Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭, ১৮ রজব ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

আমেরিকাকে ইরানের পরমাণু সমঝোতায় ফিরিয়ে আনতে হবে: ইইউ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ ডিসেম্বর, ২০২০, ৯:২৫ এএম

ইউরোপীয় ইউনিয়ন বা ইইউ’র পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান কর্মকর্তা জোসেপ বোরেল বলেছেন, আমেরিকার নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কাছে অলৌকিক কোনোকিছু আশা করা কারো জন্যই উচিত হবে না। তিনি ফরাসি পত্রিকা ‘গ্রান্ড কন্টিনেন্ট’-এ প্রকাশিত নয় পৃষ্ঠার একটি নিবন্ধে এ মন্তব্য করেছেন।

নিবন্ধে তিনি ইরানের পরমাণু সমঝোতাসহ আরো অনেক আন্তর্জাতিক ইস্যুতে নিজের মতামত তুলে ধরেছেন। বোরেল লিখেছেন: জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার ফলে বিশ্বব্যাপী আশাবাদ সৃষ্টি হয়েছে এবং বহু মেরুকেন্দ্রিকতা শক্তিশালী হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। কিন্তু তারপরও ইউরোপ যেন বাইডেনের কাছ থেকে অলৌকিক কোনোকিছু আশা না করে।

ইইউ’র এই শীর্ষ কূটনীতিক তার নিবন্ধে ইরানের পরমাণু সমঝোতা সম্পর্কে লিখেছেন, আমেরিকাকে এই সমঝোতায় ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা করতে হবে। ইরান এই সমঝোতায় অটুট রয়েছে জানিয়ে জোসেপ বোরেল বলেন: সফল কূটনীতির ক্ষেত্রে এই সমঝোতা একটি গুরুত্বপূর্ণ সন্ধিক্ষণ এবং আমরা আমাদের কূটনৈতিক প্রচেষ্টার ক্ষেত্রে এই সমঝোতাকে সবচেয়ে বড় সাফল্য মনে করি।

২০১৫ সালে জাতিসংঘের পাঁচ স্থায়ী সদস্যদেশ ও জার্মানিকে নিয়ে গঠিত ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে ইরান পরমাণু সমঝোতায় সই করে। এই সমঝোতায় ইরানের শান্তিপূর্ণ পরমাণু কর্মসূচিতে সীমাবদ্ধতা আনার বিনিময়ে তেহরানের ওপর থেকে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের কথা বলা হয়। ওই সমঝোতা স্বাক্ষরে ইইউ’র তৎকালীন পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান কর্মকর্তা ফেডেরিকা মোগেরিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

কিন্তু ২০১৮ সালে বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আমেরিকাকে এই সমঝোতা থেকে একতরফাভাবে বের করে নিলে এটি অচলাবস্থার সম্মুখীন হয়। জো বাইডেন আমেকিরার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় এখন দেশটি এ সমঝোতায় ফিরে আসবে বলে আশা করছে এতে স্বাক্ষরকারী বাকি সবগুলো দেশ। ইইউ’র পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক বর্তমান প্রধান কর্মকর্তা হিসেবে জোসেপ বোরেল এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

সূত্র: পার্সটুডে



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইরান-যুক্তরাষ্ট্র


আরও
আরও পড়ুন