Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১২ জুন ২০২১, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, ৩০ শাওয়াল ১৪৪২ হিজরী

অলি বনাম প্রচন্ড, নেপালের রাজনৈতিক হাওয়া বুঝতে তৎপর চীন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ ডিসেম্বর, ২০২০, ৪:৩৪ পিএম

নেপালে গভীর রাজনৈতিক সঙ্কটের মধ্যে হাওয়া বুঝতে তৎপর হয়ে উঠেছে চীন। চীন কম্যুনিস্ট নেতাদের বিরোধ মিটিয়ে তাদেরকে একত্রে রাখার জন্য চূড়ান্ত চেষ্টা করতে পারে। চীনের রাষ্ট্রদূত হোউ ইয়ানছি এ বিষয়ে তৎপর হয়েছেন।

শাসক দল নেপাল কমিউনিস্ট পার্টির ভাঙনের পরিস্থিতির মধ্যে বুধবার বিকালে চীনের রাষ্ট্রদূত হোউ ইয়ানছি দেখা করেছেন প্রেসিডেন্ট বিদ্যাদেবী ভাণ্ডারীর সঙ্গে। যদিও নেপালের কোনও সরকারী সূত্র নিশ্চিত করেননি তবে একটি সূত্রের খবর অনুযায়ী তিনি ক্ষমতাসীন নেপাল কমিউনিস্ট পার্টির সহ-সভাপতি পি কে দহাল প্রচন্ডের সাথেও দেখা করেছিলেন। ইতিমধ্যে পার্লামেন্ট ভেঙে দিয়ে অন্তর্বর্তী নির্বাচনের দিকে দেশকে ঠেলে দিয়েছেন বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা ওলি। তবে নেপাল কমিউনিস্ট পার্টির দুই শীর্ষস্থানীয় নেতা পুষ্পকমল দহল (প্রচণ্ড) ও মাধবকুমার নেপাল এই পদক্ষেপকে ‘অসাংবিধানিক’ আখ্যা দেয়ায় এবং বিষয়টি সুপ্রিম কোর্টের সাংবিধানিক বেঞ্চের সামনে পৌঁছে যাওয়ায় ভোট নিয়েও চরম অনিশ্চয়তার সৃষ্টি হয়েছে।

নেপাল কমিউনিস্ট পার্টির দুই গোষ্ঠীই এখন দলের কর্তৃত্ব দাবি করছে। ওলির জায়গায় প্রচণ্ডকে বৃহস্পতিবার সংসদীয় দলের নেতা নির্বাচিত করা হয়েছে। বুধবারই দলের চেয়ারম্যানের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন ওলি। সেই পদে বসানো হয়েছে মাধবকুমার নেপালকে। পার্লামেন্ট ভেঙে দেয়ার জন্য ওলির বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ারও সিদ্ধান্ত নিয়েছে নেপাল কমিউনিস্ট পার্টির এই দল। প্রচণ্ড এ দিন বলেছেন, নতুন সরকার গড়ে তোলাই তার প্রথম লক্ষ্য। এ নিয়ে সব দলের সঙ্গে আলোচনা করবেন বলেও জানিয়েছেন তিনি। প্রচণ্ডের দল দাবি করেছে, কেন্দ্রীয় কমিটির ৪৪৬ জন সদস্যের মধ্যে ৩১৩ জনই তাদের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। অন্য দিকে, বুধবারই ওলি প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠক ডাকেন। তিনি জানিয়েছেন, ১১৯৯ জনের একটি নতুন কমিটি পরের বছর দলের সম্মেলন করতে চলেছে।

প্রধানমন্ত্রী ওলির সুপারিশে গত রোববার নেপালের পার্লামেন্ট ভেঙে ভোটের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ভাণ্ডারী। তবে সেই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে ১২টি আবেদন জমা পড়েছে। প্রধান বিচারপতি চোলেন্দ্র এসজেবি রাণা বৃহস্পতিবার মামলাগুলিকে পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চের সামনে পাঠিয়েছেন। শুক্রবার থেকে এর শুনানি শুরু হবে।

সুপ্রিম কোর্টে মামলা থাকায় ভোট নিয়ে অনিশ্চয়তার সৃষ্ট হয়েছে। পার্লামেন্ট ভেঙে দেয়ার পরেই ওলি তিন নির্বাচন কমিশনারকে ডেকে ভোটের প্রস্তুতি শুরু করতে বলেছিলেন। ৩০ এপ্রিল ও ১০ মে ভোটের দিন ঘোষণা হলেও বিভিন্ন জটিলতার কথা বলতে শুরু করেছেন মুখ্যনির্বাচন কমিশনার দীনেশ থাপালিয়া। তিনি বলেছেন, রাজনৈতিক পরিস্থিতি কোন দিকে মোড় নেয়, তার উপরেই ভোটের ভবিষ্যত নির্ভর করবে। নেপাল কমিউনিস্ট পার্টির প্রচণ্ড গোষ্ঠী এবং অন্য অনেক বিরোধী দল ওলির পদক্ষেপকে অসাংবিধানিক আখ্যা দিয়েছে। তারা ভোটে অংশগ্রহণ করবে কি না, তা-ও অনিশ্চিত। এই পরিস্থিতিতে প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার অযোধিপ্রসাদ যাদব বলেছেন, “এখনও পর্যন্ত অধিকাংশ দলই নতুন করে ভোটের বিরুদ্ধে। ভোট করতে গেলে নেপালে অতীতের মতো রাজনৈতিক সর্বসম্মতি জরুরি।” ভোটে যাওয়ার আগে করোনা পরিস্থিতি ও আর্থিক সঙ্কটের বিষয়টিও রাজনৈতিক-প্রশাসনিক স্তরে প্রশ্ন তুলে দিয়েছে।

এত দিন ধরে ওলির প্রশাসনের সঙ্গে সখ্য রেখে গিয়েছে চীন। ওলির ভারত-বিরোধী বেশ কিছু পদক্ষেপের পিছনে চীনের হাত দেখেছিলেন অনেকেই। এ বার নেপাল কমিউনিস্ট পার্টির ভাঙনের মধ্যে পরিস্থিতি বুঝতে তৎপর হয়ে উঠেছে বেইজিং। সূত্র: টিওআই।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নেপাল


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ