Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

সরকারের চোখ ঝলসানো উন্নয়ন ফাঁকা বুলি মাত্র -ড. মঈন খান

প্রকাশের সময় : ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান বলেছেন, গণতন্ত্রকে বাদ দিয়ে সরকার উন্নয়নের কথা বললেও সেটি আসলে ‘উন্নয়নের ফাঁকা বুলি’। এ ফাঁকা বুলি দিয়ে স্ট্যাটিসটিক (পরিসংখ্যান) সাজিয়ে-গুছিয়ে বাহবা নেয়া গেলেও তাতে দেশের মানুষের কোনো কল্যাণ হবে না। গতকাল শনিবার দুপুরে এক সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের কনিষ্ঠপুত্র আরাফাত রহমান কোকোর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা, পবিত্র কোরআন খতম ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে ‘জিয়া মঞ্চ’।
ড. মঈন খান বলেন, দেশ ক্রান্তিকালের ভেতর দিয়ে যাচ্ছে। দেশে গণতন্ত্র নেই, মানুষের নিরাপত্তা ও কথা বলার কোনো স্বাধীনতা নেই। এভাবে একটি রাষ্ট্র চলতে পারে না। তিনি বলেন, মানুষ সরকারের তথাকথিত উন্নয়নের জোয়ারে ভেসে যাচ্ছে। কিন্তু একটু গভীরে গেলে আমরা দেখতে পাচ্ছি, যে উন্নয়ন হচ্ছে তা ফাঁকা উন্নয়ন, ফাঁকা উন্নয়নের বুলি। গণতন্ত্র ছাড়া উন্নয়ন কখনো টেকসই হতে পারে না। সরকার উন্নয়নের ধোয়া দিয়ে গণতন্ত্রকে আচ্ছন্ন করার প্রচেষ্টায়রত।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির এ সদস্য বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা গণতন্ত্র যদি দেশে না থাকে, মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি না থাকে; তাহলে শুধু মেগা প্রজেক্টের মাধ্যমে চোখ ঝলসানো উন্নয়নের চমক দিয়ে দেশ-বিদেশের মানুষকে চমকে দেয়া যেতে পারে। কিন্তু সেটি কোনো বিশেষ উন্নতির লক্ষণ নয়।
শতকরা ৮০ ভাগ মানুষ গ্রামে বসবাস করে। তাই গ্রামীণ অবকাঠামোর উন্নয়ন ও উন্নয়নের সুফল গ্রামবাসীর কাছে পৌঁছে দিতে না পারলে সরকারের ‘তথাকথিত’ উন্নয়ন কেবল ফাঁকা বুলিতে পরিণত হবে। এ ফাঁকা বুলি দিয়ে হয়তো স্ট্যাটিসটিক (পরিসংখ্যান) সাজিয়ে-গুছিয়ে বাহবা নেয়া যেতে পারে, কিন্তু তাতে দেশের মানুষের কোনো কল্যাণ হতে পারে না।
ড. মঈন খান বলেন, ১/১১ এর সরকার অন্যায়-অত্যাচার ও নিপীড়নের মাধ্যমে দেশের মানুষকে স্তব্ধ করে দিয়ে এ দেশে গণতন্ত্রকে ধ্বংস করে দিয়েছিল। প্রায় দশ বছর আগের গণতন্ত্রকে ধ্বংস করার সেই প্রক্রিয়া এখনো অব্যাহত রয়েছে। তখন দেশ থেকে গণতন্ত্র যে অন্তর্নিহিত হয়েছিল সেটি আজও ফিরে আসেনি।
জিয়া মঞ্চর সভাপতি মহসিন আহমেদের সভাপতিত্বে এবং মহাসচিব ফয়েজ উল্লা ইকবালের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন-বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য রফিক শিকদার, কৃষক দলের যুগ্ম সম্পাদক শাহজাহান মিয়া স¤্রাট প্রমুখ।



 

Show all comments
  • Prof. Ahsan Habib ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬, ১০:২৩ পিএম says : 0
    Democracy, unfortunately, was destroyed by BNP also when theynwereninnower or even now as they practice it within the party. 1/11 government did try to rebuild certain vital institutions essential for survival of democracy. Of course, the current anti-democratic activities of BAL government is unthinkable.Finally, BNP has learned to talk about issues.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন