Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

কুষ্টিয়ায় তৌহিদী জনতার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে কটূক্তি

স্টাফ রিপোর্টার কুষ্টিয়া : | প্রকাশের সময় : ২২ নভেম্বর, ২০২০, ১২:০০ এএম

কুষ্টিয়ার মিরপুরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ইসলাম ধর্ম ও মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে আমিরুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি কটূক্তি করেছে। ভিডিও বক্তব্যের মাধ্যমে তিনি কট‚ক্তি করেছেন। তিনি বিভিন্নভাবে ইসলামের অবমাননা করেন। তিনি কোন হাদিস মানেননা। এমনকি বুখারী শরীফের উপর পা দিয়ে মাড়ালেও কোন পাপ হবে না বলে জানান। তিনি কালেমা তাইয়্যেবার সাথে অর্থাৎ আল্লাহর নামের সাথে মোহাম্মদযুক্ত থাকায় এ কালেমাকে তিনি শিরকযুক্ত বলে আখ্যায়িত করেছেন। যার পরিপেক্ষিতে এলাকার লোকজন তার বিরুদ্ধে ফুঁসে ওঠে ও আন্দোলনে নামে। এ বিষয়ে কুষ্টিয়ার মিরপুর থানার ওসির কাছে আলেমরা অভিযোগও জানিয়েছে।

অবিলম্বে ফাঁসীর দাবি জানিয়েছেন দলমত নির্বিশেষে সকল সংগঠন। পৃথক পৃথক কর্মসূচি, বিবৃতিও প্রদান করেছেন অনেকে। প্রতিবাদে ফুঁসে উঠেছে তৌহিদী জনতা।বাংলাদেশ জাতীয় মুফাস্সীর পরিষদের কুষ্টিয়া, বৃহত্তর কুষ্টিয়া উলামা পরিষদ, বঙ্গবন্ধু উলামা পরিষদ কুষ্টিয়া, হক্কানী দরবারের উলামায়েকেরামসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করেছে। এছাড়াও বিভিন্ন কর্মসূচি পালনের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে।
জাতীয় মুফাস্সীর পরিষদ : রাসূল (সা.) কে অবমাননায় ওই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে এক সভা করেছে জাতীয় মুফাস্সীর পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ। বক্তব্য রাখেন মুফাস্সীর পরিষদের কুষ্টিয়া জেলা সভাপতি আলহাজ্ব মুফতি মাওলানা আব্দুল হান্নান। বিবৃতি প্রদান করেছেন মুফাস্সীর পরিষদের কুষ্টিয়া জেলা শাখার সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রিন্সিপাল তারিকুর রহমান, সেক্রেটারি মাওলানা ফারুক আযম জিহাদী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা খালিদ হোসাইন সিপাহী, মাওলানা আব্দুল ওয়াহেদ, আলহাজ্ব হাফেজ আব্দুল্লাহ আল মামুন, হাফেজ আব্দুল কুদ্দুসসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। নেতৃবৃন্দ নবী অবমাননায় আটককৃত কুলাঙ্গার আমিরুল ইসলামকে কঠোর শাস্তির দাবি জানান। তার সঠিক বিচার করা না হলে সারা দেশের আলেম উলামাদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে তীব্র আন্দোলনেরও হুঁশিয়ারি দেন।
বৃহত্তর কুষ্টিয়া উলামা পরিষদ : মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে কটূক্তি করার প্রতিবাদে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বৃহত্তর কুষ্টিয়া উলামা পরিষদের নেতৃবৃন্দ। গতকাল এক বিবৃতিতে এ প্রতিবাদ জানান। বিবৃতিতে বৃহত্তর কুষ্টিয়া উলামা পরিষদের সভাপতি মুফতি আব্দুল হামিদ জানান, রাসুল (সা.) এর নামে অবমাননা মুসলমানরা কখনোই সহ্য করবেনা। ওই এলাকার একটি কুচক্রী মহল তারা কোরআন ও হাদিসের অবমাননা করে চলেছে। তারা আহলে কোরআনের নামে কোরআনের বিরোধীতা করে যাচ্ছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। অবিলম্বে কুলাঙ্গার আমিরুল ইসলাম এর কঠোর বিচার দাবি করছি।
এছাড়াও উলামা পরিষদের অন্যান্য উলামায়েকেরাম এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। বৃহত্তর কুষ্টিয়া উলামা পরিষদের জেলা সেক্রেটারি মুফতি রেজাউল করিম, মাওলানা ইব্রাহিম হোসাইন কাশেমী, মাওলানা আবু দাউদ, মুফতি আব্দূল লতিফ খান, মাওলানা আব্দুল খালেক, মাওলানা আব্দুল হাকিম, হাফেজ আরিফ বিল্লাহ, মাওলানা ইলিয়াস শাহসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
বঙ্গবন্ধু উলামা পরিষদ কুষ্টিয়া : কুষ্টিয়ার মিরপুরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে কট‚ক্তি করার তীব্র্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু উলামা পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ। নবী অবমাননাকারী কুলাঙ্গার আমিরুল ইসলাম এর কঠোর বিচার দাবি করে বক্তব্য ও বিবৃতি দিয়েছেন নেতৃবৃন্দ। বিবৃতি ও বক্তব্য প্রদানকারীরা হলেন, বঙ্গবন্ধু উলামা পরিষদ কুষ্টিয়া জেলা সভাপতি মাওলানা ফারুক আযম জিহাদী, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা খালিদ হোসাইন সিপাহী, যুগ্ম সম্পাদক মাওলানা হাফিজুর রহমান, সিনিয়র সহ-সভাপতি আলহাজ্ব হাফেজ আব্দুল্লাহ আল-মামুন, মাওলানা মিরাজুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক ইউনুছ আলী, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মাওলানা ফারুক সিদ্দিকী, সমাজকল্যাণ সম্পাদক হাফেজ আব্দুল কুদ্দুস, ত্রাণ, সদস্য হাসিবুল ইসলাম, আবু নাঈমসহ অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।
উল্লেখ্য যে, গত শুক্রবার দুপুরে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার নওদাপাড়া এলাকা থেকে তাকে আটক করে মিরপুর থানা পুলিশ। আমিরুল ইসলাম ওই এলাকার আব্দুর রহমানের ছেলে। তিনি নিমতলা দারুস সালাম অনলাইন মডেল স্কুলের পরিচালক।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: তৌহিদী-জনতা
আরও পড়ুন