Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ০২ মাঘ ১৪২৭, ০২ জামাদিউল সানী ১৪৪২ হিজরী

দুপুরে খাইয়ে রাতে বন্ধুকে হত্যা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৩ নভেম্বর, ২০২০, ১২:১৬ পিএম

বৃহস্পতিবার সাজ্জাদ কয়েকজন বন্ধুসহ তার বন্ধু রবিউল ইসলামের বাড়িতে যান। দুপুরে তারা সবাই রবিউলের বাসায় খাওয়া দাওয়া করেন। রাত সাড়ে আটটার দিকে সাজ্জাদ তার কয়েকজন বন্ধুসহ বিওসির মোড় এলাকায় দাঁড়িয়ে কথা বলছিল। এ সময় রবিউল সেখানে এসে কোনো কথা না বলেই সাজ্জাদের বুকে ছুরিকাঘাত করে।

চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলার চন্দনাইশে সাবিদুল ইসলাম সাজ্জাদ (২৪) নামে এক যুবককে বাসায় দুপুরের খাবার খাইয়ে রাতে ছুরিকাঘাতে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার এক বন্ধুর বিরুদ্ধে। ঘটনার পর সাজ্জাদের বন্ধু রবিউল ইসলাম পালিয়ে যায়। তাকে খুঁজছে পুলিশ।

গতকাল বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে আটটার দিকে উপজেলার কালিয়াইশ ইউনিয়নের বিওসি মোড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পরে আহত অবস্থায় সাজ্জাদকে দোহাজারী গ্রিন আবাসিক হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে গুরুতর অবস্থায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে, পথেই মৃত্যু হয় সাজ্জাদের।

সাজ্জাদের বাবার নাম কফিল উদ্দীন (মৃত)। তিনি চন্দনাইশের দোহাজারী পৌরসভার বোটঘাটা এলাকার বাসিন্দা ছিলেন। ঘাতক রবিউলের বাবার নাম ইসলাম মিয়া (মৃত)। তারা সাতকানিয়ার কালিয়াইশ ইউনিয়নের বাসিন্দা।


সাজ্জাদের সঙ্গে থাকা বন্ধুরা এ সময় রবিউলকে ধরে মারধর শুরু করেন। এক পর্যায়ে কৌশলে পালিয়ে যায় রবিউল। পরে সাজ্জাদকে তার বন্ধু ও স্থানীয় লোকজন দোহাজারী গ্রিন হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে কর্তব্যরত চিকিৎসক চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। সেখানে নেওয়ার পথে সাজ্জাদের মৃত্যু হয়।

দোহাজারী গ্রিন হাসপাতালের আবাসিক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ছোটন ধর জানান, সাজ্জাদকে তাদের হাসপাতলে মুমূর্ষু অবস্থায় আনা হয়। বুকে ছুরিকাঘাতে গভীর ক্ষত হয়েছিল। তার ফুসফুসে আঘাত লেগেছে। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে সাজ্জাদকে চট্টগ্রাম মেডিকেলে পাঠানো হয়। ছোটন বলেন, ‘শুনেছি সে চট্টগ্রাম পৌঁছার আগে মারা গেছে।’

সাতকানিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আনোয়ার হোসেন জানান, সাজ্জাদ এবং রবিউল বন্ধু ছিল। তাদের মধ্যে কি নিয়ে বিরোধ ছিল, তা জানা যায়নি। প্রাথমিকভাবে বিরোধের জেরেই হত্যাকাণ্ডটি হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। রবিউল পলাতক। তাকে পুলিশ খুঁজছে। এ ঘটনায় মামলা নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হত্যা


আরও
আরও পড়ুন