Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ০৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

প্রাইম ব্যাংকের আপত্তিতে বিসিএল স্থগিত রেখে জাতীয় লিগ

প্রকাশের সময় : ৩১ আগস্ট, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বিশেষ সংবাদদাতা : ২০১২-১৩ মওশুমে ফ্রাঞ্চাইজি ভিত্তিক প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট আসর প্রবর্তনের আইডিয়াটা বিসিবি’র সাবেক সভাপতি আ.হ.ম মোস্তফা কামালের (লোটাস কামাল)। ঘরোয়া প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে পিকনিক আসরের গন্ধ থেকে নিষ্কৃতি পেতে ফ্রাঞ্চাইজিদের উদ্বুদ্ধ করেছেন তিনি। বছরে ৫০ লাখ টাকা বিসিবি’র অ্যাকাউন্টে জমা দিয়ে ক্রিকেটারদের ম্যাচ ফি, হাত-খরচা, আবাসন, যাতায়ত খরচ বহনের শর্ত ফ্রাঞ্চাইজিদের জুড়ে দিয়েছেন তিনিই। ঘরোয়া ক্রিকেটে বিপিএল’র পর বিসিএলকে গুরুত্ব দিতে সুবিধাজনক সময়ে জাতীয় দলের সকল ক্রিকেটারের অংশগ্রহণে এই আসর নিয়মিত আয়োজনের কথা ছিল বিসিবি’র। তবে সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে দাঁড়িয়ে খেয়াল-খুশিমতো আসরটি আয়োজন করছে বিসিবি সর্বশেষ ২টি আসরে। সর্বশেষ আসরটি বাধাগ্রস্থ হয়েছে কোচ হাতুরুসিংহের পরিকল্পনায়। বিসিএল চলাকালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজের পূর্ব প্রস্তুতির জন্য ২৫ ক্রিকেটারকে নিয়ে খুলনা এবং চট্টগ্রামে প্রস্তুতি ক্যাম্প আয়োজন করায় এই আসরটি হয়েছে বাধাগ্রস্থÑআসরটি স্থগিত রাখতে বাধ্য পর্যন্ত হয়েছে। নভেম্বরের আসরটি শেষ হয়েছে মার্চে! জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের কাউকে পায়নি, দায়সারাভাবে আসরটি সম্পন্ন করেছে টুর্নামেন্ট কমিটিÑতাতেই ক্ষোভ সংক্রমিত হয়েছে ফ্রাঞ্চাইজিদের। সেই ক্ষোভের আগুনে এবার ঘি ঢেলেছে প্রাইম ব্যাংক সাউথ জোন।
মাত্র ৬ মাসের ব্যবধানে বিসিএল’র আর একটি আসর আয়োজনে আগামী ২০ সেপ্টেম্বর থেকে মাঠে গড়ানোর কথা ছিল আসরটি, তাতে আপত্তি করেনি ফ্রাঞ্চাইজিদের কেউ। তবে হুট করে আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে আফগানিস্তানের বিপক্ষে হোমে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ আয়োজনের সিদ্ধান্ত বিসিবি নেয়ায় বেঁকে বসেছে প্রাইম ব্যাংক। ম্যাচ ফি ৪০ হাজার টাকার সঙ্গে দৈনিক হাত-খরচা ২ হাজার টাকা, উন্নত আবাসন, প্রথম শ্রেণির যাতায়ত সুবিধা এবং বিসিবি’র অ্যাকাউন্টে ৫০ লাখ টাকা জমা রেখে একটি আসরে অংশগ্রহণের পেছনে খরচ কম করে হলেও ১ কোটি ৩০ লাখ টাকা! তারপরও কেন তারকা ক্রিকেটারÑসেখানেই প্রশ্ন এই ব্যাংকটির। এক ক্যালেন্ডার ইয়ারে কেন ২ বার বিসিএল করতে হবে, এখানেও প্রশ্ন ব্যাংকটির। সেকারণেই বিসিএল থেকে নাম প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়ে তা গত ১১ আগস্ট লিখিতভাবে জানিয়ে দিয়েছে ব্যাংকটি বিসিবিকে। পরিস্থিতির মুখে বাধ্য হয়ে বিসিএল’র পরিবর্তে জাতীয় লীগ আয়োজনের কথা ভাবছে বলে জানিয়েছেন আকরাম খানÑ ‘আমরা চাই ক্যালেন্ডার ঠিক রাখতে। কিন্তু নানা সমস্যা এসে হাজির হচ্ছে। আফগানিস্তান সিরিজটা আমাদের জন্য ভালো খবর। কিন্তু অন্য দিকে আবার বিসিএলে ঝামেলা হয়ে গেল। ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো অনেক খরচ করে টুর্নামেন্টে, তারা অবশ্যই চাইবে জাতীয় ক্রিকেটাররা খেলুক। এই মুহূর্তে তাই বিসিএল আয়োজন কঠিন। তবে আমরা বসে থাকছি না। বিসিএল না হলে জাতীয় লিগ শুরু করে দিব আমরা। সেটা হতে পারে সেপ্টেম্বরের ২৫ তারিখের দিকে।’ প্রাইম ব্যাংকের সঙ্গে দূরত্বটাও কমিয়ে ফেলতে চান তিনিÑ ‘প্রাইম ব্যাংক বেশ কবছর ধরেই দেশের ক্রিকেটের গুরুত্বপূর্ণ অংশ এবং একটি নামী প্রতিষ্ঠান। আমরা চাই তারা থাকুক ক্রিকেটের সঙ্গে। আলোচনা চলছে। আশা করি, সমস্যার সমাধান হবে।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ