Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ১০ এপ্রিল ২০২১, ২৭ চৈত্র ১৪২৭, ২৬ শাবান ১৪৪২ হিজরী

ভারত বলেই কি এমন অধিকার?

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১ মার্চ, ২০২১, ১২:০২ এএম

ভারত ও ইংল্যান্ড সিরিজের আহমেদাবাদ টেস্টের উইকেট নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। মাইকেল ভন এক কাঠি সরেস। নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামের উইকেটকে ভন শুধু ‘জঘন্য’ই বলেননি, এর সঙ্গে তিনি দুষেছেন আইসিসিকেও। ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থাকে ‘নখদন্তহীন’ মনে করেন ইংল্যান্ডের সাবেক এ অধিনায়ক। ভনের চোখে আইসিসিকে এমন মনে করার কারণও আছে। ভারতের মতো ‘শক্তিশালী দেশগুলো’ যখন যা খুশি তা–ই করবে, তখন আইসিসিকে এর বাইরে অন্য কিছু মনে হওয়ার তো কারণ নেই।
উইকেট নিয়ে ভারতের সাবেক ক্রিকেটার যুবরাজ সিংও প্রশ্ন তুলেছেন। টেস্ট ক্রিকেটের জন্য এমন উইকেট নেতিবাচক বিজ্ঞাপন তৈরি করে বলে মনে করেন যুবরাজ। আজ ম্যাচের পঞ্চম দিনের খেলা হওয়ার কথা ছিল আহমেদাবাদে। কিন্তু মাত্র দ্বিতীয় দিনে খেলার প্রায় ২৫ ওভার বাকি থাকতে ১০ উইকেটের জয় পায় ভারত। দিবারাত্রির এই টেস্টে প্রথম দিন থেকেই বল ভীষণ বাঁক নেয়। কোনো দলের ব্যাটসম্যানই স্পিন স্বস্তির সঙ্গে খেলতে পারেননি।
বল কতটা বাঁক নিয়েছে, তার প্রমাণ টেস্টের চতুর্থ ইনিংসে ইংল্যান্ড অধিনায়ক জো রুটের বোলিং শুরু করা। খন্ডকালীন স্পিনার আগের ইনিংসেই নিয়েছেন ৫ উইকেট! ভন স্বীকার করছেন স্পিনবান্ধব উইকেটে ভারত ইংল্যান্ডের চেয়ে ভালো দল। কিন্তু আহমেদাবাদের উইকেটে ভারতের জয়ে মহিমা খুব সামান্যই।
টেস্ট ক্রিকেটে ম্যাচ জয়ের যে তৃপ্তি, এই জয়ের মধ্যে তার রেশ খুব সামান্য বলেই মনে করেন তিনি। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম টেলিগ্রাফে এই ক্রিকেট বিশ্লেষক ও ধারাভাষ্যকার লিখেছেন, ‘ভারতের মতো শক্তিশালী দেশগুলোকে যত দিন পর্যন্ত যা খুশি তা–ই করতে দেওয়া হবে, তত দিন পর্যন্ত আইসিসিকে নখদন্তহীন মনে হবে।’
ভন সরাসরি লিখেছেন, ‘নিয়ন্ত্রক সংস্থা ভারতকে যা খুশি তা–ই করতে দিচ্ছে। এ কারণে টেস্ট ক্রিকেট ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।’
ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) ওপর বিরক্তি প্রকাশ করে কথাটা লিখেছেন তিনি, ‘এসব কারণে সম্প্রচারক সংস্থাগুলো টাকাও ফেরত চাইতে পারে। খেলোয়াড়েরা মানসম্পন্ন না হওয়ায় টেস্ট দ্রুত শেষ হয়ে যাচ্ছে-এটা তারা মেনে নেবে, কিন্তু ঘরোয়া বোর্ডের এমন বাজে পিচ বানানো মেনে নেবে না। তিন দিন আগেই ম্যাচ শেষ হয়েছে, ওদিকে তাদের টাকাও খসছে। এতে খুশি হওয়ার কোনো কারণ নেই এবং টেস্টের স্বত্ব পেতে ভালো অঙ্কের টাকা খরচের ব্যাপারে তারা দ্বিতীয়বার ভাববে।’
আহমেদাবাদ টেস্ট চলাকালে পিচ নিয়ে বেশ কিছু টুইটও করেছেন ভন। সোজাসাপ্টা লিখেছেন, ‘জঘন্য উইকেট। দ্বিতীয় দিনের পুরোটাই লটারি।’
কলামেও ভন ভারতের জয়কে সেভাবে পাত্তা দিচ্ছেন না। তার মতে, এই টেস্টে কেউ জিততে পারেনি, ‘ভারত তৃতীয় টেস্ট জিতেছে, কিন্তু এই জয়ের কোনো গভীরতা নেই। আসলে এ ম্যাচে কেউ জিততে পারেনি।’
ভন স্বীকার করছেন, এমন কন্ডিশনে ভারত দক্ষতায় ইংল্যান্ডের চেয়ে এগিয়ে। ‘কিন্তু খেলার ভালো ভেবেই এসব নিয়ে কথা বলতে হবে এবং সেই দায়িত্বটা সাবেকদের’ বলে মনে করেন ৪৫ বছর বয়সী ভন।
এদিকে আহমেদাবাদ টেস্ট শেষ হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত পিচ নিয়ে কম কথা হয়নি। তবে এবার এ নিয়ে আইসিসির দ্বারস্থ হওয়ার কথা ভাবছে দলটি, জানালেন কোচ ক্রিস সিলভারউড। নবনির্মিত নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে সময়টা ভালো কাটেনি ইংলিশদের। দুই ইনিংসে ২০ উইকেটের বিনিময়ে সাকুল্যে ১৯৩ রান তুলতে পেরেছে, যা ভারতের মাটিতে দলটির সর্বনিম্ন আর ১৯০৪ সালের পর দলটির দ্বিতীয় সর্বনিম্ন রান। প্রথম ইনিংসে কঠিন সময় পার করেছে ভারতও। ইংলিশ অধিনায়ক জো রুট তার খন্ডকালীন স্পিনেই ঘায়েল করেছেন পাঁচ ভারতীয় ব্যাটসম্যানকে।
দিবারাত্রির টেস্টে বল স্কিড করে বেশি, ভারতীয় উপমহাদেশে ব্যবহৃত এসজি বলে পরিমাণটা বাড়ে আরও বেশি। সঙ্গে যখন যোগ হয় নিখাদ স্পিনিং উইকেট, তখন তা ব্যাটসম্যানদের বধ্যভূমি না হয়েই পারে না।
৩০ উইকেটের দুই তৃতীয়াংশ গেছে স্পিনে বিভ্রান্ত হয়ে, হয় বোল্ড নাহয় এলবিডব্লিউর শিকার হয়ে। এভাবে স্পিনারদের প্রতি পিচের উদারতার হাত বাড়িয়ে দেওয়াটাই ইংল্যান্ডকে ভাবাচ্ছে। ইংল্যান্ড কোচ ক্রিস সিলভারউড জানালেন, এ নিয়ে আইসিসির দ্বারস্থ হওয়ার কথাও ভাবছে তার দল। বললেন, ‘পর্দার পেছনের অনেক কিছু নিয়ে আমরা কথা বলবো। একই সময়ে আমরা হতাশ, কারণ টেস্ট শেষ হওয়ার তিন দিন বাকি থাকতেই এখানে বসে কথা বলছি আমরা। আমি নিশ্চিত দর্শকরাও হতাশ। আমরা ম্যাচ রেফারি (জাভাগাল শ্রীনাথ) এর সঙ্গে কথা বলেছি, তবে সেটা পিচ নিয়ে নয়। জো আর আমি বসে কথা বলেছি, এ নিয়ে কোথায় যাওয়া যায় এ নিয়ে আলোচনা করেছি।’
পিচ নিয়ে এখনও দুই ধরনের কথা শোনা যাচ্ছে। জো রুটের ভাষ্য, ‘দর্শকরা আমাকে পাঁচ উইকেট শিকার করতে দেখেছে, অথচ বিষয়টা হওয়ার কথা ছিল পুরো উল্টো!’ ভারতীয় অধিনায়ক কোহলি দায়ী করেছেন দুই দলের বাজে ব্যাটিংকে।
ইংল্যান্ড কোচ অবশ্য এ দায় নিয়েছেন মাথা পেতে। বলেছেন, ‘এ ধরনের পিচে আমাদের আরও ভালো করা উচিত। এ কথাটা আমাদের মেনে নিতে হবে যে এমন অনেক জায়গাই আছে যেখানে আমাদের আরও উন্নতি করা প্রয়োজন। দেখুন, প্রথম ইনিংসে আমাদের সুযোগ ছিল ভালো রান করার। এরপর থেকে আমাদের এ সুযোগগুলো কাজে লাগাতে হবে। আর পিচ যেমনই করেছে বা করেনি, ভারত দিনশেষে আমাদের চেয়ে ভালো খেলেছে এখানে। কিন্তু এটা আমাদের খেলোয়াড়দের সামর্থ্যরে শেষ সীমায় নিয়ে গেছে।’



 

Show all comments
  • এম এ মোতালেব ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১১:৫১ এএম says : 0
    আইসিসির মুকুট ভারতের মুন্ডু থেকে নামিয়ে দিতে হবে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত


আরও
আরও পড়ুন