Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২১, ১২ মাঘ ১৪২৭, ১২ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

ভেঙে ফেলা হচ্ছে মার্কিন রণতরী বনহোম রিচার্ড

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২ ডিসেম্বর, ২০২০, ১২:০৩ পিএম

যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনী অ্যাসল্টশিপ ইউএসএস বনহোম রিচার্ডকে ডি-কমিশন এবং ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। জাহাজটি মেরামত করতে কয়েকশ কোটি ডলার লাগতে পারে, এমন পর্যালোচনার পর মার্কিন নৌবাহিনী এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। গত জুলাই মাসে অগ্নিকাণ্ডে ভয়াবহ ক্ষতিগ্রস্ত হয় যুদ্ধজাহাজটি। ইউএসএস বনহোম স্থল ও সমুদ্রেও সমানভাবে ব্যবহারযোগ্য রণতরী। খবর সিএনএনের।

নতুন মেরিন কর্পসের এফ-৩৫-বি জেট বিমানের জন্য জায়গা করে দিতে জুলাই মাসে সান ডিয়েগো বন্দরে নোঙর করে রাখা হয়েছিল ইউএসএস বনহোম রিচার্ডকে। কিন্তু তখন মার্কিন নৌবাহিনীর আধুনিক ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহতম আগুন লাগে। নৌবাহিনীর কর্মকর্তারা বলছেন, জাহাজটি সংস্কার করতে ২৫০ থেকে ৩২০ কোটি ডলার খরচ হবে। আর সংস্কারকাজের জন্য পাঁচ থেকে সাত বছর সময়ও লাগবে। তারা বলছেন, জাহাজটির প্রায় ৬০ শতাংশ পুনপ্রতিস্থাপন করতে হবে। ইউএসএস বনহোম রিচার্ডের অক্ষত অংশ দিয়ে এটিকে হাসপাতাল শিপের মতো অন্য কোনো জাহাজে রূপান্তর করা যায় কিনা সেটিও খতিয়ে দেখেছে নৌবাহিনী। কিন্তু এতে ১০০ কোটি ডলার খরচ হতে পারে বলে জানিয়েছে তারা। অথচ নতুন একটি হাসপাতাল শিপ তৈরি করতে এর চেয়েও কম খরচ হবে।

তবে ইউএসএস বনহোম রিচার্ডকে ডি-কমিশন এবং ভেঙে ফেলতে খরচ হবে মাত্র ৩ কোটি ডলার। আর এই কাজ সম্পন্ন করতে ৯ থেকে ১২ মাস সময় লাগতে পারে। মার্কিন নৌবাহিনীর আঞ্চলিক মেইনটেন্যান্স সেন্টারের কমান্ডার রিয়ার এডমিরাল এরিক ভার হেইজ বলেছেন, জাহাজটিকে ডি-কমিশন করার সিদ্ধান্তে পৌঁছেছি আমরা।
গত জুলাইয়ে চারদিন ধরে জ্বলার পর যখন ইউএসএস বনহোম রিচার্ডের আগুন নেভাতে সক্ষম হয় কর্তৃপক্ষ। কর্মকর্তারা বলছেন, তারা আগুন লাগার কারণ খতিয়ে দেখছেন। ১৯৯৮ সালে কমিশন জাহাজটি নির্মাণে খরচ হয়েছিল ৭৫ কোটি, আজকের হিসাবে যা প্রায় ১২০ কোটি ডলার অর্থের সমপরিমাণ। সূত্র : সিএনএন



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: যুক্তরাষ্ট্র


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ