Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১১ ফাল্গুন ১৪২৭, ১১ রজব ১৪৪২ হিজরী

তিন দিনেও ধরা পড়েনি খুনি

কক্সবাজারের ঈদগাঁওতে জমির সীমানা বিরোধকে কেন্দ্র করে মা-মেয়ে খুন

কক্সবাজার ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২১ জানুয়ারি, ২০২১, ৪:৫৯ পিএম

জোড়া খুনের ঘটনা দিয়েই যেন শুরু হল কক্সবাজার সদরের নতুন থানা ঈদগাঁও এর যাত্রা। থানা উদ্বোধনের আগের রাতে মা-মেয়ে জোড়া খুনের ঘটনা চমকে দিয়েছে এলাকাবাসীকে।

২০ জানুয়ারী ছিল কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও নতুন থানার উদ্বোধন। প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। কিন্তু থানা উদ্বোধনের আগের রাতে ঘটে মা-মেয়ে জোড়া খুনের ঘটনা।

ওই রাতে সদরের ইসলামাবাদ ইউনিয়নে উত্তর লরাবাঁক চরপাড়ায় জমির সীমানা বিরোধকে কেন্দ্র করে মা-মেয়েকে কুপিয়ে হত্যা করে এক পাষান্ড। হত্যাকান্ডের পর তিন দিন অতিবাহিত হলেও ধরে পড়েনি খুনি আবুল কালাম।

১৯ জানুয়ারি ২০ ইং রাত ৮টায় ইসলামাবাদ ইউনিয়নের চর পাড়ায় এ হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটেছে। স্থানীয়
সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরে আবুল কালাম গং ও আজিজুল হক গং এর মধ্যে বসত-ভিটার সীমানা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল।

তারই ধারাবাহিকতায় সর্বশেষ ১৭ জানুয়ারি বিবাদমান দু'পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে মঙ্গলবার রাতে মৃত জাফর আলমের পুত্র অটোরিকশা চালক আবুল কালাম (২৭) তার বসত ঘরের সীমানায় (টেংরা) ঘেরা দেখে ক্ষেপে যায়।

তখন ধারালো দা দিয়ে আজিজুল হক বাবুর্চীর স্ত্রী রাশেদা বেগম (৩৬) ও তার স্কুল পড়ুয়া মেয়ে জান্নাতুল ফেরদাউস (১৪) কে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর জখম করে।

মা-মেয়ের সুর চিৎকারে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে তাদেরকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মা-মেয়েকে মৃত ঘোষণা করেন।
স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার সাইফুল ইসলাম বলেন, তাদের মধ্যে সীমানা বিরোধ নিয়ে দ্বন্দ্ব বিরাজমান ছিল আগে থেকেই।

খবর পেয়ে ঈদগাঁও তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মোঃ আবদুল হালিমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে খুনের কাজে ব্যবহৃত ধারালো দা এবং খুনি আবুল কালামের অটোরিকশাটি জব্দ করে।
ওসি আবদুল হালিম এপ্রসঙ্গে জানতে চাইলে জানান, যেরাতে ঘটনা হয়েছে তখন তারা ঈদগাঁও নতুন থানা উদ্বোধন এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সফর নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। এছাড়াও সদর থানায় নিহত পরিবারের পক্ষ থেকে একটি এজাহার দায়ের করা হয়েছে। এটি আজ মামলা হিসেবে নেয়া হবে। আসামি গ্রেপ্তারের জন্য সব ধরনের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে বলে তিনি জানান।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ