Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮, ৭ কার্তিক ১৪২৫, ১১ সফর ১৪৪০ হিজরী

এ মাসে স্বাভাবিক বর্ষণ ও মৌসুমি নিম্নচাপের সম্ভাবনা

প্রকাশের সময় : ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বৃষ্টিতে কেটেছে ভাদ্রের তালপাকা গরম
শফিউল আলম : উত্তর বঙ্গোপসাগর ও এর সংলগ্ন বাংলাদেশের উপর হঠাৎ করে সক্রিয় হয়ে উঠেছে বর্ষারোহী মৌসুমি বায়ুমালা। এর ফলে মধ্যভাদ্রে গতকালসহ (বৃহস্পতিবার) দু’দিনে ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের অধিকাংশ জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত, কোথাও কোথাও ভারী বর্ষণ হয়েছে। এ বৃষ্টিতে কেটে গেছে ভাদ্রের গা-জ্বলা তালপাকা ভ্যাপসা গরম। গতকাল থেমে থেমে মাঝারি ধরনের বর্ষণে ঢাকা ও চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন সড়ক অলিগলি প্লাবিত হয়। সপ্তাহের শেষ দিনে বৃষ্টি যানজটের যন্ত্রণাকে আরও বাড়িয়ে দেয়। বর্ষণের সাথে দমকা ও ঝড়ো হাওয়ার কারণে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে আমদানি পণ্য লাইটারিং খালাস কাজ ব্যাহত হচ্ছে। ঢাকা, চট্টগ্রামসহ প্রায় সারাদেশের আকাশ ঘনকালো মেঘে ঢাকা রয়েছে। সন্ধ্যা অবধি দেশের বিভিন্ন স্থানে দমকাসহ বৃষ্টি হচ্ছিল। আজও (শুক্রবার) দেশের অনেক জায়গায় হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। সাগর উত্তাল থাকায় সমুদ্রবন্দরগুলোতে সতর্ক সংকেত রাখা হয়েছে এদিকে চলতি সেপ্টেম্বর মাসে বাংলাদেশে স্বাভাবিক হারে বৃষ্টিপাত হতে পারে। সেই সাথে এ মাসে বঙ্গোপসাগরে ১ থেকে ২টি পর্যন্ত বর্ষারোহী মৌসুমি নিম্নচাপ সৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। এতে করে বর্ষা-উত্তর মৌসুমে দেশে আরও বর্ষণ হতে পারে। সেপ্টেম্বর মাসে দেশের নদ-নদীর সম্ভাব্য অবস্থা সম্পর্কে বলা হয়েছে, এ মাসে গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র ও মেঘনা অববাহিকায় স্বাভাবিক প্রবাহ বজায় থাকতে পারে।
দীর্ঘমেয়াদী পূর্বাভাস প্রদানের লক্ষ্যে গতকাল আবহাওয়া অধিদপ্তরের ঝড় সতর্কীকরণ কেন্দ্র ঢাকায় অনুষ্ঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটির নিয়মিত বৈঠকে উপরোক্ত পূর্বাভাস প্রদান করা হয়েছে। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন আবহাওয়া অধিদপ্তরের পরিচালক ও বিশেষজ্ঞ কমিটির চেয়ারম্যান সামছুদ্দিন আহমেদ। এতে প্রাপ্ত আবহাওয়া-জলবায়ুর তথ্য-উপাত্ত, ঊর্ধ্বাকাশের আবহাওয়া বিন্যাস, বায়ুম-লের বিভিন্ন স্তরের বিশ্লেষিত আবহাওয়া মানচিত্র, জলবায়ু রিগ্রেশন ও এনালগ মডেল, বৈশ্বিক আবহাওয়া-জলবায়ুর সর্বশেষ গতি-প্রকৃতি, আবহাওয়াম-লের এল-নিনো কিংবা লানিনা অবস্থা ইত্যাদির বিশ্লেষণ করা হয়।
বৈঠকে এ মাসের কৃষি আবহাওয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, সেপ্টেম্বরে দেশের দৈনিক গড় বাষ্পীভবন ৩ থেকে ৪ মিলিমিটার এবং গড় সূর্য কিরণকাল সাড়ে ৪ থেকে সাড়ে ৫ ঘন্টাকাল পর্যন্ত স্থায়ী থাকতে পারে।
গত আগস্ট মাসের আবহাওয়া পরিস্থিতি পর্যালোচনাকালে বিশেষজ্ঞ কমিটির বৈঠকে জানানো হয়, আগস্টে সারাদেশে প্রায় স্বাভাবিক (তবে ২ শতাংশ কম) বৃষ্টিপাত হয়েছে। খুলনা ও বরিশাল বিভাগে স্বাভাবিক অপেক্ষা বেশি, ঢাকা, ময়মনসিংহ, রংপর, সিলেট এবং রাজশাহী বিভাগে স্বাভাবিক অপেক্ষা কম এবং চট্টগ্রাম বিভাগে স্বাভাবিক বৃষ্টিপাত হয়েছে। উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট একটি নিম্নচাপ গত ১০ আগস্ট বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূল অতিক্রম করে এবং অপর একটি গভীর নিম্নচাপ গত ১৭ আগস্ট পশ্চিমবঙ্গ-বাংলাদেশ উপকূল অতিক্রম করে। এছাড়া গত ২০ আগস্ট বাংলাদেশের উপর একটি পূবালী লঘুচাপের আগমন ঘটে। যা পরবর্তীতে পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে গত ২১ আগস্ট ফরিদপুর-যশোর-কুষ্টিয়া অঞ্চলে এসে সুস্পষ্ট লঘুচাপে পরিণত হয়। পরবর্তীতে আরও পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে দুর্বল হয়ে পড়ে। এ সময় সারাদেশে ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি এবং বজ্রসহ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। এ সব কারণে খুলনা ও বরিশাল বিভাগে স্বাভাবিক অপেক্ষা বেশি বৃষ্টিপাত হয়েছে। বৃষ্টিপাত, বৃষ্টিপাতের দিনসংখ্যা, কষি আবহাওয়ার পূর্বাভাস এবং নদ-নদীর অবস্থা আগস্ট মাসের পূর্বাভাসের সাথে সংগতিপূর্ণ ছিল।
এদিকে চলতি সেপ্টেম্বর মাসে দেশের ৭টি বিভাগওয়ারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাব্য দিনসংখ্যা ও পরিমাণের পূর্বাভাস প্রদান করা হয়েছে। এতে জানানো হয়েছে, ঢাকা বিভাগে ১২ থেকে ১৪ দিনে ২৬০ থেকে ২৯০ মিলিমিটার পর্যন্ত বৃষ্টিপাত হতে পারে। চট্টগ্রাম বিভাগে ১১-১৩ দিনে ৩০০ থেকে ৩৩০ মি.মি., ময়মনসিংহ বিভাগে ১৩-১৫ দিনে ৩২০ থেকে ৩৫০ মি.মি., সিলেট বিভাগে ১৫-১৭ দিনে ৩৮৫ থেকে ৪২৫ মি.মি., রাজশাহী ১২-১৪ দিনে ২৮০ থেকে ৩১০ মি.মি., রংপুর বিভাগে ১৩-১৫ দিনে ৩৮৫ থেকে ৪২৫ মি.মি., খুলনা বিভাগে ১৩-১৫ দিনে ২৬০ থেকে ২৯০ মি.মি. এবং বরিশাল বিভাগে ১৪-১৬ দিনে ৩০০ থেকে ৩৩০ মি.মি. পর্যন্ত বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।
আবহাওয়া বিভাগ জানায়, বর্ষারোহী মৌসুমি বায়ুর বর্ধিতাংশের (ট্রাফ) অক্ষ বা বলয় ভারতের রাজস্থান, উত্তর-প্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের উত্তরাংশ হয়ে উত্তর-পূর্ব দিকে আসাম পর্যন্ত বি¯ৃÍত রয়েছে। এর একটির বর্ধিতাংশ উত্তর-পূর্ব দিকে বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের উপর সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি থেকে জোরদার অবস্থায় রয়েছে।
আবহাওয়ার পূর্বাভাসে জানা গেছে, ঢাকা, ময়মনসিংহ, রাজশাহী, রংপুর, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বষ্টিপাত হতে পারে। সেই সাথে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে। বৃষ্টিপাতের ফলে সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা গড়ে ১ বা ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত হ্রাস পেতে পারে। রাতের তাপমাত্রাও সামান্য হ্রাস পেতে পারে। পরবর্তী ৭২ ঘণ্টায় (৩ দিন) বৃষ্টিপাতের প্রবণতা অব্যাহত থাকতে পারে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।