Inqilab Logo

ঢাকা বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০১ ব্শৈাখ ১৪২৮, ০১ রমজান ১৪৪২ হিজরী

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে মাদ্রাসা ছাত্রীকে ধর্ষণ-অপহরণ, রিমান্ডে আসামির স্বীকারোক্তি

নোয়াখালী ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৯:০৯ পিএম

বেগমগঞ্জ উপজেলার আলাইয়াপুর ইউনিয়নে মাদ্রাসা ছাত্রীকে (১৭) গণধর্ষণ, ভিডিও ধারণ ও অপহরণের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় গ্রেপ্তারকৃত আসামী সাইফুল ইসলাম ইমনের ৫দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। একইসাথে অপর আসামী ফয়সাল আদালতে ১৬৪ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

শনিবার বিকালে গ্রেপ্তারকৃতদের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, গ্রেপ্তারকৃত দুইজনকে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোসলেহ উদ্দিন মিজান এর আদালতে হাজির করলে ফয়সাল নিজের দায় স্বীকার করে ১৬৪ধারায় জবানবন্দি প্রদান করেন। অপর আসামী ইমনকে ধর্ষণ ও অপহরণ মামলায় ৩দিন ও পর্ণোগ্রাফী মামলায় ২দিনসহ মোট পাঁচ দিনের রিমান্ড প্রদান করা হয়েছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও বেগমগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রুহুল আমিন জানান, পৃথক দু’টি মামলায় সাইফুল ইসলাম ইমনকে ৫দিন করে ১০দিনের রিমান্ডের আবেদন করে আদালতে হাজির করলে আদালত দু’টি মামলায় তার ৫দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। মামলায় অপর দুই পলাতক আসামীকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

উল্লেখ্য, গত ২০১৮ সালের ১৩মার্চ রাতে মামলার আসামী ফয়সাল ও জোবায়ের ঘরে ডুকে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ওইছাত্রীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে তার ভিডিও ধারণ করে। ঘরে থেকে যাওয়ার সময় তারা আমার আলমেরি থেকে নগদ ৫০হাজার টাকা, স্বর্ণের চেইন ও দুইটি আংটি নিয়ে যায়। গত ২০২০সালের ৫মার্চ রাত আড়াইটার দিকে ইমন ও রাসেল ঘরে ডুকে নির্যাতিতাকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। ঘটনার তিন মাস পর রাসেলকে ৫০হাজার টাকা দিয়ে ঢাকার মিরপুর-২, ৭নং রোডের ৩নং গলির জান্নাত নামের এক নারীর কাছ থেকে মেয়েকে নিয়ে আসেন তার মা। ওই তিন মাসে অপহৃতাকে একাধিকবার ধর্ষণ করে রাসেল। এরপর বিভিন্ন সময় ইমন বাড়ীতে এসে আগ্নেয়াস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ওইছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে। সবশেষ গত বছরের ২৪ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৭টার দিকে তাকে আবারও অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার পর থেকে এখনও পর্যন্ত সে নিখোঁজ রয়েছে। মেয়েকে ফিরত ফেতে হলে আসামীরা তার মাকে তাদের সাথে শারীরিক সম্পর্ক করতে প্রস্তাব দেয়। এ ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার রাতে নির্যাতিতার মা বাদী হয়ে ৪জনকে আসামী করে বেগমগঞ্জ থানায় পৃথক দুটি মামলা করেন। মামলার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে আসামী ফয়সাল ও ইমনকে গ্রেপ্তার করেছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: নোয়াখালী


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ