Inqilab Logo

বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১১ কার্তিক ১৪২৮, ১৯ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

অপহরণের আট দিন পর স্কুলছাত্রী উদ্ধার : আটক ১

কুষ্টিয়া থেকে স্টাফ রির্পোটার : | প্রকাশের সময় : ২৩ নভেম্বর, ২০২০, ১২:০২ এএম

কুষ্টিয়ার কুমারখালী কয়া ডিগ্রী কলেজের নিকট থেকে অপহৃত স্কুলছাত্রীকে অপহরণের আট দিন পর ঠাকুরগাঁও রাণী শংকৈল থানা এলাকা থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। এসময় অপহরণকারী শ্রী সনাতন বর্মনকে (২০) গ্রেফতার করা হয়। গত শনিবার কুমারখালী থানার এসআই ফোর্স সাথে নিয়ে অপহৃতকে উদ্ধার ও অপহরণকারীকে আটক করেন। উদ্ধারকৃত স্কুলছাত্রী উপজেলার কয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা ও দশম শ্রেণির ছাত্রী।

অপহৃতের পারিবারিক ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ১৩ নভেম্বর ভোড়ে ওই ছাত্রী কোচিং ক্লাশ করার জন্য বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফিরে না আসলে খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে কুমারখালী থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়। পরবর্তীতে তারা জানতে পারেন ১৩ নভেম্বর ঘটনার দিন ঐ ছাত্রী সাড়ে ছয়টার দিকে কয়া ডিগ্রি কলেজের কাছে পৌঁছায়। এসময় ঠাকুরগাঁও জেলার রাণী শংকৈল থানার রাণী ভবানীপুরের শ্রী মনোরঞ্জন রায়ের ছেলে শ্রী বাদল রায়, চাঁদনী মহলবাড়ির ইসলাম উদ্দিনের ছেলে আবু হানিফ ও রাণী ভবানীপুরের লেহেম্বা ইউপির শ্রী আমানন্দ বর্মনের ছেলে শ্রী সনাতন বর্মন তাকে জোড়পূর্বক অপহরণ করে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। ২০ নভেম্বর অপহৃতের পিতা আহাম্মদ আলী বাদী হয়ে কুমারখালী থানায় মামলা দায়ের করেন। ঘটনার আট দিন পর গত শনিবার ঠাকুরগাঁও জেলার রাণী শংকৈল থানার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে অপহৃত স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার ও অপহরণকারীকে গ্রেফতার করে।
কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মজিবুর রহমান বলেন, তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে তাদের লোকেশন চিহ্নিত করে মেয়েটিকে উদ্ধার ও একজন অপহরণকারীকে আটক করা হয় । গ্রেফতারকৃতকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। তবে বিষয়টি প্রেম ঘটিত ব্যাপার হতে পারে বলেও এলাকায় গুঞ্জন চলছে।



 

Show all comments
  • মোঃ ফিরোজ খান ২৩ নভেম্বর, ২০২০, ৫:৩৩ পিএম says : 0
    অপহরণ -মো ফিরোজ খান আমি বাইরে গেলাম, দোয়া করো সবাই আমাকে বিপদে না পরি ভালো ভাবে ফিরে আসি ঘরে হঠাৎ করে একদল দুষ্টু ছেলে তাড়া করে আমায় ভয়ে দু পা এক পা করে সামনে এগিয়ে যাই। যেনো পা চলছে না বুক কাপছে আমার ভয়ে হঠাৎ  চারদিক থেকে ঘিরে ধরে আমায় ওরা চোখ বেঁধে গাড়িতে তুলে নিলো তাড়া সহজে হঠাৎ দেখি অন্ধকার ঘরে বন্দী আছি আমি। ভয় নেই আমরা তোমার কোনো ক্ষতি করবোনা তুমি শুধু তোমার বাবার মোবাইল নাম্বার দাও আমরা তোমাকে ছেড়ে দেবো মুক্তিপণ নিয়ে ঘরের মেয়ে ঘরে যাবে মান সন্মানের সাথে। মায়ের অপেক্ষা মেয়ে কেনো আসেনা ফিরে? হঠাৎ করে মোবাইল ফোন বেজে উঠলো বাবার! কে বলছেন ? মেয়ের কি খবর আছে আমার? আপনার মেয়েকে রেখেছি স্ব সন্মানে বন্দী করে। মেয়েকে ভালো ভাবে ফিরে পেতে যান আপনি পাঁচ লক্ষ টাকা নিয়ে জঙ্গল বাড়ি আসেন ঠিক আছে! ঠিক আছে! আমরা এখনই আসছি কোনো ক্ষতি যেনো ন করেন আদরের মেয়েকে। আমাদের দেশের মধ্যে এভাবে চলছে অপহরণ অপহরণকারীরা পার পেয়ে যাচ্ছে হেসে খেলে এদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন সরকারের কাছে আমাদের এটাই শুধু আবেদন।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ