Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১২ জুন ২০২১, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮, ৩০ শাওয়াল ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

অসম্ভবকেই ১০ নেপালি শেরপা সম্ভব করে দেখালেন

শীতকালে কে-টু জয়

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ জানুয়ারি, ২০২১, ১২:০১ এএম

‘মিশন ইমপসিবল’। শীতকালীন এই অভিযান শুরুর সময়ে যা প্রায় অসম্ভব বলেই মনে করেছিলেন অনেকে। কিন্তু শনিবার বিশ্বের দ্বিতীয় উচ্চতম কে-টু (৮৬১১ মিটার) শৃঙ্গ ছুঁয়ে সেই অসম্ভবকেই সম্ভব করে দেখালেন ১০ জন নেপালি শেরপার একটি দল। সেই সঙ্গে তারা পর্বতারোহণে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করলেন।
বিশ্বের ১৪টি আট হাজারি শৃঙ্গের মধ্যে শীতকালে কে-টু শৃঙ্গই এত দিন অধরা ছিল। এই শৃঙ্গে অভিযান চালাতে গিয়ে পর্বতারোহীদের মৃত্যুহার অনেক বেশি। সেই সঙ্গে শীতকালীন আবহাওয়া একে আরও দুর্গম এবং এত দিন অভেদ্য করে রেখেছিল। তবে প্রকৃতির সঙ্গে লড়াই করে শনিবার পাকিস্তানের স্থানীয় সময় বিকেল ৫টা নাগাদ সেই শৃঙ্গ ছুঁয়ে ফেললেন ১০ নেপালি শেরপা— নির্মল পুরজা, গেলজে শেরপা, মিংমা ডেভিড শেরপা, মিংমা তেনজি শেরপা, দাওয়া তেম্বা শেরপা, পেম ছিরি শেরপা, মিংমা জি, কিলি পেম্বা শেরপা, দাওয়া তেনজিং শেরপা ও সোনা শেরপা। নির্মল পুরজা মাত্র ছ’মাসে ১৪টি আট হাজারি শৃঙ্গ জয় করে রেকর্ড করেছেন। সব ক’টি আট হাজারি শৃঙ্গজয়ী মিংমা জে এবং সর্বকনিষ্ঠ হিসেবে ১৪টি আট হাজারি শৃঙ্গজয়ী মিংমা ডেভিডও রয়েছেন এই দলে।

চলতি বছর শীতকালে অভিযান চালাতে ৬০ জন অভিযাত্রী ও শেরপাসহ চারটি দল পাকিস্তানের দিক দিয়ে কে-টু বেসক্যাম্পে পৌঁছেছিল। তার পরে খারাপ আবহাওয়ার মুখোমুখি হতে হয়েছে তাঁদের। হাওয়ার দাপটে ক্যাম্প টু থেকে জিনিস উড়ে গিয়েছে, এমনও ঘটেছে। এর পরে চারটি দলের মধ্যে থেকে বাছাই ১০ জনের শেরপা দল শনিবার রাত ১টা নাগাদ সামিটের উদ্দেশে রওনা হয়। ধরা হয়েছিল, ১২ ঘণ্টায় তারা সামিটে পৌঁছবেন। তবে আরও কিছুটা সময় নিয়ে, পাকিস্তানের স্থানীয় সময় বিকাল ৫টায় সামিট করেন তারা। ১০ জনই যাতে একসঙ্গে শৃঙ্গে পৌঁছন, সে জন্য দলের কয়েক জন সদস্য সামিটের ১০ মিটার আগে অন্যদের জন্য অপেক্ষা করেন। নেপালি জাতীয় সঙ্গীত গাইতে গাইতে তারা শৃঙ্গ স্পর্শ করেন বলে জানা গিয়েছে। তবে এ দিনই ক্যাম্প ১ থেকে কে-টু বেসক্যাম্পে ফেরার পথে সেরগেই মিনগোতে নামে এক স্পেনীয় অভিযাত্রী মারা গিয়েছেন।

নেপালের পর্বতারোহণ আয়োজনকারী সংস্থা ‘সেভেন সামিট’-এর একটি বড় দল এ বারের শীতকালীন কে-টু অভিযানে অংশ নিয়েছিল। তাদের মধ্যে এক জন শেরপা রয়েছেন ১০ জনের এই বিজয়ী দলে। এ দিন নেপাল থেকে ওই সংস্থার পক্ষে থানেশ্বর গুরাগাই বলেন, ‘পর্বতারোহণ এবং নেপালের জন্য এটা সবচেয়ে বড় খবর। ১০ জনই যাতে একসঙ্গে চ‚ড়ায় আরোহণ করতে পারে, তাই দলের কয়েক জন প্রায় ২০-২৫ মিনিট সামিটের আগে অপেক্ষা করেছেন বলে জানতে পেরেছি। তবে অক্সিজেন সিলিন্ডার ছাড়া কেউ সামিট করলেন কি না, তা এখনও জানা যায়নি।’ তিনি আরও জানিয়েছেন, সামিট ছুঁয়ে এ দিন রাতে তাদের ক্যাম্প থ্রি-তে ফিরে আসার কথা রয়েছে। নেপালি শেরপাদের এই সাফল্যে খুশি, তেনজিং নোরগের ছেলে জামলিং নোরগে এ দিন দার্জিলিং থেকে ফোনে বলেন, ‘দারুণ খবর। তবে এই অভিযান থেকে যেটা শেখার তা হল টিম স্পিরিট। আজকাল নিজের জন্য সামিট করতে চান পর্বতারোহীরা। অন্যের জন্য ভাবার সময় নেই। অথচ এই শেরপারা একে অপরের অপেক্ষা করেছেন, একটা দল হিসেবে সামনে এগিয়েছেন, কেউ একা কৃতিত্ব নিতে চাননি। আগামী প্রজন্মের এদের দেখে শেখা উচিত।’ সূত্র : রয়টার্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নেপাল


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ