Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ১৯ ফাল্গুন ১৪২৭, ১৯ রজব ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ইসলামে বঙ্গবন্ধুর অবদান অনস্বীকার্য: ইসলামী শিক্ষা প্রসারে তিনি ছিলেন নিবেদিত

‘ইসলামে বঙ্গবন্ধুর অবদান’ শীর্ষক আলোচনা সভায় সাব্বির আহমেদ মোমতাজি

রংপুর থেকে স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৭ জানুয়ারি, ২০২১, ৫:৪৭ পিএম

মাদরাসা শিক্ষকদের সংগঠন বাংলাদেশ জমিয়তুল মোদার্রেছীনের কেন্দ্রীয় কমিটির মহাসচিব অধ্যক্ষ মাওলানা সাব্বির আহমেদ মোমতাজি বলেছেন, ইসলামে বঙ্গবন্ধুর অনেক অবদান রয়েছে। তিনি যেমন দেশের জন্য নিবেদিত ছিলেন, তেমনি ইসলাম ও ইসলামী শিক্ষা প্রসারেও তিনি নিবেদিত ছিলেন। ইতিহাস পর্যালোচনা করলে তার প্রমাণ পাওয়া যায়। তিনি ইসলামের জন্য, ইসলামী শিক্ষার জন্য যে অবদান রেখেছেন তা অনস্বীকার্য।

তিনি আজ দুপুরে রংপুরের ধাপ সাতগাড়া বায়তুল মোকাররম মডেল কামিল মাদরাসায় বাংলাদেশ জমিয়তুল মোদার্রেছীন রংপুর জেলা শাখা আয়োজিত ‘ইসলামে বঙ্গবন্ধুর অবদান’ শীর্ষক আলোচনা সভা ও শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশ জমিয়তুল মোদার্রেছীন রংপুর জেলা শাখার সভাপতি অধ্যক্ষ আ, ন, ম, হাদীউজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি অধ্যক্ষ মাওলানা সাবিবর আহমেদ মোমতাজি ইসলাম এবং ইসলামী শিক্ষা প্রসারে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবদানের বিভিন্ন ইতিহাস তুলে ধরে বলেন, বঙ্গবন্ধু দেশের আলেম-ওলামাদের যথেষ্ট সম্মান এবং শ্রদ্ধা করতেন। তিনি তাঁর জীবদ্দশায় কখনও আলেম-ওলামাদের অসম্মান করেননি। সবসময়ই তিনি আলেম-ওলামাদের সম্মানের চোখে দেখেছেন। তিনি এদেশে মসজিদ-মাদরাসা প্রতিষ্ঠায় যে অবদান রেখেছেন-তা আমাদের স্মরন রাখতে হবে। ইসলামে তাঁর অবদানের কথা আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে। মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড প্রতিষ্ঠায় বঙ্গবন্ধুর আন্তরিকতা ও স্বদিচ্ছার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড প্রতিষ্ঠার পর দেশের প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন মাওলানা আব্দুর রশিদ তর্কবাগিশকে চেয়ারম্যান হিসেবে নিযুক্ত করা হয়। যা আলেম-ওলামা ও পীর মাশায়েখদের প্রতি বঙ্গবন্ধুর অগাধ শ্রদ্ধা-ভালোবাসা আর ইসলাম শিক্ষার প্রতি আন্তরিকতার স্বাক্ষ্য বহন করে।

তিনি আশা করেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইসলামী শিক্ষা ও দেশের আলেম-ওলামাদের প্রতি বঙ্গবন্ধুর যে শ্রদ্ধা-ভালোবাসা ও আন্তরিকতা ছিল তা অক্ষুন্ন রাখবেন। তিনি মাদরাসা শিক্ষা ও মাদরাসা শিক্ষকসহ দেশের আলেম-ওলামাদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবদানের কথা বিশদভাবে তুলে ধরে বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাদরাসা শিক্ষা বিস্তার ও মাদরাসা শিক্ষার মানোন্নয়নে যে ভুমিকা রেখেছেন তা দেশের আলেম-ওলামাসহ ইসলাম প্রিয় সর্বস্তরের মানুষ স্মরণ রাখবে। তিনি মাদরাসা শিক্ষার মানোন্নয়নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিদের্শে বাস্তবায়িত বিভিন্ন প্রকল্পগুলো তুলে ধরার পাশাপাশি বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পগুলোও তুলে ধরেন। তিনি এবতেদায়ী মাদরাসাগুলোকে অবিলম্বে জাতীয়করণ করার অনুরোধ জানান। পাশাপাশি মাদরাসা শিক্ষা অধিদপ্তর, মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড, আরবী বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে মাদরাসা শিক্ষায় শিক্ষিত আলেম-ওলামাদের নিয়োগ দেয়ার অনুরোধ জানান এবং মাদরাসা শিক্ষার মানোন্নয়নে তাঁর নির্দেশিত বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পগুলো দ্রæত বাস্তবায়নে নির্দেশ প্রদানেরও অনুরোধ জানান।

রংপুর শাখার যুগ্ম সম্পাদক অধ্যক্ষ আল-আমিন মেজবাহ’র সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ জমিয়তুল মোদার্রেছীন কেন্দ্রীয় কমিটির সহকারী সম্পাদক মাওলানা মোঃ আব্দুর রাজ্জাক। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জনাব কাউনিয়া উপজেলা শাখার সভাপতি মাওলানা মোঃ আব্দুর রশীদ, মিঠাপুকুর উপজেলা শাখার সভাপতি মাওলানা মোঃ আব্দুল মোনয়েম, সদর উপজেলা শাখার সভাপতি মাওলানা মোঃ আব্দুল জলিল, বদরগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি মাওলানা মোঃ আব্দুল আলিম, গঙ্গাচড়া উপজেলা শাখার সভাপতি মাওলানা মোঃ ফজলুল রহমান চৌধুরী খাজা, বড় রংপুর কারামাতিয়া কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মোঃ আলতাফ হোসাইন এবং রংপুর মহানগর শাখার সভাপতি মাওলানা মোঃ হাসমতুল্লাহসহ প্রমুখ।

আলোচনা সভায় জমিয়তুল মোদার্রেছীনের প্রবীণ নেতৃবৃন্দ ইসলাম এবং ইসলামী শিক্ষা বিস্তারে বঙ্গবন্ধুর অবদান ও আন্তরিকতার বিভিন্ন স্মৃতি তুলে ধরেন। পরে বঙ্গবন্ধুর রূহের আত্মার মাগফেরাত কামনা ও বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন বড় রংপুর কারামতিয়া কামিল মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ আলী। শেষে সংগঠনের পক্ষ থেকে শীতার্ত মানুষের জন্য বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা নেতৃবৃন্দের কাছে শীতবস্ত্র হস্তান্তর করা হয়।



 

Show all comments
  • রুহুল আমীন যাক্কার ২৭ জানুয়ারি, ২০২১, ৮:২৭ পিএম says : 0
    বঙ্গবন্ধু মরহূম শেখ মুজিবুর রহমানকে আল্লাহপাক জান্নাতুল ফেরদৌস নসিব করুন। আমীন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও ধর্মীয় শিক্ষার ক্ষেত্রে যথেষ্ট আন্তরিক। কিন্তু তার দলে ঘাপটি মেরে থাকা কিছু নেতা ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষা প্রসারিত হোক; তা চাননা। কিন্তু বাস্তবতা এটাই যে এ দেশের ধর্মপ্রাণ জনগণ সবকিছুর বিনিময়ে হলেও ধর্মীয় শিক্ষাকে সমুন্নত রাখবে। ইনশাআল্লাহ।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জমিয়াতুল মোদার্রেছীন


আরও
আরও পড়ুন