Inqilab Logo

সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ৩০ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

রামুর ইউএনও প্রনয় চাকমার হেফজ খানার শিক্ষার্থীদের পর্যটন স্পষ্ট ভ্রমণের প্রশংসিত উদ্যোগ

কক্সবাজার ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৫:৫২ পিএম

রামু উপজেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল গর্জনিয়া ইউনিয়নর ২নং ওয়ার্ড জুমছড়ি মরিচ্যাচর গ্রাম প্রতিষ্ঠিত গর্জনিয়া শাহ বদর আউলিয়া (রঃ) হাফজখানা ও এতিমখানা অধ্যায়নরত ৩০ জন হাফজদর পর্যটন নগরী কক্সবাজার দেখার সুযাগ পেয়ে আনদ আত্মহারা হয়ে পড়ে।

কক্সবাজার জেলার হলও গর্জনিয়ার এসব কিশোর এর আগে তাদর জেলা শহর কক্সবাজার দেখার সুযাগ পায়নি।

রামু উপজলা প্রশাসন এসব সুবিধাবঞ্চিত শিক্ষার্থীদর এমন সুযাগ করে দিয়ছেন।

১২ ফ্ররুয়ারী (শুক্রবার) সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত রামু উপজলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমা হাফেজ ছাত্রদের নিয়ে কক্সবাজার ইনানী, হিমছড়ি, দরিয়ানগরসহ বিভিন পর্যটন স্পট ঘুর দেখানা হয়। পরে হাফজ শিক্ষার্থীদর নিয় দুপুর সাগর পাড়র খাবারর আয়াজন করে ইউএনও।

রামু উপজলা নির্বাহী কর্মর্কতা প্রণয় চাকমা শিশু-কিশার হাফেজ অধ্যায়নরতদর সাথে আলাপচারিতায় তিনি জানতে পারেন গর্জনিয়া প্রত্যন্ত অঞ্চল হওয়াতে অনেক পরিবারের শিশুরা এই পর্যটন নগরী কক্সবাজার নাম শুনলও কোন দিন দেখেনি।

তিনি বলেন, কক্সবাজার বিশ্বব্যাপী পরিচিত একটি পর্যটন এলাকা।
তবে আর্থিক সঙ্গতিসহ নানা কারণে তারা কক্সবাজার দেখার সুযাগ পায়নি।

আমি তাদের নিয়ে পর্যটন এলাকা দেখার সুযাগ করে দিয়েছি। এসব শিশুদের ‘স্বপ দেখা’র জন্য উৎসাহিত করত হবে।
হাফজ আবদুর রশিদ বলেন,আমরা সমুদ্র দেখিনাই। আমরা আজকে সমুদ্র দেখার পর অনেক আনন্দিত হয়েছি।

গর্জনিয়া শাহ বদর আউলিয়া (রঃ) হাফজখানা ও এতিমখানা প্রতিষ্ঠাতা দৈনিক খোলা কাগজের কক্সবাজার প্রতিনিধি মোঃ নেজাম উদ্দিন জানান, এটি সত্যিই আনন্দের বিষয় । এইসব সুবিধা বঞ্চিত হাফেজ শিশুদের রামু উপজলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রণয় চাকমার এমন আয়াজন ব্যতিক্রম।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন