Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ০২ মাঘ ১৪২৭, ০২ জামাদিউল সানী ১৪৪২ হিজরী

আরও এক ক্রিকেটারের করোনা শনাক্ত

নিউজিল্যান্ডে খেলতে পারবে তো পাকিস্তান!

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৯ নভেম্বর, ২০২০, ১২:০১ এএম

নিউজিল্যান্ড সফরে যাওয়া পাকিস্তান ক্রিকেট দলের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত খেলোয়াড়ের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে সাতে। ছয় জনের করোনা শনাক্ত হওয়ার খবর জানা গিয়েছিল আগেই। নতুন করে করোনা পজিটিভ হয়েছেন আরও এক ক্রিকেটার।

গতকাল বিষয়টি নিশ্চিত করেছে নিউজিল্যান্ডের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ‘আজ (কাল) পাকিস্তান ক্রিকেট স্কোয়াডের আরও এক ক্রিকেটার করোনাভাইরাস পজিটিভ হয়েছেন। আগেই যে ছয় জন পজিটিভ হয়েছিলেন, তারা বাদে তৃতীয় দিনের সোয়াব পরীক্ষার পর বাকিদের ফল নেগেটিভ এসেছে।’
৫৩ সদস্যের বিশাল বহর নিয়ে নিউজিল্যান্ডে যাওয়া পাকিস্তানের সকল খেলোয়াড়-স্টাফের ফের করোনা পরীক্ষা করানো হবে আগামী সোমবার। এই সময়ের মধ্যে হোটেলে নিজেদের কক্ষে থাকতে হবে তাদেরকে। গত বৃহস্পতিবার থেকে নতুন করে কোয়ারেন্টিনের বাধ্যবাধকতা চালু করা হয়েছে তাদের জন্য। পাঁচ দিন আগে নিউজিল্যান্ডে অবতরণের পরপরই প্রথম দফা পরীক্ষায় পাকিস্তানের ছয় ক্রিকেটার করোনাভাইরাস পরীক্ষায় পজিটিভ হন। এরপর জানা যায়, জৈব সুরক্ষার বলয়ের শর্তও একাধিকবার ভেঙেছেন বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়। তাই নিউজিল্যান্ড সরকারের তরফ থেকে চূড়ান্তভাবে সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট দলকে। আবার নিয়ম ভাঙলে তাদেরকে দেশে পাঠিয়ে দেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ার করা হয়েছে। নিউজিল্যান্ডের স্বাস্থ্য বিভাগের মহাপরিচালক ড. অ্যাশলে ব্লুমফিল্ড পাকিস্তানের ক্রিকেটারদের কর্মকান্ড নিয়ে গতকাল বলেছেন, ‘কোয়ারেন্টিনে প্রথম তিন দিন নিজেদের কক্ষেই তাদের থাকার কথা। কিন্তু কয়েকজন কক্ষের বাইরে বারান্দায় চলাফেরা করছিলেন, কথা বলছিলেন, খাবার ভাগাভাগি করছিলেন এবং মাস্ক পরিহিত ছিলেন না।’
ফলে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খান কড়া বার্তা পাঠান বাবর আজমের নেতৃত্বাধীন দলের উদ্দেশে। সেই সঙ্গে জানান, ফের নিয়ম অমান্য করলে না খেলেই দেশে ফিরতে হবে সবাইকে। এমন পরিস্থিতিতে নিউজিল্যান্ড ও পাকিস্তানের আসন্ন সিরিজ নিয়ে তৈরি হয়েছে ঘোর অনিশ্চয়তা। শেষ পর্যন্ত খেলা মাঠে গড়াবে কিনা তা নিয়ে সন্দিহান অনেকে। আর করোনা আক্রান্ত খেলোয়াড়ের সংখ্যা বাড়তে থাকায় চাপও বাড়ছে পিসিবির ওপর।
এত আপদ-বিপদের মধ্যে নিজেদের খেলোয়াড়দের এভাবে ‘পাইকারি হারে’ করোনায় আক্রান্ত হওয়ার তদন্ত করে একটা সম্ভাব্য কারণ খুঁজে বের করেছে পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম। সেটি এই, নিউজিল্যান্ড যাওয়ার পথে বিমানের সস্তা টিকিট কেনার খেসারত দিচ্ছে পাকিস্তান! নিউজিল্যান্ডে সিরিজ খেলতে শুধু পাকিস্তান জাতীয় দলই নয়, পাকিস্তানের ‘এ’ দল- যেটিকে এখন পাকিস্তান শাহিনস নামে ডাকা হয়, তারাও একসঙ্গে ধরেছে নিউজিল্যান্ডের বিমান। জাতীয় ও এ দলের খেলোয়াড়, কোচ, কর্মকর্তা—সব মিলিয়ে ৫৩ জনের বিশাল বহর নিয়ে নিউজিল্যান্ডে গেছে পাকিস্তান। কিন্তু এত ক্রিকেটার নিতে আলাদা বিমান ভাড়া করেনি, বরং সাধারণ বাণিজ্যিক বিমানে অন্য যাত্রীদের সঙ্গেই গেছেন বাবর আজমরা।
বিমানে আসনবিন্যাসে খেলোয়াড়দের ক্যাটাগরিতে ভেদাভেদ ছিল বলে জানাচ্ছে পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম। ‘বিজনেস ক্লাসে’র টিকিট না পাওয়ায় শাহিনসদের কয়েকজন খেলোয়াড় গেছেন তুলনামূলক সস্তা বিজনেস ক্লাসে করে। পাকিস্তানের ক্রিকেট–বিষয়ক ওয়েবসাইট ক্রিকেট পাকিস্তান লিখেছে, সেটিই দলে করোনা ছড়ানোর একটা কারণ হতে পারে। নাম উল্লেখ না করে দল–সংশ্লিষ্ট সূত্রের বরাতে ক্রিকেট পাকিস্তান লিখেছে, ‘সূত্র বিশ্বাস করে, শাহিনস দলের দুজন খেলোয়াড়, যাঁরা করোনা পজিটিভ হয়েছেন, তাঁদের মধ্য থেকেই দলের অন্য সদস্যদের মধ্যে ভাইরাসটি ছড়িয়েছে। কারণ, তারা (শাহিনসের খেলোয়াড়েরা) ফ্লাইটে সাধারণ যাত্রীদের সঙ্গে বসেছিলেন, যেটা করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়িয়েছে।’
নিউজিল্যান্ডে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে শুরু থেকেই তৎপর দেশটির সরকার। তার সুফলও মিলেছে। তাই কোভিড বিধি কঠোরভাবে প্রয়োগ করছে তারা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: করোনা-শনাক্ত
আরও পড়ুন