Inqilab Logo

রোববার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২২ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

দেশ দু:শাসন ও দুর্নীতিমুক্ত হতে পারেনি পতাকা র‌্যালীতে মাওলানা মোসাদ্দেক বিল্লাহ মাদানী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৬ ডিসেম্বর, ২০২০, ৫:১৯ পিএম | আপডেট : ৫:২১ পিএম, ১৬ ডিসেম্বর, ২০২০

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রিন্সিপাল মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানী বলেছেন, বিজয়ের সুবর্ণ জয়ন্তির প্রাক্কালেও দেশ দু:শাসন ও দুর্নীতিমুক্ত হতে পারেনি। সন্ত্রাস, দুর্নীতি ও মাদকমুক্ত দেশ পাওয়ার আশায় লাখ লাখ মা-বোন জীবন বিলয়ে দিয়েছিল। তিনি বলেন, আমাদের জাতীয় জীবনে এ দিবসটির গুরুত্ব ও তাৎপর্য অপরিসীম। যারা দেশের জন্য জীবন দিয়েছেন এবং মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে অপরিসীম ত্যাগ স্বীকার করেছেন সেই সব বীর মুক্তিযোদ্ধাসহ সমগ্র জাতির অবদানের কথা আমরা গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি ও দেশের জন্য যারা জীবন দিয়েছেন তাদের যথাযথ প্রতিদানের জন্য দোয়া করছি।

আজ মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে রাজধানীর বায়তুল মোকাররম উত্তর গেট থেকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগরীর উদ্যোগে এক বিশাল পতাকা র‌্যালী শেষে পল্টন মোড়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। প্রিন্সিপাল মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানীর নেতৃত্বে পতাকা র‌্যালীটি বায়তুল মোকাররম উত্তর গেট, পল্টন মোড়, বিজয়নগর, কাকরাইল নাইট এঙ্গেল হয়ে পুরানা পল্টন মোড়ে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হন।

সংক্ষিপ্ত সমাবেশে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রিন্সিপাল মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল-মাদানী আরো বলেন, মাওলানা সৈয়দ মো. ফজলুল করীম পীর সাহেব চরমোনাই (রহ.)কে একটি কুচক্রি মহল স্বাধীনতা বিরোধী হিসেবে চিহ্নিত করার অপচেষ্টা করছে। পীর সাহেব চরমোনাই (রহ.) স্বাধীনতা যুদ্ধে সহযোগি ভূমিকা পালন করেছিলেন এবং চরমোনাই মাদরাসাকে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য উম্মুক্ত করে দেন স্বাধীনতার ৫০ বছর পর এসে এধরণের অবান্তর কথা বলে জাতিকে বিভক্ত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত। দেশবাসীকে এসকল কুচক্রি মহল থেকে সতর্ক এবং সরকারকে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা মুহাম্মদ ইমতিয়াজ আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, ঢাকা মহানগর উত্তর সভাপতি অধ্যক্ষ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ, কেন্দ্রীয় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম, হুমায়ুন কবির, মুফতী ফরিদুল ইসলাম। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, ছাত্রনেতা এম. হাছিবুল ইসলাম, আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন, মাওলানা এবিএম জাকারিয়া, মাওলানা আরিফুল ইসলাম, আলহাজ আব্দুল আউয়াল মজুমদার, ডা. শহিদুল ইসলাম ও যুবনেতা মুফতি মানসুর আহমদ সাকী।
মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ বলেন, জাতি এমন এক সময় ‘মহান বিজয় দিবস’ পালন করতে যাচ্ছে, যখন দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব চ্যালেঞ্জের মুখে। দেশে এক শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা ইমতিয়াজ আলম বলেন, স্বাধীনতার মূল অর্জন নাগরিক ও মানবিক অধিকার হারিয়ে দেশ আজ এক অনিশ্চিত গন্তব্যের পথে যাত্রা শুরু করেছে। দেশ ও জাতির অতন্ত্র প্রহরী ওলাময়ে কেরামকে একটি চিহ্নিত মহল দেশের স্বাধীনতা বিরোধী বলে উদ্দেশ্যপূর্ণভাবে অপমান ও কটাক্ষ করছে।

 



 

Show all comments
  • ahmad abdul quaiyum ১৬ ডিসেম্বর, ২০২০, ৫:৫৪ পিএম says : 0
    মাওলানা সৈয়দ মো. ফজলুল করীম পীর সাহেব চরমোনাই (রহ.)কে একটি কুচক্রি মহল স্বাধীনতা বিরোধী হিসেবে চিহ্নিত করার অপচেষ্টা করছে। পীর সাহেব চরমোনাই (রহ.) স্বাধীনতা যুদ্ধে সহযোগি ভূমিকা পালন করেছিলেন এবং চরমোনাই মাদরাসাকে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য উম্মুক্ত করে দেন স্বাধীনতার ৫০ বছর পর এসে এধরণের অবান্তর কথা বলে জাতিকে বিভক্ত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ


আরও
আরও পড়ুন