Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৪ জানুয়ারি ২০২১, ১০ মাঘ ১৪২৭, ১০ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

তিন দশকে হারিয়েছে ৯৫ শতাংশ

বঙ্গোপসাগরে লাক্ষ্যা মাছ

জাকের উল্লাহ চকোরী, কক্সবাজার থেকে : | প্রকাশের সময় : ১ ডিসেম্বর, ২০২০, ১২:০১ এএম

লাক্ষ্যা মাছ বা স্যামন ফিশ । সারা বিশ্বে এটি ‘সাদা গোশত’ এর জন্য জনপ্রিয় হলেও আমাদের দেশে জনপ্রিয় শুঁটকি হিসাবে। স্বাদের দিক দিয়ে লাক্ষ্যা শুঁটকির জুড়ি নেই। কিন্তু অনিয়ন্ত্রণ ও অপরিকল্পিত মৎস্য আহরণের কারণে সেই স্বাদের মাছ এখন প্রায় হারিয়ে যেতে বসেছে বঙ্গোপসাগর থেকে। কক্সবাজারের জেলেরা বলছেন, গত ৩ দশকে বঙ্গোপসাগর থেকে প্রায় ৯৫ শতাংশ লাক্ষ্যাই হারিয়ে গেছে। আবার কমে এসেছে আকারেও। বিজ্ঞানীদের মতে, এই মাছটি মারাত্মকভাবে আহরিত হয়ে এখন প্রায় নিঃশেষ হয়ে গেছে। তাই সংশ্লিষ্ট অধিদফতরকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার তাগিদ নিয়েছেন সমুদ্র বিজ্ঞানীরা।
কক্সবাজার শহরের প্রধান মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র ফিশারীঘাটে ২৫ বছরের বেশি সময় ধরে মৎস্য ব্যবসা পরিচালনা করে আসা জুলফিকার আলী বলেন, ফিশারীঘাটে আগে যেখানে দৈনিক ২শ পিসের বেশি লাক্ষ্যা মাছ পাওয়া যেত, সেখানে এখন পাওয়া যায় মাত্র ৭ থেকে ৮টি; তাও আকারে ছোট।
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমুদ্র বিজ্ঞান ইন্সটিটিউটের প্রফেসর, বিশিষ্ট সমুদ্র বিজ্ঞানী ড. সাইদুর রহমান চৌধুরী বলেন, লাক্ষ্যা মাছ বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান অর্থকরী ও মূল্যবান মাছ। এই মাছটি মারাত্মকভাবে আহরিত হয়ে প্রায় নিঃশেষ হয়ে গেছে। এছাড়া তাইল্যা, রূপচান্দা ও পোয়া টাইপের বিশেষ করে দামি এবং বড় আকৃতির মাছ এখন খুবই কম পাওয়া যাচ্ছে। বাজার পর্যবেক্ষণ থেকেই আমরা স্পষ্ট দেখতে পাই, বেশ কিছু মাছের ধারাবাহিক আমরা বছরের পর বছর ঘাটতি দেখতে পাচ্ছি। এটা নির্দেশ করে যে, সমুদ্রে তাদের পরিমাণ কমে গেছে বলেই বাজারে তাদের জোগান কমে গেছে। তিনি বলেন, চিংড়ি মাছের বহু প্রজাতিও হুমকির মুখে। আমরা গবেষণা করছি, কিন্তু আরো বিস্তারিত গবেষণা ছাড়া চূড়ান্ত মূল্যায়ন সম্ভব নয়।
বাংলাদেশে সামুদ্রিক মৎস্য আহরণে সনাতনী পদ্ধতিতে কাঠের তৈরি ট্রলার, মাঝারি ট্রলার এবং ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রলার ব্যবহৃত হয়। দেশে অগভীর সাগরে মাছ ধরায় যুক্ত আছে ৭০ হাজারের বেশি নৌযান। এছাড়া ৪০ মিটারের অধিক গভীরতায় মাছ শিকারের জন্য ২৫৩টি ইন্ডাস্ট্রিয়াল নৌযান রয়েছে। আর এসব নৌযানে মৎস্য শিকারের সঙ্গে যুক্তরা ছোনার প্রযুক্তি ব্যবহার করে মাছের সুনির্দিষ্ট অবস্থান জেনে এবং অগভীর সাগরে এসে নির্বিচারে মাছ শিকার করার কারণেই লাক্ষ্যা, তাইল্যাসহ অর্থনৈতিক গুরুত্ব সম্পন্ন মাছগুলো হারিয়ে যেতে বসেছে বলে মনে করেন সনাতনী পদ্ধতিতে মাছ ধরা ট্রলারের মালিকেরা। এছাড়া বাংলাদেশের সমুদ্র সীমানায় মৎস্য আহরণে প্রতিবেশী দুটি দেশের নৌযানের অবৈধ অনুপ্রবেশ একটা নিয়মিত সমস্যা বলে জানান স্থানীয় জেলেরা।
জেলেদের অভিযোগ, বাংলাদেশি সমুদ্রসীমায় প্রায়ই ভারত ও মিয়ানমারের মাছ ধরা ট্রলার ঢুকে পড়ছে। এমনকি বাংলাদেশের সীমানায় মাছ ধরা নিষিদ্ধ থাকাকালীনও তাদের উপস্থিতি বেড়ে যায়। জেলা ফিশিং বোট মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন বলেন, দক্ষিণ দিকে সেন্টমার্টিন অংশে মিয়ানমার এবং পশ্চিমে চালনার দিকে ভারতীয জাহাজ প্রায়ই অবৈধ মাছ শিকার করে। অনেক সময় একাধিক জাহাজ নিয়ে মিয়ানমার ও ভারতীয় জাহাজ সাগরে মাছ ধরতে আসে বলেও তাদের নজরে পড়ে। এছাড়া দেশের অত্যাধুনিক ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রলারগুলো অগভীর সাগরে এসে মাছ ধরে।
তিনি অভিযোগ করেন, মাছ ধরা নিষিদ্ধ সময়েও চট্টগ্রাম শহর থেকে নাজিরারটেকে ছুরি মাছের ফ্রোজেন বøক এসেছে। মৎস্য বিভাগ কয়েকবার মাছবোঝাই ট্রাকও আটক করেছিল।
কক্সবাজার জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এসএম খালেকুজ্জামান বলেন, দেশের সমুদ্র সীমায় এসে বিদেশী জাহাজ মাছ ধরছে কীনা এবং অত্যাধুনিক ইন্ডাস্ট্রিয়াল ট্রলারগুলো অগভীর সাগরে এসে মাছ ধরা সম্পর্কে কী না তা পর্যবেক্ষণের জন্য আমরা কোস্টগার্ড ও নৌ-বাহিনীকে অনুরোধ জানিয়েছি। আর কোন ট্রলার যাতে ভবিষ্যতে অগভীর সাগরে এসে মাছ ধরতে না পারে, সেজন্য ট্রলারগুলোতে জিপিএস কিট লাগানো হবে।
বাংলাদেশ ফিশারিজ রিচার্স ইন্সটিটিউট (বিএফআরআই) এর কক্সবাজারস্থ সামুদ্রিক মৎস্য ও প্রযুক্তি কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. শফিকুর রহমান বলেন, দেশের চারটি প্রজনন ক্ষেত্রের বাইরে আমরা ইতোমধ্যে কক্সবাজারের সোনাদিয়া দ্বীপের পশ্চিমে লাক্ষ্যা, তাইল্যা ও ভেটকিসহ পোপা টাইপের মাছের প্রজননক্ষেত্র চিহ্নিত করেছি। তিনি আশা করেন, লাক্ষ্যার মত দামি মাছগুলোকেও ইলিশের মতোই গুরুত্ব দিয়ে সংরক্ষণ করা হলে হারিয়ে যেতে বসা মাছগুলো আবার মানুষের খাবার টেবিলে ফিরে আসবে।
বিজ্ঞানীরা জানান, বাংলাদেশের লাক্ষ্যা মাছ ইন্ডিয়ান স্যামন হিসাবেই বিশ্বব্যাপী পরিচিত। কথিত রয়েছে, এ মাছটি যেখানে ডিম থেকে জন্ম নেয়, সেখানেই আবার ডিম পাড়তে আসে। শত শত বছর ধরে চলে আসা এ কিংবদন্তির প্রমাণও পাওয়া গেছে সা¤প্রতিক গবেষণায়।
ভূ-রসায়নবিদ ও জীবাশ্মবিদদের মতে, বয়স নির্ধারণী পরীক্ষায় এই মাছটি নিওজিন পিরিয়ডেই পৃথিবীতে উৎপত্তি হয়েছে (২ কোটি ৩০ লাখ বছর থেকে ২৫ লাখ ৮৮ হাজার বছর আগে অতিবাহিত) বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন