Inqilab Logo

শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

পুঠিয়ায় ২৫ কেজি গাঁজাসহ বাসযাত্রী আটক

পুঠিয়া (রাজশাহী) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৪ নভেম্বর, ২০২০, ৬:০৩ পিএম

রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলায় কুমিল্লা থেকে ছেড়ে আসা রাজশাহীগামী একটি যাত্রীবাহী বাসে তল্লাশি চালিয়ে ২৫ কেজি ৯’শ গ্রাম গাঁজাসহ ওই বাসের এক যাত্রী কে আটক করেছে র‌্যাব। সে গাঁজাগুলো অবৈধভাবে কুমিল্লা থেকে বাসযোগে রাজশাহীতে নিয়ে আসছিলো।

শনিবার (১৪ নভেম্বর) ভোর সাড়ে ৬ টার দিকে উপজেলার বানেশ্বর বাজারে জলিল সুপার মার্কেটের সামনে ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়কের পাশে ভাই ভাই নাইস নামক বাসে তল্লাশি চালিয়ে গাঁজা উদ্ধার করা হয় এবং বাস যাত্রী যুবককে আটক করা হয়।
আটককৃত যুবকের নাম জাহিদুল হাসান জিশান (২৪) সে কুমিল্লা জেলার বুড়িচং উপজেলার শিকারপুর এলাকার আব্দুল হান্নানের ছেলে। তার বিরুদ্ধে থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। শনিবার র‌্যাব-৫ এর পক্ষ থেকে সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে তথ্যগুলোর সত্যতা নিশ্চিত করা হয়েছে।
র‌্যাব জানিয়েছে, গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-৫ রাজশাহীর সিপিএসসি মোল্লাপাড়া ক্যাম্পের একটি অপারেশন দল বানেশ্বর বাজারস্থ জলিল সুপার মার্কেটের সামনে অভিযান পরিচালনা করে। এসময় কুমিল্লা থেকে ছেড়ে আসা রাজশাহীগামী যাত্রীবাহী বাস ভাই ভাই নাইসে তল্লাশি চালিয়ে ২৫ কেজি ৯’শ গ্রাম গাঁজাসহ জিশান নামের এক যুবককে আটক করা হয়। সে গাঁজাগুলো অবৈধভাবে কুমিল্লা থেকে বাসযোগে রাজশাহীতে নিয়ে আসে।
র‌্যাব আরো জানায়, তাকে আটক করে বাসটি ছেড়ে দেয়া হয়েছে এবং আটককৃত যুবকের বিরুদ্ধে পুঠিয়া থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করে তাকে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: গাঁজা

২২ জানুয়ারি, ২০২২
২২ জানুয়ারি, ২০২২
আমার এক নিকটাত্মীয় মদ-গাঁজা সেবন করত। স্বামী-স্ত্রী প্রায় সময়মই ঝগড়া হতো, স্বামী তার স্ত্রীর গায়ে অনেক সময় হাত তুলত। স্ত্রীও খুব বেশী একটা ছাড় দিত না। আবার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অন্য পুরুষের সাথে দীর্ঘ দিন রাতে-বিরাতে গোপন ফোনালাপের অভিযোগ ছিল। তাদের দুই ছেলে আছে। স্বামী তার স্ত্রীর নামে ব্যাংক একাউন্টে ১৫-১৮ লাখ টাকার সম্পদ রেখেছিল। স্ত্রী বাপের বাড়ি গিয়ে সেগুলো হাত করে নেয় এবং নেশাখোর স্বামীর সংসার করবেনা বলে জানায়। এ অবস্থায় কয়েকটি ব্যর্থ আলোচনা বা বৈঠক হয়। প্রায় এক বছরের বেশী সময় পর স্ত্রী ওই স্বামীকে এক উকিলের মাধ্যমে ডাকযোগে ডিভোর্সলেটার পাঠায়। স্বামী বলে সে ওই লেটার রিসিভ ও সাইন করেনি। এর প্রায় এক বছর পর তার স্ত্রী ওই গোপন ফোনালাপের অভিযুক্ত ব্যক্তিকেই বিয়ে করে। প্রশ্ন হলো স্ত্রীর এ তালাক ও পরবর্তী বিয়ে ইসলামের বিধান মতে সঠিক ভাবে হয়েছে কি না? আর না হলে এখন করনীয় কি?

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ