Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১১ ফাল্গুন ১৪২৭, ১১ রজব ১৪৪২ হিজরী

বিচারকের প্রতি অশোভন আচরণ

অ্যাডভোকেট সিরাজ প্রামাণিক | প্রকাশের সময় : ২৪ জানুয়ারি, ২০২১, ১২:০২ এএম

জনগণের অর্থেই লালিত-পালিত হয় পুলিশ এবং পুলিশের সমস্ত ব্যয় জনগণের অর্থেই মেটানো হয়ে থাকে। মানুষের সামগ্রিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দায়িত্ব তাদেরই। অথচ রাষ্ট্রের পুলিশ জনগণের পক্ষে কতটা তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। পুলিশের বিরুদ্ধে আইন না মানার অভিযোগ নতুন নয়। যারা আইনের প্রয়োগ ঘটাবে, তারা নিজেরাই যদি আইন না মানে তবে সমাজে আইনের শাসন নিশ্চিত হতে পারে না। পত্রিকার পাতায় খবর এসেছে, নির্বাচনী দায়িত্ব পালনকালে কুষ্টিয়ার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. মহসিন হাসানের সঙ্গে জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) এস এম তানভীর আরাফাত অনৈতিক ও বেআইনি কার্যকলাপ, আক্রমণাত্মক ও বিশৃঙ্খলামূলক আচরণ দ্বারা ভয়ভীতি প্রদর্শন ও সরকারি দায়িত্বপালনে পদমর্যাদার অপব্যবহার করেছেন। বিচারক কর্তৃক ওই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্বাচন কমিশনে দাখিল করা একটি আবেদনের কপি সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া আবেদনের অনুলিপি আইন মন্ত্রণালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও পুলিশের আইজির দফতরেও পাঠানো হয়েছে।
আবেদনে কুষ্টিয়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. মহসিন হাসান জানিয়েছেন, ‘কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা পৌরসভা নির্বাচনে ১৪ জানুয়ারি থেকে ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত তিনি প্রথম শ্রেণির জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে নিয়োগপ্রাপ্ত হন। এরপর ১৬ জানুয়ারি তিনি দায়িত্বপালন অবস্থায় সকাল ১০টায় ভেড়ামারা পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে অবস্থানকালে জনৈক ভোটারের অভিযোগের ভিত্তিতে ভোটকেন্দ্রে প্রবেশ করেন। সেখানে কতিপয় ব্যক্তিকে ভোটকেন্দ্রের বুথের ভেতর লম্বা বেঞ্চে পোলিং এজেন্টদের সঙ্গে বসে থাকতে দেখেন। তখন তাদের পরিচয়পত্র দেখাতে বললে তারা পরিচয়পত্র না দেখিয়ে প্রিসাইডিং অফিসারের স্বাক্ষরিত এ-ফোর সাইজের কাগজ দেখান।’
‘ওই বিচারক সংশ্লিষ্ট প্রিসাইডিং অফিসারকে এ বিষয়ে কথা বলার জন্য বুথের বাইরে ডাকেন। কথা বলা শুরু করতেই ওই ভোটকেন্দ্রে কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এস এম তানভীর আরাফাতসহ ৪০-৫০ জন ফোর্সসহ প্রবেশ করেন। তিনি প্রবেশ করেই প্রিসাইডিং অফিসারকে উচ্চস্বরে তলব করেন। তাৎক্ষণিক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমানসহ কয়েকজন ফোর্স প্রিসাইডিং অফিসারকে ওই বিচারকের সাথে কথা বলতে না দিয়েই তাকে নিয়ে যাওয়ার জন্য চাপাচাপি করেন। তখন বিচারক নিজের পরিচয় দিয়ে বলেন প্রিসাইডিং অফিসারের সাথে একটি বিষয়ে কথা বলছেন। কথা শেষ হলে উনাকে নিয়ে যাওয়ার অনুরোধ করেন। এরপরও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান ধমক দিয়ে প্রিসাইডিং অফিসারকে বিচারকের সামনে থেকে নিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ সুপার তানভীর আরাফাত বিচারকের দিকে অগ্রসর হন এবং বিচারককে জিজ্ঞেস করেন আপনি কে? কী করেন এখানে?’
‘বিচারক পরিচয় দিলে তিনি আরও ক্ষিপ্তস্বরে বলেন, ‘আপনি এখানে কী করেন? বেয়াদব, বের হয়ে যান এখান থেকে।’ বিচারক পুলিশ সুপার ও তার ফোর্সদের আক্রমণাত্মক চরম অসৌজন্যমূলক ও মারমুখী আচরণে হতচকিত ও দিশেহারা হয়ে সেখানে দাঁড়িয়ে থাকেন। এরপর এসপিসহ তার সঙ্গী ফোর্সরা বিচারকের সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় বিচারককে উদ্দেশ্য করে একাধিকবার বলেন, এসব লোককে পাঠায় কে? বেয়াদব ছেলে। এখানে কাজ কী তার? বের হয়ে যান এখান থেকে। বিচারকের আবেদনে বলা হয়েছে, ‘পুলিশ সুপার ও তার সঙ্গী ফোর্সদের আচরণ স্থানীয় সরকার নির্বাচন বিধিমালা ২০১০ এর ৬৯, ৭০, ৭৪, ৮০ ও ৮১ বিধির সরাসরি লঙ্ঘন। তাই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রার্থনা জানান।’ এ ঘটনায় বুধবার (২০ জানুয়ারি) হাইকোর্টের বিচারপতি মামনুন রহমান ও বিচারপতি খিজির হায়াতের নেতৃত্বাধীন ডিভিশন বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে আগামী ২৫ জানুয়ারি তানভীর আরাফাতকে স্বশরীরে আদালতে উপস্থিত হয়ে এ বিষয়ে কারণ দর্শাতে বলেছেন। একইসঙ্গে তার বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগে কেন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না তা জানতে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।
এ বিচারককে আমি ব্যক্তিগতভাবে চিনি। তিনি অত্যন্ত মেধাবী ও মার্জিত ব্যক্তিত্বের অধিকারী। তাঁর সাথে এহেন আচরণ একটি পরিকল্পিত ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। পূর্বের কোনো একটি ঘটনা থেকেই পুলিশের এহেন আচরণ। বিচারকের আদেশ যখন পুলিশের ভয়ে বদলে যায়, তখন এধরনের আচরণে মর্মাহত হওয়ার কোনো কারণ আমি খুঁজে পাই না। বিচার বিভাগের সিনিয়র কর্মকর্তাদের মেরুদন্ড শক্ত করে দাঁড়াতে হবে। এ চেয়ে বেশি ব্যাখ্যা দিতে গেলে বিচার বিভাগের রোষানলে কিংবা পুলিশের রোষানলে পড়তে হবে।
সঠিকভাবে রোগ নির্ণয় রোগ নিরাময়ের পূর্বশর্ত। তেমনি পুলিশের এই বেপরোয়া আচরণের যৌক্তিক কারণ খুঁজে বের করাই, এর থেকে উত্তরণের উপায়। ক্ষমতায় থাকাকালে প্রত্যেক সরকারই মনে করে বিরোধী দল পেটানোর জন্য পুলিশকে অখুশি করা যাবে না। আর এ ফাঁকে পুলিশ আদায় করে নেয় গাড়ি, বাড়ি, জমি ইত্যাদি। কিন্তু তারাই যখন বিরোধী দলে যায়, তখন উল্টো পুলিশি নির্যাতনের শিকার হয়।
পুলিশ কর্তৃক আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারের ফলে জনগণের জানমালের ক্ষতি হলে পিআরবির ১৫৭নং রেগুলেশন অনুযায়ী এতদিন নিরপেক্ষ তদন্তের বিধান ছিল। বিগত বাবর মার্কা স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর কাছ থেকে পুলিশ কোনদিনই খালি হাতে ফেরেনি। পুলিশের গাড়ি, বাড়ি, জমিই শুধু নয়, এমনকি পুলিশ কর্তৃক মানুষ মারার লাইসেন্সও দেয়া হয়েছে তার আমলে। ৫ জুন ২০০৬ তারিখে জারিকৃত ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (সভা, সমাবেশ, মিছিল ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ) বিধিমালা ২০০৬-এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ। ওই বিধিমালার ১০নং বিধিতে পুলিশ কর্তৃক আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার তথা গুলিবর্ষণ করা হলে তার নিরপেক্ষ তদন্ত নয় বরং পুলিশি তদন্তের বিধান করা হয়েছে। ওই বিধিমালা পুলিশকে মানুষ মারার যে লাইসেন্স দিয়েছে, তা বাতিল করা না হলে পুলিশ শুধু মানুষ মারবে না, তা আইনসিদ্ধ বলেও অবলীলায় চালিয়ে দিতে থাকবে।
মেধাবী ছাত্র রুবেলকে পুলিশ নির্যাতনের মাধ্যমে হত্যা করে। হত্যাকারী পুলিশের কী হয়েছে, তা সবাই জানে। ওই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে বিচারপতি হাবিবুর রহমান খানের নেতৃত্বে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিশন গঠিত হয়েছিল। ওই তদন্ত কমিশন বিস্তারিত তদন্ত শেষে পুলিশের ক্ষমতার অপব্যবহার রোধকল্পে বেশ কিছু সুনির্দিষ্ট সুপারিশ পেশ করেছিল। এর মধ্যে অন্যতম হল জেলা পর্যায়ে পুলিশের ওপর জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের নিয়ন্ত্রণ এবং মেট্রোপলিটন এলাকায় পুলিশ বাহিনীর ওপর অনুরূপ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা। কিন্তু ওই সুপারিশ আজ পর্যন্ত আলোর মুখ দেখেনি।
১৭৫৭ সালে বাংলার ক্ষমতায় ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি আসীন হয়ে ১৭৯৩ সালে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত আইন করে জমিদারি প্রথা প্রচলন করে। জমিদাররা প্রকারান্তরে খাজনা আদায় ও তার অংশ কোম্পানিকে প্রদানের দায়িত্ব ছাড়া তার জমিদারির হর্তাকর্তা শাসক হিসেবে উদ্ভূত হন। ফলে জমিদারদের ক্ষমতায় কিছুটা ভাটা পড়লেও পুলিশের সহায়তায় তাদের আধিপত্য পূর্ণ মাত্রায়ই বজায় রাখতে সক্ষম হন। প্রজাদের স্বার্থ কিছুটা সংরক্ষণের প্রচেষ্টায় ব্রিটিশরাজ ১৮৮৫ সালে বেঙ্গল টেন্যান্সী অ্যাক্ট পাস করেন। ফলে জমিদাররা ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন ও ব্রিটিশরাজের কাছে তাদের অসুবিধার কথা তুলে ধরেন। খাজনা আদায়ের এবং প্রদেয় তদাংশ ব্রিটিশরাজকে পরিশোধ করার দায়িত্ব জমিদারদের থাকলেও খাজনা অনাদায়ের কারণে কাউকে শাস্তি দেয়ার ক্ষমতা জমিদারদের ছিল না। এ ধরনের নানা অসুবিধার কথা ভেবে এবং ঔপনিবেশিক শাসন পাকাপোক্ত ও চিরস্থায়ী করার উদ্দেশ্যে ব্রিটিশরাজ ১৮৯৮ সালে ফৌজদারি আইন (অ্যাক্ট নং ৫, যা সিআরপিসি নামে পরিচিত), যা মূলত একটি কালো আইন পাস করেন। উক্ত আইনের ৫৪ সেকশনে পুলিশকে ঢালাওভাবে কোনো গ্রেফতারি পরোয়ানা ছাড়া বা কোনো ম্যাজিস্ট্রেটের আদেশ ব্যতীত সন্দেহবশে কাউকে আদালতগ্রাহ্য অপরাধের জন্য গ্রেফতার করতে পারে সে ক্ষমতা দেয়া হয়। বলা বাহুল্য যে, সিআরপিসি ১৮৯৮-এর শতবর্ষ আগে জন্ম হয়েছিল জনকল্যাণে নয়, বরং নির্দয় একটি আইন হিসেবে ঔপনিবেশিকতার স্বার্থসিদ্ধির প্রেক্ষাপটে। শতবর্ষের বেশি হলেও এই নির্দয় আইনের তেমন কোনো পরিবর্তন হয়নি। আমাদের পবিত্র সংবিধানের বিধান প্রতিনিয়ত লংঘন হচ্ছে অথচ আমার সুশাসনের কথা বলছি। হাইকোর্ট বিভাগের গাইডলাইন সম্পর্কে অধিকাংশ জনগোষ্ঠি এখনও অজ্ঞ। ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে বা ৫৪ ধারায় যে কাউকে আটক, ১৬৭ ধারায় তথাকথিত স্বীকারোক্তি আদায়; অতঃপর অস্ত্র উদ্ধারে যাওয়া, কল্পিত ওঁৎ পেতে থাকা সন্ত্রাসীদের দ্বারা আক্রান্ত হওয়া এবং কর্তব্যরত অবস্থায় ব্যক্তিগত নিরাপত্তা বা আত্মরক্ষায় পাল্টা গুলি চালানো, এটা বাংলাদেশের পুলিশের নিত্ত-নৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। অর্থাৎ কোনো ব্যক্তিকে আটক করা হলে, আইনই হবে তার হেফাজতকারী। তাকে রক্ষা করার দায়িত্ব সম্পূর্ণই আইনের। এটাই মানবাধিকারের কথা। কিন্তু আইন রক্ষাকারী বাহিনী তা করছে না। ৫৪ ধারায় ধৃত ব্যক্তিকে আইন বা আইন রক্ষাকারী বাহিনী নিরাপত্তা দেয়নি বা দিচ্ছে না। বিচারকদের ভাবনা সময় এসেছে।
লেখক: বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী, আইনগ্রন্থ প্রণেতা ও সম্পাদক-প্রকাশক ‘দৈনিক ইন্টারন্যাশনাল’।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: অশোভন-আচরণ

২৪ জানুয়ারি, ২০২১
আরও পড়ুন