Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১১ মাঘ ১৪২৭, ১১ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

রাণীনগর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচন

জনমত সৃষ্টির লক্ষ্যে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন মনোনয়ন প্রত্যাশীরা

নওগাঁ জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৩ নভেম্বর, ২০২০, ২:২৫ পিএম

নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনের উপ-নির্বাচন শেষ হতে না হতেই বাজতে শুরু করেছে রাণীনগর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনের ডামাডোল। জন সমর্থন আদায়ের লক্ষ্যে আগাম প্রচার-প্রচরনায় মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। প্রায় ডজনখানিক মনোনয়ন প্রত্যাশীরা প্রতিদিনই কোন না কোন এলাকায় গিয়ে সাধারন মানুষদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করে নিজেকে জানান দিচ্ছেন।
গত ১৭অক্টোবর নওগাঁ-৬ আসনে অনুষ্ঠিত উপ-নির্বাচনে আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন পেয়ে বিজয় লাভ করেন রাণীনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন হেলাল। ফলে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদটি শুন্য হয়। বর্তমানে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফরিদা বেগম। তফসিল ঘোষনা না হলেও ইতিমধ্যে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের পোস্টার, ব্যানারে ছেঁয়ে যাচ্ছে উপজেলার অলিগলি।
মনোনয়ন প্রত্যাশী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) ফরিদা বেগম বলেন আমি ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার থেকে আজ উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছি। জনগনের ভালোবাসায় আমি দুইবার ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছি। এছাড়াও দীর্ঘদিন যাবত উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছি। আশা রাখি দল জনমত জরিপ করে আমাকেই সমর্থন দিবে।
উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মফিজ উদ্দিন বলেন আমি ২০০৫সাল থেকে উপজেলা আওয়ামীলীগের সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছি। আমি কখনই দলের সিদ্ধান্তের বাহিরে কাজ করিনি। তাই দল যদি আমাকে সমর্থন দেয় তাহলে আমি উপ-নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবো।
উপজেলা যুবলীগের সম্পাদক সাইফুল ইসলাম সজল বলেন আমি দুইবার সদর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছি। এছাড়াও ছাত্রলীগ থেকে শুরু করে আজ উপজেলা যুবলীগে সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করছি। ক্লিন ইমেজের সজল হিসেবে পুরো উপজেলায় বিশেষ করে যুব সমাজে আমার একটি আলাদা গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। তাই দল যদি আমাকে সুযোগ দেয় তাহলে উপ-নির্বাচনে অংশ নিবো।
উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও পারইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা মজিবর রহমান বলেন আমি দুইবার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হয়ে জনগনের সেবা করার চেস্টা করেছি মাত্র। যদি দল আমাকে শেষ বয়সে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচন করার সুযোগ দেয় তাহলে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করবো।
উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য আনোয়ার হোসেন বিএ বলেন গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দল আমাকে মনোনয়ন দিয়েছিলো। আশা রাখছি এবারো দল আমাকে সমর্থন দিয়ে উপ-নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার সুযোগ করে দিবেন।
উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ও একডালা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মোসারব হোসেন বলেন আমি এই উপজেলার মানুষদের কাছে একটি পরিচিত মুখ। যদি বিএনপি উপ-নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে এবং আমাকে দলীয় সমর্থন দেয় তাহলে আমি উপ-নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবো।
এছাড়াও কালীগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম বাবলু মন্ডল, বড়গাছা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিউল আলম শফি, একডালা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম ফটিক, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা গোলাম রব্বানী, সাবেক যুবলীগ নেতা শহিদ নজরুল ইসলামের স্ত্রী শামীম আরা পারভিন, উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আল ফারুক জেমসের নাম শোনা যাচ্ছে।
রাণীনগর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জায়দা খাতুন বলেন চলতি মাসের প্রথম দিকেই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচনের তফশীল ঘোষনা করার সম্ভাবনা অনেকটাই বেশি।



 

Show all comments
  • ফারুক ৮ নভেম্বর, ২০২০, ১১:০৩ পিএম says : 0
    প্রাথীদে মোবাইল ন নাম চাই আমি গান। প্রচার রেকড়িং করি ধন্যবাদ
    Total Reply(0) Reply
  • faruk ১০ নভেম্বর, ২০২০, ১২:১৩ এএম says : 0
    আমি নিবাচনে গান রেকড়িং করি তাই প্রাথীদের মোবাইল ন নাম চাই ধন্যবাদ গান করা হয়
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: উপজেলা নির্বাচন


আরও
আরও পড়ুন