Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৪ জানুয়ারি ২০২১, ১০ মাঘ ১৪২৭, ১০ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

মেকেল্লের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার দাবি ইথিওপীয় প্রধানমন্ত্রীর

তাইগ্রে অভিযানের সমাপ্তি ঘোষণা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩০ নভেম্বর, ২০২০, ১২:০০ এএম

ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ দাবি করেছেন, টাইগ্রেতে তাদের সামরিক অভিযান সম্পন্ন হয়েছে এবং কেন্দ্রীয় সেনারা এর আঞ্চলিক রাজধানী মেকেল্লের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। গত শনিবার এ ঘোষণা দেন তিনি। তবে টাইগ্রে পিপল’স লিবারেশন ফ্রন্ট জানিয়েছে, তারা হাল ছেড়ে দিচ্ছে না।
মেকেল্লেতে অবস্থিত উত্তরাঞ্চলীয় সামরিক বাহিনীর সদর দফতরে হামলার অভিযোগ এনে গত ৪ নভেম্বর টিপিএলএফ’র বিরুদ্ধে অভিযানের ঘোষণা দেন আবি। গত তিন সপ্তাহ ধরে ইথিওপিয়ার সরকারি বাহিনী ও স্বাধীনতাকামী টাইগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্ট পার্টির (টিপিএলএফ) মধ্যে লড়াই চলছে। ইতোমধ্যে এ লড়াইয়ে এক হাজারের বেশি মানুষ নিহত হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। এছাড়া অঞ্চলটি থেকে পালিয়ে প্রতিবেশী দেশ সুদানে শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় নিয়েছে প্রায় ৪৪ হাজার হাজার মানুষ।

শনিবার টুইটারে দেওয়া বিবৃতিতে ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ বলেন, ‘এটা জানাতে পেরে আমি খুশি যে, আমরা টাইগ্রে অঞ্চলে সামরিক অভিযান সমাপ্ত ও বন্ধ করে দিয়েছি। ‘এর এক ঘণ্টারও কম সময় আগে দেয়া এক বিবৃতিতে আবি বলেন, ‘মেকেলে শহরের পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ এখন কেন্দ্রীয় সরকারের হাতে।’ তবে এখনই হাল ছাড়তে নারাজ টিপিএলএফ। বাহিনীটির নেতা ডেবরেটসিয়ন গেব্রেমিচায়েল বলেন, ‘তাদের নৃশংসতা আমাদেরকে আরও বেশি করে লড়াইয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ করেছে। দখলদারদের বিরুদ্ধে আমরা শেষ পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাব।’

এ ব্যাপারে ইথিওপিয়া সরকারের তাৎক্ষণিক মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে প্রধানমন্ত্রী আবি তার বিবৃতিতে বলেছেন, টিপিএলএফ-এর ‘অপরাধীদের’ খুঁজে বের করে আটক করা হবে। আদালেতের মুখোমুখি করা হবে তাদের।
এখন পর্যন্ত টিপিএলএফ-এর কেউ আত্মসমর্পণ করেছে কিনা তা জানা যায়নি। তবে ডেবরেটসিয়ান বলেছেন, মেকেল্লে থেকে টিপিএলএফ সদস্যদের সরিয়ে নেয়া হচ্ছে।

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, টিপিএলএফ এখন পাহাড়ে পালিয়ে গিয়ে পরবর্তীতে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে গেরিলা আক্রমণের প্রস্তুতি নিতে পারে। ধারণা করা হয় তাদের সংখ্যা আনুমানিক ২ লাখ ৫০ হাজার।
দাতব্য সংস্থাগুলো আশঙ্কা করছে, এ সঙ্ঘাতের কারণে মানবাধিকার সঙ্কট তৈরি হতে পারে এবং হর্ন অব আফ্রিকা অঞ্চলকে অস্থিতিশীল করে তুলতে পারে। ইথিওপিয়ার সরকার নিয়োজিত মানবাধিকার কমিশন টিগ্রে’র যুবকদের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগ এনেছে। কমিশন বলছে, মাই-কাদ্রা শহরে ৬০০’র বেশি টিগ্রে’র বাইরের বেসামরিক নাগরিককে হত্যা করেছে তারা। টিপিএলএফ ঐ ঘটনার সাথে কোনো ধরনের সংশ্লিষ্টতা অস্বীকার করেছে। সূত্র : বিবিসি বাংলা, রয়টার্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইথিওপীয় প্রধানমন্ত্রী
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ