Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৭ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৫ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

কাশ্মীরে রাজনৈতিক সমাধান চায় ভারত

প্রকাশের সময় : ২৭ আগস্ট, ২০১৬, ১২:০০ এএম

২০টি দলের ৩শ’ প্রতিনিধির সাথে রাজনাথ সিংয়ের আলোচনা
ইনকিলাব ডেস্ক : ভারত-শাসিত কাশ্মীরে গত প্রায় দেড় মাস ধরে চলা সহিংসতার রাজনৈতিক সমাধানের জন্য ভারত যে কোনও দল বা গোষ্ঠীর সঙ্গেই আলোচনায় বসতে রাজি। শ্রীনগর সফরে গিয়ে স্থানীয় প্রায় তিনশ’ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব এবং সংগঠনের সাথে কথা বলার পরে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং গত বৃহস্পতিবার এই মন্তব্য করেছেন। জম্মু-কাশ্মীর রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি বলছেন, সেখানকার মাত্র ৫ শতাংশ মানুষ অশান্তি তৈরি করে চলেছে, ছোট ছোট বাচ্চাদের নিরাপত্তা বাহিনীর ওপরে আক্রমণ করতে পাঠানো হচ্ছে। নিরাপত্তারক্ষীদের গুলিতে বুরহান ওয়ানির নামে এক হিজবুল মুজাহিদিন কমান্ডারের মৃত্যু পর থেকে চল্লিশ দিনেরও বেশি সময় ধরে ভারত শাসিত কাশ্মীরে লাগাতার বিক্ষোভ চলছে। রোজই কোনও না কোনও এলাকায় বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষ হচ্ছে, বিক্ষোভকারীরা পাথর ছুড়ছে, আর আধাসামরিক বাহিনী ছুড়ছে ছররা।
এই পরিস্থিতিতেই এক মাসের মধ্যে দ্বিতীয়বার রাজধানী শ্রীনগরে গিয়ে সমস্যার রাজনৈতিক সমাধানের ওপরে জোর দিয়েছেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং। দু’দিন ধরে সেখানকার ২০টি রাজনৈতিক দলের প্রায় তিনশ’ প্রতিনিধির সঙ্গে আলাপ-আলোচনার পরে মিঃ সিং এক সংবাদ সম্মেলনে বৃহস্পতিবার জানান, “গণতন্ত্র, মনুষ্যত্ব আর কাশ্মীরের ভাবানুভূতির মধ্যে থেকে যে কেউ কথা বলার জন্য এগিয়ে এলে আমি আলোচনা করতে রাজি। যে কোনও দল বা গোষ্ঠীর সঙ্গেই কথা বলতে পারি আমি। এরপরে সর্বভারতীয় রাজনৈতিক দলগুলোর একটি সর্বদলীয় গোষ্ঠীও শ্রীনগরে আসবে, এখানকার সকলের সঙ্গে কথা বলবে।”
ভারত আর কাশ্মীরের ভবিষ্যৎ একে অন্যের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে। একটাকে বাদ দিয়ে অন্যটির ভবিষ্যৎ তৈরি হতে পারে না বলেও মন্তব্য করেন রাজনাথ সিং। সংবাদ সম্মেলনে পাশে বসা ভারত-শাসিত জম্মু-কাশ্মীর রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী উত্তেজিত স্বরে কিছুক্ষণ আগেই বলেছেন যে, ছোট ছোট বাচ্চাদের ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে নিরাপত্তাবাহিনীর ওপরে আক্রমণ চালানো হচ্ছে, লোভ দেখিয়ে পাথর ছোড়ার কাজে ব্যবহার করছে কিছু গোষ্ঠী। তারা রাজ্যের মাত্র ৫% মানুষ, বাকি ৯৫% মানুষই চান রাজ্যে শান্তি ফিরে আসুক। তবে রাজনাথ সিংয়ের গলায় শোনা গেছে অন্য সুর।
ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলছিলেন, “ছোট বাচ্চারা যদি পাথর তুলে নিয়েই থাকে, তাদের বোঝাতে হবে! কাশ্মীরের কিশোর-যুবকদের হাতে বই, কলম, কম্পিউটার থাকার কথা, কারা ওদের হাতে পাথর তুলে দিচ্ছে? তারা কি ওইসব কিশোরদের ভবিষ্যৎ তৈরি করার নিশ্চয়তা দিতে পারবে?”
কাশ্মীরে সাম্প্রতিক অশান্তি চলাকালীন প্রায় ৭০ জন নিহত হয়েছেন, আহত কয়েক হাজার। বেশিরভাগই কেন্দ্রীয় আধা-সামরিক বাহিনীর সদস্যদের ছোড়া ছররায় আহত, বহু মানুষ দৃষ্টিশক্তি হারিয়েছেন। ওই ছররা ব্যবহার নিয়ে ভারতশাসিত কাশ্মীরে ব্যাপক ক্ষোভও তৈরি হয়েছে।
রাজনাথ সিং বৃহস্পতিবার ঘোষণা করেছেন যে, কয়েকদিনের মধ্যেই ছররা ব্যবহার বন্ধ করে কোনও বিকল্প ব্যবস্থা তুলে দেয়া হবে নিরাপত্তারক্ষীদের হাতে। সূত্র : বিবিসি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ