Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১২ ফাল্গুন ১৪২৭, ১২ রজব ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

পানিবদ্ধতামুুক্ত নান্দনিক নগরীর প্রত্যাশা

ইশতেহারে রেজাউলের ৩৭ শাহাদাতের ৯ দফা

চট্টগ্রাম ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৪ জানুয়ারি, ২০২১, ১২:০০ এএম

পানিবদ্ধতামুক্ত শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পরিবেশ ও ব্যবসাবান্ধব বিশ্বমানের উন্নত নান্দনিক নগরী গড়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী এম রেজাউল করিম চৌধুরী ও বিএনপির মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন

গতকাল শনিবার চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের বঙ্গবন্ধু হলে জনাকীর্ণ এক সংবাদ সম্মেলনে বন্দরনগরীকে পর্যটন রাজধানী হিসাবে গড়ে তোলাসহ ৩৭ দফা অঙ্গীকার করে নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করেন নৌকার প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরী। তিনি বলেন, নগরীর বিপুল জনগোষ্ঠীর ন্যুনতম সেবা দিতে পারাটাই আসল যোগ্যতা। সুযোগ পেলে নগরবাসীর জন্য নিজের মেধা-মনন উৎসর্গ করাই আমার আসল অঙ্গীকার।

এরপর নগরীর জামাল খানের একটি রেস্টুরেন্টে নয় দফা প্রতিশ্রুতি দিয়ে ইশতেহার তুলে ধরেন ধানের শীষের প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন। তিনি বলেন, নগর পিতা নয়-নগর সেবক হতে চাই। তিনি পরিচ্ছন্ন ও তথ্যপ্রযুক্তি সমৃদ্ধ নগরী গড়ে তোলার অঙ্গীকার করেন। বড় দুই দলের এই দুই মেয়রপ্রার্থী তাদের ইশতেহারে পানিবদ্ধতা ও যানজটকে প্রধান সমস্যা উল্লেখ করে নাগরিক দুর্ভোগ লাঘবে এসব সমস্যা সমাধানে দ্রুত উদ্যোগ নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। পাহাড় ও পরিবেশ সুরক্ষা করে খাল-নালা দখলমুক্ত করারও অঙ্গীকার করেন তারা। দুজনেই সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ, মাদক ও কিশোর গ্যাংমুক্ত শান্তির নগরী গড়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। দুই ইশতেহারে শিক্ষা ও স্বাস্থ্যখাতকে সমৃদ্ধ করতে নানা পরিকল্পনা তুলে ধরা হয়। গৃহকর সহনীয় রাখারও ওয়াদা করেন দুই প্রার্থী।

‘রূপসী চট্টগ্রাম আমার আপনার অহঙ্কার, অঙ্গীকার সবার যোগে সাজবে নগর’ স্লোগানে দেওয়া ইশতেহারে রেজাউল করিম চৌধুরী নির্বাচিত হলে ১০০ দিনের অগ্রাধিকার হিসাবে দুর্ভোগ লাঘবে সমস্যা চিহ্নিত করে দ্রুত তা সমাধানের উদ্যোগ নেবেন বলে জানান। তিনি বলেন, দক্ষিণ এশিয়ার প্রবেশদ্বার চট্টগ্রাম দেশের অর্থনীতির প্রাণভোমরা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ১২ বছরে চট্টগ্রাম অনেক দূর এগিয়েছে। প্রতিবেশী ভারতের সেভেন সিস্টার, চীনের কুনমিং শহর, নেপাল ও ভূটানের আমদানি-রফতানির ট্রানজিট পয়েন্ট হিসেবে ব্যবহার হবে চট্টগ্রাম। সকলের মিলিত প্রচেষ্টায় অতীতের সকল ভুল পরিহার করে চট্টগ্রামকে সর্বাধুনিক বাসোপযোগী বিশ্বমানের উন্নত ও নান্দনিক নগর হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। কর্পোরেশনকে সেবামূলক ও কল্যাণ-জনমুখী প্রতিষ্ঠান হিসেবে দাঁড় করাব। আমার পূর্বসুরী সাবেক সিটি মেয়র মরহুম এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী যে উচ্চতায় নগরীকে উন্নীত করেছিলেন তা পুনরুদ্ধার করে চলমান রাখবো এবং আয়বর্ধক প্রকল্পগুলো পুনরায় চালু করে কর্পোরেশনকে স্বনির্ভর করার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবো। এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ও প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ড. অনুপম সেন, চবির সাবেক ভিসি প্রফেসর আনোয়ারুল আজিম আরিফ, আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন প্রমুখ।

এদিকে ডা. শাহাদাত হোসেন স্বাস্থ্যকর, শিক্ষাবান্ধব, পরিচ্ছন্ন, নিরাপদ, নান্দনিক পর্যটন নগরী গড়ে তেলার অঙ্গীকার করেন। তিনি বলেন, নাগরিক অধিকার দিন দিন সঙ্কুচিত হচ্ছে। স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানসমূহ নাগরিকদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করে যদি অন্যান্য প্রতিষ্ঠানসমূহ বাধা হয়ে না দাঁড়ায়। এক্ষেত্রে সিটি কর্পোরেশনই পারে বিদ্যমান উন্নয়ন অংশীদার প্রতিষ্ঠানসমূহের সঙ্গে সমন্বয় সাধন করে নগরবাসীর দোরগোড়ায় উন্নয়ন পৌঁছে দিতে। নির্বাচিত হলে আমি আপনাদের সাথে নিয়ে এ প্রচেষ্টায় সফল হবো ইনশাআল্লাহ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিশেষ কর্মসূচির মাধ্যমে মাদকাসক্তির ঝুঁকি কমাতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নগরবাসীর সুবিধা নিশ্চিত করে পর্যটন সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে পর্যটন আকর্ষণে দেশি-বিদেশি সহযোগিতায় বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ, বিনোদন কেন্দ্র ইত্যাদি নির্মাণ করা হবে।

যাতায়াত সুবিধার জন্য পরিকল্পিত স্মার্ট নগরীর সৌন্দর্য রক্ষা করে আয়বর্ধক প্রকল্প বৃদ্ধিসহ বাস স্টপ নির্মাণ করা হবে। বন্ধ প্রতিষ্ঠানসমূহ চালু ও লাভজনক করার উদ্যোগ নেওয়া হবে। বায়ু দূষণ রোধে ইলেকট্রিক বাস সার্ভিস চালু করা হবে। নগরীর দীঘি ও লেক সমূহকে পর্যটন স্পটে পরিণত করা হবে। শিক্ষা ব্যবস্থাকে পুরোপুরি অটোমেশনের আওতায় এনে ছাত্র-ছাত্রীদের লেখাপড়ার মান উন্নয়ন, স্কুলে প্রবেশ, প্রস্থান, ক্লাস কার্যক্রমে অংশগ্রহণ ও পরীক্ষার ফলাফল সবকিছু যাতে অভিভাবকরা ঘরে বসে মোবাইলের মাধ্যমে মনিটরিং করতে পারে তার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, যুগ্ম মহাসচিব হাবিবুন্নবী খান সোহেল, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, বিএনপি নেতা জাফরুল ইসলাম চৌধুরী প্রমুখ।

অপরদিকে নগরীতে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রচার অব্যাহত আছে। শেষ সময়ে পথসভা, মতবিনিময়, গণসংযোগে ব্যস্ত মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। প্রচারে অপ্রীতিকর ঘটনাও থেমে নেই। প্রতিদ্ব›দ্বী প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘাতের ঘটনাও ঘটছে। বিএনপির নেতাকর্মীদের ধরপাকড়ের অভিযোগ করছেন দলের নেতারা। নগরীর ৩২টি ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আছেন। দলীয় প্রার্থীর মুখোমুখি তারা। এতে ভোটের মাঠে উত্তাপ বাড়ছে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা আজ রোববার চট্টগ্রাম আসছেন। সার্কিট হাউসে তিনি আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করবেন। আগামী ২৭ জানুয়ারি ভোট গ্রহণের যাবতীয় প্রস্তুতিও এগিয়ে চলছে।

ব্যবসায়ীদের সাথে রেজাউলের মতবিনিময়
নৌকার প্রার্থী রেজাউল করিমকে বিজয়ী করার আহ্বান জানিয়েছেন ব্যবসায়ী নেতারা। গতকাল নগরীর আগ্রাবাদের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে তার সঙ্গে ব্যবসায়ীদের এক মতবিনিময় সভায় স্বাগত বক্তব্যে ‘সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদ চট্টগ্রাম’র আহ্বায়ক চিটাগাং চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, সরকারের সফলতা ও উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষায় রেজাউল করিম চৌধুরীকে জয়যুক্ত করার কোনো বিকল্প নেই। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ও আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া। বিশেষ অতিথি ছিলেন নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, চেম্বারের সাবেক সভাপতি এসএম আবুল কালাম। এতে বিভিন্ন চেম্বার, বিজিএমইএ, বিকেএমইএ, নগরীর বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠন, মার্কেট সমিতির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ বিপুল সংখ্যক ব্যবসায়ী উপস্থিত ছিলেন।



 

Show all comments
  • ম নাছিরউদ্দীন শাহ ২৪ জানুয়ারি, ২০২১, ১:৪৫ এএম says : 0
    উন্নয়ন অগ্রগতি দৃশ্যমান বীর চট্টলা মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর প্রার্থী চট্টগ্রামের ইতিহাসে সব চায়তে গ্রহনোযোগ্য উপযুক্ত সৎ ত‍্যাগি আদশ‍্যবান বয়োজ্যেষ্ঠ রাজনৈতিক নেতা দিয়ে ছেন। চট্টগ্রামের মানুষ নির্বাচিত করে চট্টগ্রামের উন্নয়ন গতিধারা অব‍্যাহত রাখবেন। মাননীয় প্রধান মন্ত্রী বরাবরে দাবী কি জানাবেন চট্টগ্রাম নতুন দিগন্তের সাজে সজ্জিত মাষ্টার প্লানমাফিক বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতি হচ্ছেকি? নগর পরিকল্পনাবীদ পানি বিশেষজ্ঞ দিয়ে। চট্টগ্রামের ১নং সমস্যা জলবদ্ধতা নিরাসনের মাধ্যমে হচ্ছে কি? মনোনীত মেয়র প্রার্থী বিজয়ের মাধ্যমে চট্টগ্রামের জল বদ্ধতার এই নিরসনের পকৃত পরিকল্পন বাস্তব চিত্র মাননীয় প্রধান কাছে নিকট জানানো জরুরী। চট্টগ্রামের দুঃখ বর্ষাকালে বৃষ্টির পানিতে বন‍্যার সমস্ত পানি সড়ক মহাসড়ক ডেউ অলিগলিতে বন‍্যা সৃষ্টি হয়। প্রায় ২৮বসর আগের প্লানে বহদ্দার হাট সংলগ্নহয়ে অপরিকল্পত ভাবে পূর্বর্ষোলশহর বাকলিয়া দিয়ে কর্ণফুলি নদী পযর্ন্ত১২০ফুট প্রস্থ মাঝেই ৬০ফুটখাল খননের পক্রিয়া প্রায় চুড়ান্ত অদিগ্রহন চলছে। এটি দিয়ে জলবদ্ধতা বৃষ্টির পানির বন‍্যার সমাদান হবেনা হবেনা। এইখাল দিয়ে চট্টগ্রামে রজলবদ্ধতা শেষ হবে? পরিপূর্ণ নগর পরিকল্পনাবীদ নগর বিশেষজ্ঞ দ্ধারা এটি কি পরিক্ষিত প্রকল্প? চট্টগ্রামের পানি জল বদ্ধতার প্রয়োজনে পরিকল্পনা অনুযায়ী হাজার কোটি টাকা খরচ করলে বন‍্যা ও জলবদ্ধতা হতে চট্টগ্রামের মানুষের মুক্তি পারেন? উপকার হবে? অপরিকল্পিত খান খনন বন্ধ করুন। নগর পরিকল্পনাবীদ বিশেষজ্ঞ দ্বারা চট্টগ্রামের জল বদ্ধতা নিরাসন সম্ভব। এর বাস্তবায়ন নতূন নগর পিতা পারবেন ইনশাআল্লাহ। দেশের জাতীয় স্থানিয় পত্রিকায় পরিপূর্ণ অনুসন্ধানী প্রতি বেদন প্রকাশ করলে সরকারের হাজার কোটি টাকাঅপচয় বন্ধ হবে ।আমার ক্ষুদ্র মতামত রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ পরিকল্পনা কারি চট্টগ্রামের আগামীর নগর পিতার প্রতি শ্রদ্ধাভরে রইল। মতামতের মাঝে আমার জ্ঞানের অজ্ঞতার কারণে ভুল হলে ক্ষমা প্রার্থী। শিরোনাম পানিবদ্ধতা নান্দনিক চট্টগ্রামের নগরীর প্রত‍্যাশায়। সেটিহওয়া প্রয়োজন অবশ্যই মাষ্টার প্লানমাফিক
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন
আরও পড়ুন