Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭, ১৪ রজব ১৪৪২ হিজরী

দেশে ৪২ শতাংশ মানুষ দরিদ্র

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ জানুয়ারি, ২০২১, ১০:১৮ এএম

বদলে গেছে মানুষের জীবন। অর্থনৈতিক সংকটের কারণে অনেকে খাদ্য তালিকা থেকে বাদ দিয়েছেন অনেক খাবার। আবার অনেকে কমিয়ে দিয়েছেন খাবারের সময়সীমা। আগে যারা তিন বেলা খেতেন তারা এখন এক বেলা খান। মানুষের আয় কমে গেছে ব্যাপকহারে। অন্যদিকে সব কিছু দাম বেড়েছে কয়েকগুণ।

এদিকে দেশে দারিদ্র্যের হার ২৪ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে বেড়ে ৪২ শতাংশ হয়েছে। দেশব্যাপী খানা পর্যায়ের জরিপের ভিত্তিতে এ তথ্য প্রকাশ করেছে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকোনমিক মডেলিং (সানেম)।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো’র (বিবিএস) খানা জরিপে, ২০১৬ সালে গ্রামাঞ্চলের সার্বিক দারিদ্র্য ছিল ২৬ দশমিক ৪ শতাংশ, ২০১৮ সালের জিইডি-সানেম জরিপ অনুসারে যা ছিল ২৪ দশমিক ৫ শতাংশ। কিন্তু করোনার প্রভাবে ২০২০ সালে এই হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৫ দশমিক ৩ শতাংশ। শহরাঞ্চলে সার্বিক দারিদ্র্যের হার ২০১৬ সালে ছিল ১৮ দশমিক ৯ শতাংশ, ২০১৮ সালে ছিল ১৬ দশমিক ৩ শতাংশ আর করোনার সময়ে ২০২০ সালে তা দাঁড়িয়েছে ৩৫ দশমিক ৪ শতাংশ।

দারিদ্র্য ও জীবিকার ওপর কোভিড-১৯ মহামারির প্রভাব শীর্ষক এক ভার্চ্যুয়াল অনুষ্ঠানে শনিবার এই জরিপের ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে।

জরিপে উল্লেখ করা হয়েছে, ২০২০ সালে দেশে আনুষ্ঠানিকভাবে রেমিট্যান্স বা প্রবাসীয় আয়ের ব্যাপক প্রবৃদ্ধি হলেও ব্যক্তিক পর্যায়ে কমেছে। কারণ হিসেবে বলা হয়, অনানুষ্ঠানিক প্রবাহ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আনুষ্ঠানিকভাবে প্রবাসী আয় এসেছে। এতে বিনিময় হার কমে গেছে। ৮২ দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ পরিবার বলেছে, দেশের বাইরে থেকে আসা প্রবাসী আয় কমেছে। একই ক্ষেত্রে আগের মতো আছে বলেছে ১৭ দশমিক ৬৬ শতাংশ পরিবার। ফলে প্রবাসী আয়ের প্রভাব সমাজে অতটা অনুভূত হয়নি, যতটা বলা হয়েছে, সে তুলনায়।

জরিপের ফলাফল তুলে ধরেন সানেমের গবেষণা পরিচালক অধ্যাপক ড. সেলিম রায়হান বলেন, জরিপ পরিচালনার খরচ আছে। তবে তহবিল পাওয়া না গেলেও সানেম নিজস্ব অর্থায়নে জরিপটি পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেয়। তার ভাষ্যমতে, এটা না হলে আমরা একটি পরিপ্রেক্ষিত হারিয়ে ফেলতাম। সেই তাড়না থেকেই এই জরিপ। দারিদ্র্য, অসমতা ও কর্মসংস্থান এই তিনটি ক্ষেত্রে কোভিডের প্রভাব নিরূপণ করা হয়েছে বলে জানান সেলিম রায়হান।



 

Show all comments
  • Monjur Rashed ২৪ জানুয়ারি, ২০২১, ১১:৩৮ এএম says : 0
    Amazing report when the whole nation is floating over high tide of development
    Total Reply(0) Reply
  • MOHAMMED+ISMAIL+KABIR+AHMED ২৪ জানুয়ারি, ২০২১, ১১:৪১ এএম says : 0
    prime minister or awamileage bolece bangladesh bisshobashir jonno unnouner road modle bole gorbo kore tar shate ei jorif milate parcina thanks
    Total Reply(0) Reply
  • ম নাছিরউদ্দীন শাহ ২৪ জানুয়ারি, ২০২১, ১:২৪ পিএম says : 0
    এটি বাংলাদেশের অর্ধেক মানুষ কে গরিবদের তালিকায় পেলার জরিপের পরিপূর্ণ কর্মসূচি কি? ধনী গরিবদের পার্থক্য করার সিদ্ধান্ত কৌশল কি?? দেশের আটকোটির অধিকমানুষ গরিবদের তালিকায় বিশ্বাসকিভাবে করবো?? এই দেশের গরিবশ্রেণি বলতে বুঝি যারা ভিক্ষুক শ্রেণি যাদের আয় ইনকামের ব‍্যবস্থা নেই। আবার তাদের কিন্তু ইনকাম ভালনা হলেও খাবার মধ‍্যবক্তি শ্রেণির চায়তেও ভাল। চট্টগ্রামের মাঝেই গরিবদের সংখ্যা নগন‍্য এদের চিহ্নিত করতে পারি আমরা বিভিন্ন ভাবে এদের সাহায্য দিয়ে থাকি। এভাবেই চট্টগ্রামে কতজন গরিবের তালিকায় পড়বে। নিশ্চয়ই ৪২%শতাংশ হবেনা। ১%শতাংশ হবেকিনা সন্দেহ। আমার মনে হয় জরিপ কারী ব‍্যাক্তি বেসরকারী প্রতিষ্টান সাউথ এশিয়ান ইকোনমিনিনিয়ে মডেলিং করেছে। পকৃত জরিপের কাছাকাছি ছিলনএরা রাজনৈতিকউদ্দেশ্যে বা আন্তর্জাতিক কোন উদ্দেশ্যে হতেপারে অনকোন উদ্দেশ্যে। হতেপারে ঘরে বসে কম্পিউটার এর মাধ্যমে মনগড়া তথ্য। একটি জাতির অর্ধেক কাছেই মানুষ কে ভিক্ষুকের জাতি বানিয়ে জাতীয় পত্রিকায় এক বৃদ্ধ অসহায় মায়ের ছবি দিয়ে শিরোনাম বাংলাদেশের ৪২ শতাংশ মানুষ গরিবের তালিকায় এটি বিশ্বাস যোগ্য হলো? আমার মনে সরকারের দায়িত্বশীল ব‍্যাক্তিরা এই ধরনের জরিপ প্রকাশ করার আগেই সরকারের সাথে আলোচনা করে প্রকৃত সত‍্য.জানতে পারতেন।আন্তর্জাতিক শিরোনাম করে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার ষড়যন্ত্র কিনা তাহা জানা জরুরী। সরকারের কি প্রতিক্রিয়া হয় জানিনা।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন