Inqilab Logo

ঢাকা শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১, ২০ ফাল্গুন ১৪২৭, ২০ রজব ১৪৪২ হিজরী

মির্জাপুরে দুধ-চা দিতে না পারায় দোকানীর ওপর হামলা

ফুটন্ত পানিতে ঝলসে গেছে চা দোকানীর মুখ-হাতসহ শরীর

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৭ জানুয়ারি, ২০২১, ২:১৪ পিএম

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে চা দিতে দেরী হওয়ায় হামলা চালিয়ে দোকানীকে গুরুতর আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। হামলাকালে চা তৈরির ফুটন্ত পানি গাঁয়ে পড়ে ও ছিটকে দোকানীর মুখ-হাতসহ শরীরের একাধিক স্থানে জ্বলসে গেছে। চা দোকানী অজিত সরকার কুমুদিনী হাসপাতালের বিছানায় দগ্ধ যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছেন।
ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার সন্ধায় মির্জাপুর পৌর সদরের কালীবাড়ি রোডে (চিকনগলী)। হামলাকারী হলো মির্জাপুর বাজার কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক পোষ্টকামুরী গ্রামের শহীদুল আলম রতনের ছেলে নাফিউ।
এদিকে হামালাকারী ও তাদের পরিবারের নজরদারীর কারণে দরিদ্র ও নিরীহ পরিবারটি ভয়ে মুখ খুলতে এবং আইনের আশ্রয় নিতে পারছেন না বলে জানা গেছে। তবে বিষয়টি স্থানীয় এমপি সাবেক দুই মেয়র এবং আওয়ামী লীগ নেতা অবহিত রয়েছেন বলে আহত অজিত সরকার জানিয়েছেন।
জানা গেছে, পৌর শহরের বণিকপাড়ার বাসিন্দা রতন সরকারের ছেলে অজিত সরকার (৫০) কালীবাড়ি রোডের চিকনগলিতে দীর্ঘদিন ধরে ছোট একটি চায়ের দোকান করেন। বৃহস্পতিবার সন্ধায় নাফিউজ একই রোডে থাকা তাদের দোকান থেকে কর্মচারীকে দুধ চা নেয়ার জন্য অজিতের দোকানে পাঠান। দোকানে দুধ চা নেই রং চা আছে জানালে কর্মচারী ফিরে যান। কিছুক্ষণ পর এসে দুধ চা না থাকায় নাফিউ এসে দোকানী অজিত সরকারের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে লাথি ও কিল ঘুষি মারতে থাকে। এ সময় তার হাতের কেতলিতে থাকা চা তৈরির ফুটন্ত পানি পড়ে ও ছিটকে অজিতের মুখ-হাতসহ শরীরের একাধিক স্থান দগ্ধ হয়। আহত অজিত হাসপাতালে যাওয়ার চেষ্টা করলে নাফিউজের বাবা মির্জাপুর বাজার কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক শহীদুল আলম রতন তাকে বাধা দেন বলে অজিত জানিয়েছেন। পরে অজিতের লোকজন এসে তাকে কুমুদিনী হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করেন। অন্যদিকে হামলাকারী ও তার পরিবারের সদস্যদের নরজরদারীর কারণে আহত অজিত স্থানীয় এমপির সঙ্গে দেখা করতে এবং থানায় অভিযোগ করতে পারছে না বলে জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে নাফিউর বাবা শহীদুল আলম রতন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনাটি অপ্রত্যাশিত। আহত অজিতের চিকিৎসার খোঁজ খবর রাখা হচ্ছে। সুস্থ হলে স্থানীয়ভাবে বিষয়টি মীসাংসা করা হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ