Inqilab Logo

শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৮ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

বসনিয়ায় আশ্রয় শিবিরে অগ্নিকাণ্ড

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ ডিসেম্বর, ২০২০, ১০:৫৮ এএম

প্রায় ১২শ’ শরণার্থীর বসবাস উত্তর-পশ্চিম বসনিয়ার লিপা শরণার্থী শিবিরে গতকাল বুধবার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। বসনিয়া প্রশাসন এবং শরণার্থী শিবির পরিচালকদের বক্তব্য, ক্যাম্পের বাসিন্দারাই আগুন ধরিয়ে দিয়েছে। কারণ, বুধবারই শিবিরটি বন্ধ হয়ে যাওয়ার কথা ছিল।
এশিয়া ও মধ্যপ্রাচ্য থেকে বিপুল সংখ্যক শরণার্থী বসনিয়ায় আটকে পড়েছেন। ইউরোপের বিভিন্ন দেশে যাওয়ার জন্য তারা রওনা হয়েছিলেন। কিন্তু বসনিয়ায় পৌঁছানোর পরে তারা আর এগোতে পারেননি। প্রাথমিকভাবে অধিকাংশ শরণার্থীই জঙ্গলে বসবাস করছিলেন। কেউ কেউ বেছে নিয়েছিলেন বন্ধ হয়ে যাওয়া কারখানার শেড অথবা ভাঙা বাড়ি।
সংবাদমাধ্যমে এ সংক্রান্ত খবর প্রকাশিত হওয়ার পর অধিকার আন্দোলনকারীরা সরব হন। কয়েকটি ক্যাম্প তৈরি করা হয় শরণার্থীদের জন্য। যদিও তা মোট শরণার্থীর তুলনায় নেহায়েত অপ্রতুল।
লিপার শিবিরও তেমনই একটি ক্যাম্প ছিল। তৈরির সময়েই বলা হয়েছিল, এই শিবির সাময়িক। বুধবার যে ক্যাম্প গুটিয়ে নেওয়া হবে, তা আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল। অথচ ক্যাম্পে বসবাসকারীরা এই ঠান্ডার মধ্যে কোথায় গিয়ে থাকবেন, সে বিষয়ে কোনও ঘোষণা দেওয়া হয়নি। ফলে বুধবার ক্যাম্প ছাড়ার সময় ক্ষুব্ধ বসবাসকারীরা সেখানে আগুন লাগিয়ে দেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
আশ্রয় হারানো এই শরণার্থীরা ইউরোপের প্রবল শীতে ফের জঙ্গলে গিয়ে থাকবেন। বসনিয়া-ক্রোয়েশিয়া সীমান্তে আরও বহু আশ্রয়হীন মানুষের সঙ্গে যোগ দেবেন তারা। ভাঙা বাড়ি, কারখানার শেডে দিন কাটাবেন। অভিযোগ উঠেছে, যে শিবিরে তারা ছিলেন সেখানেও বিদ্যুৎ ছিল না। ব্যবস্থা ছিল না হিটিংয়েরও।
বসনিয়ায় আটকেপড়া শরণার্থীদের এখনও পর্যন্ত আশ্রয় দিতে রাজি হয়নি ইউরোপের কোনও দেশ। বসনিয়াও স্থায়ীভাবে এই শরণার্থীদের রাখতে আগ্রহী নয়। যে কারণে, তাদের জন্য কোনও স্থায়ী ব্যবস্থাও করা হচ্ছে না। সূত্র: ডিডব্লিউ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বসনিয়া


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ