Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ০৪ আষাঢ় ১৪২৮, ০৬ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

সিলেটে পাওয়ার গ্রিডে অগ্নিকান্ডে আনুমানিক ক্ষতি ২০০ কোটি : বিপর্যস্ত প্রায় ৩ লক্ষাধিক গ্রাহক : ৪ সদস্যের তদন্ত কমিটি

সিলেট ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৮ নভেম্বর, ২০২০, ৩:৫১ পিএম

সিলেটের কুমারগাঁওয়ে বাংলাদেশ পাওয়ার গ্রিড ১৩২/৩৩ কেভি বিদ্যুৎ সরবরাহ উপ-কেন্দ্রের ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের কারণ নিরূপণে গঠন করা হয়েছে ৪ সদস্যের তদন্ত কমিটি। এ কমিটির আহবায়ক পল্লী বিদ্যুৎ উন্নয়ন ও বিতরণ বিভাগ- ২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী। এ কমিটি আগামী ৩দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে নির্বাহী পরিচালক (ওএন্ডএম) পিজিসিবি বরাবরে । পাওয়ার গ্রিড কোম্পানি অব বাংলাদেশের উপ-মহাব্যবস্থাপক (এইচআরএম) রূপক মোহাম্মদ নাসরুল্লাহ জায়েদী স্বাক্ষরিত এক পত্রে দেওয়া হয়েছে এ নির্দেশনা। তবে গ্রিডে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ২০০ কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছেন উপ-কেন্দ্রের সংশ্লিষ্টরা। গত মঙ্গলবার রাতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন তারা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, অগ্নিকান্ডে প্রায় ৭০ কোটি টাকার ২৫/৪১ এমবিএ দুটি ট্রান্সফরমার গেছে পুড়ে। ট্রান্সফরমারগুলোর বাইরের অংশ পুড়লেও ভেতরে কোনো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এছাড়া ৩৩ কেভি ফিডার ও বার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। অগ্নিকান্ডের ঘটনায় পুরো সিলেটে বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা হয়ে পড়েছে বিপর্যস্ত। সকাল সাড়ে ১১টা থেকে সিলেট নগরী, আশপাশের বিভিন্ন এলাকা, ছাতক ও সুনামগঞ্জ রয়েছে বিদ্যুৎহীন। ফলে দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে প্রায় সাড়ে ৪ লক্ষাধিক গ্রাহককে।

সিলেট বিদ্যুৎ উন্নয়ন ও বিতরণ বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী মোকাম্মেল হোসেন বলেন, ‘ প্রায় ৪ লাখ ৩০ হাজার গ্রাহক থাকলেও বিদ্যুৎ বিপর্যস্তে পড়েছেন প্রায় ৩ লক্ষাধিক গ্রাহক। এহেন পরিস্থিতি উত্তরণে অবিরাম কাজ করছেন লোকজন।

জেলা প্রশাসক এম কাজি এমদাদুল ইসলাম বলেন, বিদ্যুৎ সরবরাহ সচলে কাজ করছেন সংশ্লিষ্টরা। একটি টিম ঢাকা থেকেও এসেছে সিলেটে। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে সিলেট কুমারগাঁওয়ে ১৩২/৩৩ কেভি বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ঘটে। খবর পেয়ে দমকল বাহিনীর ৭টি ইউনিট একঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে নিয়ন্ত্রণে আনে আগুন। এদিকে বিদ্যুৎ ব্যবস্থার বিপর্যয়ে বিপাকে পড়েছেন মহানগর এলাকার লোকজন। বিশেষ করে বিদ্যুৎ না থাকায় পানি সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। এতে করে বিভিন্ন বাসা-বাড়ি ও হাসপাতালে রোগীরাও পড়েছেন বিপাকে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: তদন্ত কমিটি


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ