার দলীয় এই নেতা তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে বলেছেন, সেই সময়ে ওঠা ইহুদিবিদ্বেষ প্রতিরোধে তিনি ব্যবস্থা নিয়েছিলেন এবং এর বিরুদ্ধে নিন্দাও জানিয়েছিলেন। কিন্তু দলীয় আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কারণে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হয়নি বলে জানিয়েছেন তিনি। সূত্র : বিবিসি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ