Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১০ কার্তিক ১৪২৮, ১৮ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

জবির আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের ন্যক্কারজনক হামলা : আহত ২০

প্রকাশের সময় : ২৯ আগস্ট, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ছাত্রলীগের ইতিবাচক সংবাদ বয়কটের সিদ্ধান্ত
জবি সংবাদদাতা : কেন্দ্রীয় কারাগারের জমিতে হল নির্মাণের দাবিতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ডাকা ধর্মঘটে আন্দোলনরত সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালিয়েছে জবি ছাত্রলীগ। এসময় অনলাইন নিউজ পোর্টাল লেখাপড়া২৪.কম-এর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি মাছুম বিল্লাল আখন্দ এবং ২ জন ছাত্রীসহ অন্তত ২০ জন আহত হন। হামলার প্রতিবাদে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে আজ নয়াবাজার সড়ক অবরোধ করে ছাত্র ধর্মঘট পালন করবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। গতকাল শাহবাগে এক সমাবেশে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে ধর্মঘটের প্রথম দিনে গতকাল রোববার সকাল ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে জড়ো হন শিক্ষার্থীরা। সেখান থেকে সকাল ১০টায় মিছিল নিয়ে শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসের বাইরে অবস্থান নিতে গেলে জবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি এফ এম শরিফুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক এস এম সিরাজুল ইসলাম এবং তাদের অনুগত ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা আন্দোলনের নেতৃত্ব গ্রহণ করতে চায়। কিন্তু সাধারণ শিক্ষার্থীরা ছাত্রলীগের হাতে নেতৃত্ব দিতে রাজি না হওয়ায় ছাত্রলীগ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় কিল, ঘুষি ও লাথি মারার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের ওপর লাঠিসোটা নিয়েও হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ করেছেন শিক্ষার্থীরা। এ সময় লেখাপড়া২৪.কমের সাংবাদিক ও ২ জন ছাত্রীসহ অন্তত ২০ জন শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে গুরুতর আহতরা হলেনÑ ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের ১০ম ব্যাচের ছাত্র তমিজ উদ্দিন, আইন বিভাগের ১০ম ব্যাচের ছাত্রী চৈতালী চৈতী, অনিমেষ রায়, জিসান, গণিত বিভাগের প্রসেনজিৎ, রুহিয়া সুলতানা ঝুমুর, সাংবাদিকতা বিভাগের মুজাহিদুল ইসলাম অনিক, ভূগোল বিভাগের মেহরাব আজাদ, ইসলাম শিক্ষা বিভাগের গোলাম রাব্বি ও আল আমিন। আহতদের ঢাকা ন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ ও সুমনা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। আহত সাংবাদিক মাছুম জানান, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার সময় তিনি মোবাইলে ছবি তুলছিলেন। এ সময় জবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলামসহ কয়েকজন ছাত্রলীগ কর্মী তাকে বেধড়ক কিল-ঘুষি ও লাথি মেরে আহত করে। এসময় হামলাকারীরা তার মোবাইল ও মানিব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে যায়। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন প্রতিবেদক এসময় সংবাদ সংগ্রহ এবং ছবি তুলতে গেলে ছাত্রলীগের রোষানলে পড়তে হয় বলে অভিযোগ করেন। এনটিভি অনলাইনের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি শাহ আলম বেপারী বলেন, ‘আমি আমার পেশাগত দায়িত্ব পালনে ছবি তুলতে গেলে শাখা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত নেতা আনিসুর রহমান শিশির আমার মোবাইল কেড়ে নেয় এবং গালাগাল করেন।’ হামলার শিকার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী জবি ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি আল আমিন জানান, ‘ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা আমাকে গলা টিপে দম বন্ধ করে ফেলার পাশাপাশি বৃষ্টির মতো কিল-ঘুষি মেরে আহত করে। তারা অনেক ছাত্রীর ওপরও হামলা করেছে।’ এদিকে সাংবাদিককে আহত করার প্রতিবাদে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি জবি ছাত্রলীগের সব ইতিবাচক সংবাদ বয়কটের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রোববার দুপুরে সাংবাদিক সমিতির কার্যালয়ে এক জরুরি সাধারণ সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পাশাপাশি সাংবাদিক সমিতি কর্তৃক বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করা হয়। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. নূর মোহাম্মদ বলেন, মারামারির ঘটনাটি শুনেছি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে। উল্লেখ্য, গত ২ আগস্ট থেকে রাজধানীর নাজিমুদ্দিন রোডে অবস্থিত প্রাক্তন কেন্দ্রীয় কারাগারের জমি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়কে হস্তান্তর এবং সেখানে নতুন হল নির্মাণের দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা। গত শুক্রবার আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জাতীয় শহীদ মিনারে কেন্দ্রীয় কারাগারের জমিতে হল নির্মাণের দাবিতে সংহতি সমাবেশ পালন করেন। সেখান থেকে তারা রোববার ও সোমবার ধর্মঘটের ডাক দেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জবির আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগের ন্যক্কারজনক হামলা : আহত ২০
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ