Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ২ বৈশাখ ১৪২৮, ০২ রমজান ১৪৪২ হিজরী

শায়খা লতিফা জীবিত আছেন, দেখতে চায় যুক্তরাজ্য

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১২:০৫ এএম

একটি অবরুদ্ধ ভিলায় তাকে আটকে রাখা হয়েছে বলে বাথরুম থেকে করা এক ভিডিও বার্তা প্রকাশিত হবার পর দুবাইয়ের শাসকের কন্যা শায়খা লতিফার বেঁচে থাকার প্রমাণ দেবার জন্য বুধবার সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রতি আহবান জানিয়েছে যুক্তরাজ্য। ৩৫ বছর বয়সী লতিফার ভাগ্য এবং তার পিতা শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল-মাকতুমের সাথে তার তিক্ত বাকবিতন্ডা তার কন্যাকে মুক্তি দেয়ার জন্য তার পারিবারিক বিষয় এবং আন্তর্জাতিক প্রচারণায় নতুন মনোনিবেশ করেছে।

দুবাই এখন লতিফাকে মুক্তি দিতে আন্তর্জাতিক চাপে রয়েছে। ২০১৮ সালে ডিঙি নৌকায় করে পালানোর চেষ্টাকালে আমিরাতের কমান্ডো ইউনিট ভারত থেকে তাকে ফিরিয়ে এনেছিল।
ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রাব বলেন, লতিফার ভিডিওটিতে তিনি বলছিলেন যে, তাকে জিম্মি করে রাখা হয়েছে এবং তার নিরাপত্তা নিয়ে তিনি উদ্বিগ্ন, কারণ এতে একজন মহিলাকে গভীর সঙ্কটে দেখানো হয়েছিল। রাব স্কাইকে বলেন, ‘যা দেয়া হয়েছে তা দেখেছি, আমি মনে করি মানুষ কেবলমাত্র একটি স্তরেই দেখতে চায় যে, তিনি বেঁচে আছেন এবং ভাল আছেন’।

বিবিসির প্যানোরামা কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স প্রোগ্রামের অংশ হিসাবে দেখানো ভিডিওতে লতিফা বলেছেন: ‘আমি জিম্মি এবং এ ভিলাটিকে কারাগারে রূপান্তর করা হয়েছে। প্রতিদিন আমি নিজের নিরাপত্তা এবং নিজের জীবন নিয়ে চিন্তা করি’, তিনি ভিলার বাথরুম থেকে ভিডিও বার্তায় বলেছেন। তিনি বলেন যে, নিরাপত্তাবাহিনী তাকে বলেছিল যে, তাকে তার পুরো জীবনের জন্য বন্দি করে রাখা হবে এবং ‘আর কখনও সূর্যকে দেখবেন না’। ভিডিওটি কখন বা কোথায় রেকর্ড করা হয়েছে রয়টার্স স্বাধীনভাবে যাচাই করতে পারেনি।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন যে, তিনি উদ্বিগ্ন এবং জাতিসংঘ পরিস্থিতি খতিয়ে দেখছে। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘স্পষ্টতই আমরা উদ্বিগ্ন, তবে জাতিসঙ্ঘ মানবাধিকার কমিশন সেদিকে নজর দিচ্ছে। আমি মনে করি আমরা যা করব তা অপেক্ষা করা এবং তারা কীভাবে এগিয়ে যায় তা দেখুন। আমরা সেদিকে নজর রাখব’।

দুবাই সরকারের মিডিয়া অফিস ভিডিও সম্পর্কিত প্রশ্নগুলো দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদের আইন সংস্থার কাছে উল্লেখ করেছে, যারা তাৎক্ষণিকভাবে কোনও মন্তব্যের অনুরোধের জবাব দেয়নি।

‘ফ্রি লাতিফা’ ক্যাম্পেইন
শায়খা লতিফা বিনতে মোহাম্মদ আল-মাকতুম ২০১৮ সালে আন্তর্জাতিক মনোযোগ আকৃষ্ট করেন যখন একটি মানবাধিকার গোষ্ঠী তার তৈরি একটি ভিডিও প্রকাশ করেছিল যাতে তিনি দুবাই থেকে পালানোর চেষ্টা বর্ণনা করেছিলেন।

গত মার্চে লন্ডন হাইকোর্টের একজন বিচারক বলেছিলেন যে, তিনি শেখ মোহাম্মদের প্রাক্তন স্ত্রী প্রিন্সেস হায়ার আইনী লড়াইয়ে একাধিক অভিযোগ প্রমাণিত হিসাবে মেনে নিয়েছিলেন, এর মধ্যে ছিল শায়খা লতিফাকে অপহরণের নির্দেশও। শেখ মাকতুমের আইনজীবীরা অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন।

ভিডিওটি প্রকাশিত হওয়ার পর ব্রিটেন সংযুক্ত আরব আমিরাতের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করবে কিনা জানতে চাইলে, রাব বলেন: ‘এটি আমার পক্ষে স্পষ্ট নয় যে, এর সমর্থনে প্রমাণ মিলবে কিনা’। তার মুক্তির পক্ষে তদবিরকারী ‘ফ্রি লতিফা অভিযান’ জানিয়েছে, তারা লতিফার কাছে একটি ফোন পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছিল, যা গত দুই বছর ধরে নেয়া বেশ কয়েকটি গোপন ভিডিও বার্তা প্রেরণে ব্যবহৃত হয়েছিল।

লতিফাকে দুবাইতে ফিরিয়ে আনার পর থেকে মঙ্গলবারের আগে কেবল একবারই দেখা গিয়েছিল যখন তার পরিবার তার ২০১৩ সালের শেষদিকে আয়ারল্যান্ডের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট এবং মানবাধিকার বিষয়ক জাতিসংঘের হাইকমিশনার মেরি রবিনসনের সাথে তার বসার ছবি প্রকাশ করেছিল। তবে রবিনসন বিবিসিকে বলেছিলেন যে, এ সফরের সময় তিনি ‘ভয়াবহভাবে জালিয়াতি’ পেয়েছিলেন এবং লতিফাকে তার পরিস্থিতি সম্পর্কে কখনও জিজ্ঞাসা করেননি, ভয়ে ভেবেছিলেন যে, এ রাজকন্যার যে মানসিক অবস্থা তাকে বলা হয়েছিল তা আরও বাড়িয়ে দেবে।

ব্রিটেনে দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রশিদ আল-মাকতুমের ঘোড়-দৌড়ের বড় ধরনের প্রতিষ্ঠান রয়েছে এবং মাঝে-মধ্যেই তিনি রয়াল অ্যাসকটের মতো বড় ধরনের অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে থাকেন। সূত্র : রয়টার্স।

 

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আটক

৯ এপ্রিল, ২০২১

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ