Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১৫ ফাল্গুন ১৪২৭, ১৫ রজব ১৪৪২ হিজরী

শরীয়তপুরের জাজিরায় প্রতিপক্ষের গুলিতে নিহত-১, আহত ২

শরীয়তপুর সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১, ৫:৪২ পিএম

জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে শরীয়তপুরের জাজিরায় প্রতিপক্ষের হামলায় এক অটোবাইক চালক গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছে। একই ঘটনায় আরও দুই জন গুলিবিদ্ধ হয়ে মারাত্মক আহত হয়েছে। আহতদের চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে ৬ জনকে আটক করেছে জাজিরা থানা পুলিশ। এই ঘটনায় জাজিরা থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। পরিস্থিতি শান্ত রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

জাজিরা থানা ও নিহতের স্বজন মুজাম্মেল মাদবর জানায়, উপজেলার পশ্চিম নাওডোবা তাহের মল্লিক কান্দি গ্রামের জুলহাস বেপারী ও কালামিয়া মল্লিকের সাথে দীর্ঘদিন যাবত জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। বিরোধ মীমাংসায় ২৭ জানুয়ারী বুধবার সকাল ৯টায় শালিস-দরবার হওয়ার কথা ছিল। জুলহাস বেপারীর পক্ষ শালিস-দরবারে উপস্থিত না হওয়ায় শালিসগণ উভয় পক্ষের সাথে কথা বলে আগামী ৪ ফেব্রæয়ারী পুণরায় শালিস দরবারের তারিখ নির্ধারণ করেন। সকাল সারে ১০টার দিকে কালামিয়া মল্লিক বিরোধীয় জমিতে ভ্যাকু দিয়ে মাটি কাটতে গেলে সাবেক চেয়ারম্যান জলিল গোমস্তার ভাগ্নে জুলহাস বেপারী ও তার লোকজন আগ্নেয় অস্ত্র ও দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে কালামিয়া মল্লিক ও তার লোকজনের উপর হামলা চালায়। এই সময় শর্টগানের গুলিতে তৈয়ব আলী মল্লিকের ছেলে অটোবাইক চালক ফোরহাদ মল্লিক (২৮), রেজু মল্লিক ও দিদার মুন্সী গুলিবিদ্ধ হয়ে মারাত্মক আহত হয়। স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফোরহাদকে মৃত ঘোষণা করে। অপর আহত ২ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে।

স্থানীয় লাভলু মল্লিক জানায়, জুলহাস বেপারী, স্থানীয় সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল গোমস্তা ও তার সমর্থকরা কালামিয়া মল্লিকের লোকজনের উপর হামলা চালায়। এই সময় হামলাকারীরা গুলি করে ফোরহাদ মল্লিককে হত্যা করেছে। আমরা হত্যাকারীদের বিচার দাবী করছি।
স্থানীয় সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল জলিল গোসস্তা বলেন, দীর্ঘদিন যাবত ব্যবসার কাজে আমি মাদারীপুর অবস্থান করছি। শুনেছি দুই পক্ষের মারামারিতে ১ জন নিহত হয়েছে। ঘটনার পর নিহতের স্বজনরা ঠান্ডু ফকির, সুলতান বেপরী, বাদশা হাওলাদারের বাড়ি-ঘর সহ বেশ কয়েকটি বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করেছে। এর বেশী কিছু আমি জানি না।

জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: মাহামুদুল হাসান বলেন, প্রাথমিক ভাবে ধারণা করছি গুলিবিদ্ধ হয়ে ফোরহাদের মৃত্যু হয়েছে। ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।
জাজিরা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: আজহারুল ইসলাম সরকার বলেন, প্রতিপক্ষের হামলায় শর্টগানের গুলিতে একজন নিহত হয়েছে। এই ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে ৬ জনকে আটক করেছি। এই বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে। মামলা হলে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নিহত


আরও
আরও পড়ুন