Inqilab Logo

শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২ আশ্বিন ১৪২৮, ০৯ সফর ১৪৪৩ হিজরী

খুলনা-মংলা রেললাইনে ভারতীয় ঠিকাদারদের মানহীন স্লিপার সরবরাহ, আটকে দিল বুয়েট

খুলনা ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৭:৫৮ পিএম

নির্মাণ কাজ চলছে খুলনা-মংলা রেললাইনের। ব্যবহার করা হচ্ছে কনক্রিট, স্লিপারসহ ভারতীয় বিভিন্ন সরঞ্জাম ও যন্ত্রাংশের। অভিযোগ উঠেছে, ভারতীয় ঠিকাদার লারসেন এন্ড টু ব্রো-এলটি লিমিটেড এ প্রকল্পে নিম্নমানের পণ্য সরবরাহ করছে। এরই মধ্যে বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) এর মান নিয়ন্ত্রণ পরীক্ষার এক প্রতিবেদনে এ অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গিয়েছে। প্রকল্পের দ্বিতীয় প্যাকেজের জন্য ভারতের জলপাইগুড়ি থেকে আনা স্লিপার ব্যবহার অযোগ্য বলে সম্প্রতি প্রতিবেদন দিয়েছে বুয়েট।


রেল প্রকল্পের পরামর্শক প্রতিষ্ঠান আইএমইডি’র সূত্র বলেছে, যেসব মালামাল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারেনি তার মধ্যে রয়েছে- ৪০ হাজার বিজি প্রিপেইড মনো ব্লক কনক্রিট (পিএসসি) স্লিপারস ফর ফিক্সিং ইউআইসি, ছয় সেট পিএসপি স্লিপারস ফর ওয়ান ইন টুয়েল্ভ টারমাউনটস উইথ ইউআইসি ৬০ কেজি রেলস, সিএমএস ক্রসিং এন্ড কার্ভ সুইচ, ৩৫ সেট বিজি ওয়ান ইন টুয়েল্ভ টারমাউনটস উইথ ইউআইসি ৬০ কেজি রেলস অন পিএসসি স্লিপারস উইথ সিএমএস ক্রসিং, ২৩ সেট বিজি ওয়ান ইন ৮ দশমিক ৫ টারমাউনটস উইথ ইউআইসি ৬০ কেজি রেলস অন পিএসসি স্লিপারস উইথ সিএমএস ক্রসিং। ভারতের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান লারসেন এন্ড টু ব্রো-এলটি লিমিটেড স্লিপারস সরবরাহের দায়িত্ব পালন করছে।

পরামর্শক প্রতিষ্ঠান আইএমইডি’র তথ্য মতে, চলতি বছরের ডিসেম্বরে প্রকল্পটি শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মানহীন মালামাল সরবরাহ ও ভূমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত জটিলতার কারণে তা শেষ হতে দেরি হচ্ছে।

এ প্রকল্পের পরিচালক মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, জলপাইগুঁড়ি থেকে আনা মানহীন স্লিপার বুয়েট বাতিল করেছে। যাচাই-বাছাই করেই বিভিন্ন সরঞ্জাম রেল লাইনে সংযোগ করা হবে। তিনি বলেন, আইএমইডি’র পরিবেক্ষণ সমীক্ষা শেষে তথ্য দেয়া হয়েছে, ভারত থেকে আনা স্লিপার এই রেল লাইনে ব্যবহারের উপযোগী নয়।

আইএমইডি’র সচিব প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী জানান, জনগণের টাকার সর্বোচ্চ ব্যবহার ও দক্ষতার মাধ্যমে মানসম্পন্ন প্রকল্প সম্পন্ন করা হবে। তিনি বলেন, কাজের গুণগত মান ঠিক রেখে গতি বাড়িয়ে নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করার ব্যবস্থা নেয়া ও চুক্তিপত্রের শর্তানুযায়ী নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে ঠিকাদারের আইপিসি পরিশোধ ও পরামর্শকদের বিলও সময়মত পরিশোধ করতে বলেছে আইএমইডি। তিনি বলেন, রেল মন্ত্রণালয় সব বিষয়ে সার্বিক মনিটরিং করছে। অনভিজ্ঞ সাব কন্ট্রাক্টরের কারণে প্রকল্প শেষ করতে বিলম্ব হচ্ছে বলে তিনি অভিমত দিয়েছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: খুলনা


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ