Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ০২ মাঘ ১৪২৭, ০২ জামাদিউল সানী ১৪৪২ হিজরী

ইহুদিবাদী ইসরাইলের জন্য তুরস্ক-পাকিস্তানসহ ১৩ দেশের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আমিরাতের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ নভেম্বর, ২০২০, ১১:২২ এএম | আপডেট : ১১:২৪ এএম, ২৮ নভেম্বর, ২০২০

মধ্যপাচ্যের দেশ আরব আমিরাত এবার ইহুদিবাদী ইসরাইলের জন্য মুসলিমপ্রধান দেশ পাকিস্তান, তুরস্কসহ ১৩ টি দেশের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।

১৩টি দেশের নাগরিকদের ভিসা দেওয়ার ক্ষেত্রে সংযুক্ত আরব আমিরাত বিধিনিষেধ আরোপ করেছে, যার মধ্যে প্রায় সবগুলোই মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ। এই নিষেধাজ্ঞা নিয়ে আলোচনা চলছে এমন এক সময়, যখন বৃহস্পতিবার দেশটির সঙ্গে ইসরায়েলের সরাসরি বিমান যোগাযোগ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এ বিষয়টি উল্লেখ বিশ্লেষণ প্রকাশ করেছে বিবিসি বাংলা।

দুবাই থেকে প্রথম ফ্লাইটটি বৃহস্পতিবার তেল আবিবের উদ্দেশ্যে উড়ে যায়। সেখানে স্বাগত জানিয়েছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। দুই দেশের মধ্যে স্বাভাবিক কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হওয়ার পর এটিই প্রথম সরাসরি বাণিজ্যিক ফ্লাইট।

একই দিন রয়টার্স জানায়, ১৩টি দেশের নাগরিকদের জন্য ইউএইর বিধিনিষেধ শুধু ভ্রমণ ভিসার বেলায় নয়, কর্মসংস্থান ভিসার ক্ষেত্রেও প্রয়োগ করা হচ্ছে।

দেশগুলো হলো ইরান, তুরস্ক, সিরিয়া, সোমালিয়া, আলজেরিয়া, কেনিয়া, ইরাক, লেবানন, পাকিস্তান, তিউনিসিয়া, আফগানিস্তান, লিবিয়া ও ইয়েমেন। এর মধ্যে কেনিয়া ছাড়া প্রত্যেকটি দেশই মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ। কিছু কিছু দেশের সঙ্গে রয়েছে ইরানের সঙ্গে খুবই বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক।

কেন সংযুক্ত আরব আমিরাত এই নিষেধাজ্ঞা জারি করলো, সেটা তারা পরিষ্কার করে বলছে না। কাজেই এটা নিয়ে অনেক রকম জল্পনা চলছে।

নিষেধাজ্ঞায় থাকা দেশগুলোর অনেক মানুষ সংযুক্ত আরব আমিরাতে কাজ করে। বিশেষ করে পাকিস্তান, ইরান, সিরিয়া, লেবানন ও আফগানিস্তানের।

কোন কোন নিরাপত্তা বিশ্লেষক ধারণা করছেন, এর পেছনে হয়তো নিরাপত্তা সংক্রান্ত উদ্বেগ কাজ করছে, বিশেষ করে সম্প্রতি সৌদি আরবে ফরাসি দূতাবাসে হামলার ঘটনা। এই যুক্তিও অনেকে মানতে পারছেন না, কারণ সেই হামলায় জড়িত ছিল এক সৌদি নাগরিক। অথচ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে এমন সব দেশের বিরুদ্ধে, যাদের বেশির ভাগ ইরানের ঘনিষ্ঠ মিত্র বলে পরিচিত বা যাদের সঙ্গে ইরানের উল্লেখযোগ্য সম্পর্ক আছে।

এই ১৩টি দেশের মধ্যে ১১টি দেশ ইসরায়েলের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাতের সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের সমালোচনা করেছে। কোন কোন দেশ বেশ তীব্র ভাষায়। তাহলে এ ঘটনার নেপথ্যে ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক?

আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদ ও নিরাপত্তা বিষয়ক বিশ্লেষক মেজর (অব.) জেনারেল মুনীরুজ্জামান বিবিসিকে বলেন, এ রকমটা সন্দেহ করার যথেষ্ট কারণ আছে।

এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “এই ১৩টি দেশের কিছু দেশে হয়তো সন্ত্রাসবাদ একটা মূল সমস্যা হতে পারে। তবে একই সঙ্গে দেখা যাচ্ছে, এমন কয়েকটি দেশ আছে, যেখানে সন্ত্রাসবাদ বড় সমস্যা নয়। তবে এসব দেশের কেউই ইসরায়েলের সুনজরে নেই।”

“অনেকেই ধারণা করছেন, এই সিদ্ধান্তের পেছনে ইসরায়েলের একটা প্রভাব বা হাত আছে। অতি সম্প্রতি ইউএই যখন ইসরায়েলের সঙ্গে সম্পর্ক স্থাপন করেছে, তারপর থেকে তাদের সম্পর্ক খুব দ্রুত গভীর হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে ইসরায়েল ইউএইর ওপর প্রভাব বিস্তার করে তাদের সুনজরে নেই এমন দেশের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা করাচ্ছে কিনা, সেটা একটা সম্ভাবনা। তবে সুনির্দিষ্টভাবে কোন কিছু বলা সম্ভব নয়।”

ইউএই যে ইসরায়েলের সঙ্গে কেবলমাত্র কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করেছে তা নয়। একই সঙ্গে তারা বিমান চলাচল, পর্যটন, নিরাপত্তা, ব্যবসা-বাণিজ্য এবং দুই দেশের নাগরিকদের ভিসা ছাড়া পরস্পরের দেশে ভ্রমণের মতো সহযোগিতার দিকে যাচ্ছে। এ অবস্থায় ইসরায়েল কি তাদের নিরাপত্তা সংক্রান্ত উদ্বেগ থেকে এ রকম একটা অনুরোধ জানিয়ে থাকতে পারে সংযুক্ত আমিরাতকে?

‍মুনীরুজ্জামান বলেন, ইসরায়েলের সঙ্গে ইউএই'র যে সম্পর্ক, সেটা হঠাৎ গড়ে উঠেছে ভাবা ঠিক হবে না। এর জন্য পর্দার অন্তরালে কাজ চলছে অনেক দিন ধরে এবং যেসব নিরাপত্তার ঝুঁকি আসতে পারে, সেগুলো অনেক বিচার-বিবেচনা করেই ইসরায়েল অগ্রসর হয়েছে। হয়তো সেগুলো সম্পূর্ণভাবে বিশ্লেষণ করেই ইউএই এ ধরনের ভিসা ব্যবস্থা সৃষ্টি করার চেষ্টা করছে।

“ইসরায়েল মনে করছে, যদি ইউএইর সঙ্গে সম্পর্কের ক্ষেত্রে তারা সাফল্য দেখাতে পারে, তাহলে অন্যান্য মুসলিম দেশকেও তারা আকৃষ্ট করতে পারবে। বিশেষ করে যদি অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে এই সম্পর্ক সফল হয়। এ কারণেই দেখা যাচ্ছে, বাণিজ্য, যাতায়াত, এসব ক্ষেত্রে, পর্যটনের ক্ষেত্রে তারা দুই দেশের মধ্যে তাদের দ্বার উন্মুক্ত করার জন্য প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। আমার বিশ্বাস, তাদের নিরাপত্তার ঝুঁকি বিশ্লেষণ করেই তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।”

অনেকের ধারণা, যেসব দেশের বিরুদ্ধে ইউএই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে, সেখানে ইরান একটা বড় কারণ। এসব দেশে হয় ইরানের উল্লেখযোগ্য কৌশলগত স্বার্থ আছে, অথবা তাদের সঙ্গে ইরানের ভালো সহযোগিতামূলক সম্পর্ক আছে। কিংবা এসব দেশে উল্লেখযোগ্য সংখ্যায় শিয়া মুসলিমরা আছে।

মুনীরুজ্জামান জানান, “আপনি যদি এই দেশগুলোর তালিকার দিকে তাকান, দেখবেন এসব দেশ ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক বজায় রাখছে। অনেক ক্ষেত্রে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ এবং বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে। কাজেই ইরান যে একটা কারণ, তা মনে করলে সেটা একেবারে ভুল হবে না আমাদের বিশ্লেষণে। ইরানকে একঘরে করার জন্য ইসরায়েল সব সময় কাজ করে এসেছে। যেখানেই সম্ভব, সেখানেই তাদের এক ঘরে করছে।”



 

Show all comments
  • AB Halim ২৮ নভেম্বর, ২০২০, ১২:৩২ পিএম says : 0
    Munafeek er dol. Allah eder hedayet din.
    Total Reply(0) Reply
  • Bhmonju ২৮ নভেম্বর, ২০২০, ১২:৪৫ পিএম says : 0
    লোভে পাপ,পাপ বেড়েগেল ধ্বংস অতিনিকট
    Total Reply(0) Reply
  • Bhmonju ২৮ নভেম্বর, ২০২০, ১২:৪৬ পিএম says : 0
    লোভে পাপ,পাপ বেড়েগেল ধ্বংস অতিনিকট
    Total Reply(0) Reply
  • Jack Ali ২৮ নভেম্বর, ২০২০, ১১:৩১ এএম says : 0
    O'Allah wipe out your Enemy Iblees UAE Sheikh Mohammed bin Zayed from Arab Land and appoint a Muslim Leader who will rule by the Law of Allah.
    Total Reply(0) Reply
  • Jesmin Anowara ২৯ নভেম্বর, ২০২০, ১:৩৩ এএম says : 0
    Big two saitan unuited
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আমিরাত


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ