Inqilab Logo

ঢাকা শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ৪ বৈশাখ ১৪২৮, ০৪ রমজান ১৪৪২ হিজরী

আমাজন বনভূমিতে চলছে অবৈধভাবে প্লট বিক্রি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ২:৫৭ পিএম

একের পর এক ষড়যন্ত্রের শিকার হচ্ছে ‘পৃথিবীর ফুসফুস’ খ্যাত আমাজন বনাঞ্চল। কয়েক যুগ ধরেই এই বন উজাড় করে সেখানে শিল্পায়নের চেষ্টা চালাচ্ছে পরিবেশবিদ্বেষী পুঁজিবাদীরা। এরই ধারাবাহিকতায় এবার অবৈধভাবে ব্রাজিলের অংশে আমাজন বনের জমিতে অবৈধভাবে জমি কেনাবেচা করছে একটি চক্র। আর এই কাজে তারা ব্যবহার করছে পণ্য বিক্রির জনপ্রিয় অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ফেসবুক মার্কেট প্লেস। গত শুক্রবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে আসে।
ফেইসবুকে বিজ্ঞাপন দিয়ে আমাজন মহাবনের একাংশ বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে বিবিসি। বিক্রি করে দেওয়া অংশের মধ্যে জাতীয় উদ্যান ছাড়াও আদিবাসী জনগোষ্ঠীর জন্য সংরক্ষিত অঞ্চল রয়েছে। ফেইসবুকে ক্লাসিফায়েড বিজ্ঞাপন দিয়ে যে পরিমাণ জমি বিক্রি করা হয়েছে তার পরিমাণ এক হাজার ফুটবল মাঠের সমান।
ফেইসবুকে ‘ফরেস্ট’, ‘ন্যাটিভ জঙ্গল’ এবং ‘টিম্বার’ লিখে সার্চ দিলে এমন অনেক বিজ্ঞাপন দেখতে পাওয়া যাবে যা অবৈধভাবে ভূমি বিক্রির সঙ্গে জড়িত। এ অসাধু ব্যবসায়ীরা তাদের বাণিজ্যিক বৈধতার জন্য ফেইসবুককে ব্যবহার করছে। আর ফেইসবুক র্কর্তৃপক্ষও নিজেদের মুনাফা অটুট রাখতে এসব দেখেও দেখছে না তথাকথিত নীতিমালার উদ্ধৃতি দিয়ে।
অবৈধ এই বেচাকেনা থামাতে ইতোমধ্যে নিজেদের অপারগতা স্বীকার করেছে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। তারা বলছে, মার্কেট প্লেসে যে কোনো পণ্য লেনদেনে ক্রেতা-বিক্রেতারা পুরোপুরি স্বাধীন। তাই ব্রাজিল সরকারের হস্তক্ষেপ ছাড়া কোনোভাবেই আমাজন ধ্বংসের এই কালোবাজারি কার্যক্রম বন্ধ করা যাবে না। তবে পরিবেশবাদীরা বলছেন, এই ষড়যন্ত্রে রাজনীতিবিদ ও সরকারি কর্মকর্তারাই জড়িত।
এর আগে ২০১৯ সালের আগস্টে ভয়াবহ দাবানলে পুড়ে ছারখার হয়েছিল আমাজন। সে সময় টানা তিন সপ্তাহ পুড়তে থাকা বনভূমিটি রক্ষায় ব্রাজিল সরকারের নিষ্ক্রিয় ভূমিকা আন্তর্জাতিক মহলে নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছিল। সরকার নিজেই মুনাফার লোভে পরিকল্পিতভাবে ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে বলে মত পরিবেশবাদী সংগঠনগুলোর। এবার চিরহরিৎ এই বনের জমি বিক্রির খবর যেন সেই সমালোচনায় যোগ করছে নতুন রসদ।
এদিকে আমাজনের বিক্রি হয়ে যাওয়া অংশে বসবাসরত আদিবাসী গোষ্ঠীর এক নেতা এ ঘটনার জন্য ফেইসবুককে দায়ী করেছেন। আদিবাসী ও বনাঞ্চল রক্ষাকারী সংস্থাগুলোর মতে, লাতিন আমেরিকার সরকারগুলো আমাজনের ভূমি বিক্রি বন্ধের ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না। পরিবেশবাদী বেসরকারি সংস্থা কানিনডের প্রধান ইভানেইডে বান্দেরিয়া বিবিসিকে বলেন, ‘ভূমিখেকোরা এতটাই নির্লজ্জ ও বেপরোয়া যে তারা ফেইসবুকে বিজ্ঞাপন দিয়ে অবৈধভাবে জমি বিক্রি করে দিচ্ছে।’
আমাজনের যে জমিগুলো বিক্রি করা হচ্ছে তা মূলত ব্রাজিলের স্থানীয় আইনের ফাঁক দিয়ে বিক্রি করা হচ্ছে। ব্রাজিলে বর্তমান প্রেসিডেন্ট বোলসোনারোর আমলে গবাদি পশু লালন-পালনে জোর দেওয়া হয়েছে। এ ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হচ্ছে আমাজনের জমি। যে কেউ আমাজনের জঙ্গল সাফ করে জমি বের করতে পারছে খামারের জন্য। আর এ সুযোগটাই নিচ্ছে অবৈধ ভূমি ব্যবসায়ীরা। গত ১০ বছরে ব্রাজিলে সর্বাধিক মাত্রায় বনাঞ্চল উজাড় করা হয়েছে। আর ফেইসবুকের মার্কেটপ্লেস ব্যবহার করে ওই উজাড় করা বনাঞ্চলও বিক্রি হচ্ছে সর্বাধিক মাত্রায়। সূত্র : রয়টার্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: দক্ষিণ আমেরিকা
আরও পড়ুন