Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ০২ মাঘ ১৪২৭, ০২ জামাদিউল সানী ১৪৪২ হিজরী

খুলনায় ক্লিনিক থেকে মাদক উদ্ধার

খুলনা ব্যুরো : | প্রকাশের সময় : ১০ নভেম্বর, ২০২০, ১২:০০ এএম

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সামনে ‘হেলথ গার্ডেন’ নামের একটি ক্লিনিক থেকে এক হাজার ৬৫০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া ৫০ গ্রাম গাঁজা এবং গাঁজা-ইয়াবা সেবনের সরঞ্জামাদি ও ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। ওই ক্লিনিকের চিকিৎসক সুমন রায়ের চেম্বার থেকে সেগুলো উদ্ধার করা হয়। এসময় সেখান থেকে আসাদুজ্জামান হিরা ও অথৈ নামের দুই কর্মচারীকে আটক করা হয়েছে।
গতকাল বিকেলে যৌথভাবে ওই অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসন ও খুলনা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর। ওই হাসপাতালের অংশীদার ডা. সুমন রায়ের কক্ষটি সিলগালা করে দিয়েছে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত।
ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনায় ছিলেন খুলনা জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এসএম রাসেল ইসলাম নূর। তিনি বলেন, ডা. সুমন রায়ের কক্ষ থেকে ইয়াবা ও গাঁজা উদ্ধার করা হয়েছে। সেখানে বিদেশি মদের বোতল ও গাঁজা এবং ইয়াবা সেবনের উপকরণ পাওয়া গেছে। এ কারণে ওই কক্ষটি সিলগালা করে দেয়া হয়েছে। আটক হওয়া আসামিদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য আইনে মামলা হবে।
ডা. সুমন রায় স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের খুলনা জেলা শাখার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) খুলনা জেলা শাখার প্রচার ও জনসংযোগ সম্পাদক এবং বিএমএ কেন্দ্রীয় কাউন্সিলর।
ক্লিনিকের মালিক খন্দকার আহসান উল্লাহ বলেন, সুমন রায়ের ওই ক্লিনিকে মালিকানার কোনো অংশীদারিত্ব নেই। তাকে ক্লিনিকের কাজের অংশীদারিত্ব দেয়া হয়েছে। ওই ক্লিনিকে তার নিজস্ব চেম্বার থেকেই ইয়াবাগুলো উদ্ধার করা হয়েছে। এমন ঘটনার পর তাকে আর ক্লিনিকে রাখা হবে কী না তা নিয়ে চিন্তা করা হচ্ছে। যে দুইজনকে আটক করা হয়েছে তারা হাসপাতালের কোনো স্টাফ নয়, তারা সুমন রায়ের ব্যক্তিগত সহকারী।
সুমন রায় বলেন, তিনি দুপুরের দিকে ডুমুরিয়া উপজেলায় নিজস্ব চেম্বারে রোগী দেখতে গিয়েছিলেন। বিকেলের দিকে হঠাৎ শোনেন তার কক্ষে অভিযান চালিয়ে ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। যে দুইজন আটক হয়েছে তাদের কাছেই কক্ষের চাবি ছিল। তারাই কিছু করেছে বলে দাবি করেন তিনি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মাদক-উদ্ধার
আরও পড়ুন