Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ২১ মে ২০১৯, ০৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৫ রমজান ১৪৪০ হিজরী।

হবিগঞ্জে ভারতীয় সিরিয়াল দেখা নিয়ে সংঘর্ষে আহত দেড় শতাধিক

প্রকাশের সময় : ১৯ আগস্ট, ২০১৬, ১২:০০ এএম

হবিগঞ্জ জেলা সংবাদদাতা : ভারতীয় টিভি চ্যানেল স্টার জলসায় সিরিয়াল ‘কিরণমালা’ দেখা নিয়ে দুই শিশুর ঝগড়াকে কেন্দ্র করে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ধল গ্রামে দু’পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ দেড় শতাধিক লোক আহত হয়েছে। পুলিশ সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনতে ১৪ রাউন্ড রাবার বুলেট ও টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে। সংঘর্ষ চলাকালে হবিগঞ্জ-লাখাই সড়কে প্রায় ৪ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বুধবার রাতে ধল সড়ক বাজারে শাকির রেস্টুরেন্টে টিভি চ্যানেল স্টার জলসায় সিরিয়াল ‘কিরণমালা’ চলছিল। এ সময় রেস্টেুরেন্টের পার্শ্ববর্তী বাড়ির সানু মিয়ার ছেলে উস্তার ও আকবরের ছেলে রিপনের ঝগড়া হয়। উপস্থিত লোকজন ঘটনাটি নিষ্পত্তি করে দেন। এ খবর পেয়ে একই গ্রামের মতলেব, সাগর আলী ও সফিক ঘটনাস্থলে এসে উত্তেজিত হয়ে বাক-বিত-ায় লিপ্ত হয়। একপর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটলে রেস্টুরেন্টের মালিক কামরুলসহ ৫ জন আহত হয়। এ সময় স্থানীয় লোকজনের হস্তক্ষেপে তাৎক্ষণিক বিষয়টি মীমাংসা হয়।
কিন্তু ওই ঘটনার জের ধরে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৬টার দিকে উভয় পক্ষের লোকজন সড়ক বাজারে অবস্থিত রেস্টুরেন্ট মালিক কামরুল ও তার ভাতিজা মোক্তার হোসেনের দোকানে হামলা,  ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়। এ সময় উভয় পক্ষের লোকজন দেশি অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। সংঘর্ষকালে বেশ কয়েকটি দোকান ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়। সংঘর্ষের কারণে হবিগঞ্জ-লাখাই সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। খবর পেয়ে হবিগঞ্জ সদর থানার ওসি ইয়াসিনুল হকের নেতৃত্বে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাঠিচার্জ ও ৯ রাউন্ড রাবার বুলেট, ৫ রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
আহতদের মধ্যে কামরুল হোসেন, মোক্তার হোসেন, কাদির মিয়া, সাবাজ মিয়া, তাহের মিয়া, আরজু, বাচ্চু, পরশ, ধলাই, উমেদ, আরাফাত, আবদুল গফুর, ইমতিয়াজ, আবদুল আজিজ, ওমর, বকুল, কালাম, শাহিদুল, নুর মিয়া, দিদার হোসেন, জামাল মিয়া, দরবেশ, জাহির, আলমগীর, আবদুল হান্নান, জুলহাস, মোবারক, হাবিব মিয়া, আব্দুর রহিম, মামুন, ইমান আলী, জবেদা খাতুন, আব্দুল মতিন, বেলাল, খুর্শেদ আলী, হারুন, মুর্শেদ, হিরণ মিয়া, আবদুল কুদ্দুছ, মাইন উদ্দিন, মিজাজ আলী, আবদুল মতলিব, রুকন আলী, সাহেব আলী, কাজল মিয়া, আবদুল আলীম, উজ্জ্বল, আবদুল খালেকসহ দেড় শতাধিক লোককে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি ও চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
রাবার বুলেট ও টেঁটাবিদ্ধ অবস্থায় আতর আলী, নানু মিয়া, গিয়াস উদ্দিন, মোশারফ, খেলু মিয়া, টেনুসহ ১০ জনকে সিলেট এমএজি ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। ফের সংঘর্ষ এড়াতে ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।




 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ